kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

হংকং পার্লামেন্টে তীব্র বিরোধিতার মুখে ক্যারি লাম

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ১৬:৪১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হংকং পার্লামেন্টে তীব্র বিরোধিতার মুখে ক্যারি লাম

পার্লামেন্টে সংসদ সদস্যদের তীব্র বিরোধিতার মুখে পড়েছেন হংকংয়ের নেতা ও প্রধান নির্বাহী ক্যারি লাম

আজ বুধবার লেজিসলেটিভ কাউন্সিল বা পার্লামেন্টে সংসদ সদস্যদের তীব্র বিরোধিতার মুখে পড়েছেন হংকংয়ের নেতা ও প্রধান নির্বাহী ক্যারি লাম। 

পার্লামেন্টে তীব্র বিরোধিতার মুখে বার্ষিক বক্তব্য স্থগিত করতে বাধ্য হয়েছেন তিনি। 

আজ পার্লামেন্টে বিরোধীদলীয় সদস্যরা ব্যাপক হট্টগোল এবং চিৎকার করতে থাকেন। ক্যারি লামকে নিয়ে তারস্বরে স্লোগান দিতে থাকেন। প্রথম দফায় তিনি বক্তব্য দেয়ার চেষ্টা করলে তাতে  বিঘ্ন ঘটে। এরপর অধিবেশন আবার শুরু হতে গেলে আবারও একই অবস্থার শিকারে পরিণত হন তিনি। এ সময় পার্লামেন্টে বক্তব্য দেয়া স্থগিত করে ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে তিনি বক্তব্য তুলে ধরেন পার্লামেন্টের ওয়েবসাইটে।

গত জুলাইয়ে তীব্র বিরোধিতার মুখে প্রত্যাবাসন বিষয়ক বিলটি স্থগিত করা হয়। এই বিল নিয়ে কয়েক মাস ধরে হংকংয়ে বিক্ষোভ  চলছে। পার্লামেন্টে ওই ক্ষোভের প্রেক্ষিতে বিলটি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রত্যাহার করা নাও হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।  

ওই বিক্ষোভের পর প্রথমবারের মতো আজ বুধবার লেজিসলেটিভ কাউন্সিলের অধিবেশন বসে। এই অধিবেশনেই সবাই মিলে ওই বিলটি প্রত্যাহার করার সুযোগ ছিল। কিন্তু প্রধান নির্বাহী ক্যারি লাম অধিবেশন শুরু হতেই তার বক্তব্য দেয়া শুরু করতে যান। এ সময় বিরোধী দলীয় সদস্যরা চিৎকার করতে থাকেন। তাদের অনেকে টেবিলের ওপর উঠে যান। এ সময় তারা 'পাঁচটি দাবি- একটিও কম নয়' বলে স্লোগান দিতে থাকেন 

এদিকে, বিরোধী দলীয় সদস্য তানিয়া চ্যান হংকংয়ের সঙ্কটের জন্য ক্যারি লামকে দায়ী করেছেন। 

তানিয়া চ্যান বলেছেন, ক্যারি লামের দুই হাত রক্তে রঞ্জিত। আমরা চাই ক্যারি লামের প্রত্যাহার ও পদত্যাগ। তার সরকার চালানোর মতো কোনো সক্ষমতা নেই। প্রধান নির্বাহী হওয়ার মতো যোগ্যতা সম্পন্ন নন তিনি। 

সূত্র : বিবিসি 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা