kalerkantho

সোমবার । ১৪ অক্টোবর ২০১৯। ২৯ আশ্বিন ১৪২৬। ১৪ সফর ১৪৪১       

বাংলাদেশি পর্যটক নিহতের ঘটনায় চার্জশিট দিল কলকাতা পুলিশ

অনিতা চৌধুরি, কলকাতা প্রতিনিধি   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৯:০৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশি পর্যটক নিহতের ঘটনায় চার্জশিট দিল কলকাতা পুলিশ

দুই বাংলাদেশিকে পিষ্ট করে হত্যার ঘটনায় কলকাতার জনপ্রিয় আরসালান রেস্তোরাঁর মালিকের ছেলে রাঘিব পারভেজের বিরুদ্ধে চার্জশিট জমা দিল পুলিশ। গত ১৬ আগস্ট মধ্যরাতে শেকসপিয়র সরণিতে একটি জাগুয়ার গাড়ি বেপরোয়া গতিতে প্রথমে একটি মার্সিডিজকে ধাক্কা মারে। সেই মার্সিডিজটি পুলিশ কিয়স্কের ছাউনিতে দাঁড়িয়ে থাকা তিনজনকে ধাক্কা দেয়। ফলে মৃত্যু হয় ঝিনাইদহের কাজী মোহাম্মদ মঈনুল আলম এবং ঢাকার মোহাম্মদপুরের ফারহানা ইসলাম তানিয়ার।

সরকারি এক আইনজীবী বলেন, 'বাংলাদেশি দুই পর্যটকের মৃত্যু  হওয়ার এই ঘটনাকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করে কলকাতা পুলিশ। খুব অল্প সময়ে চার্জশিট দেওয়া গেছে।

আরসালান রেস্তোরাঁ চেনের মালিলের ছেলে রাঘিবের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০৪ ধারায় অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলাসহ একাধিক ধারায় চার্জশিট দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি, পিডিপিপি আইনের তিন ধারায় এবং মোটর গাড়ি আইনের ১১৯ ও ১৭৭ ধারায় চার্জশিট দেওয়া হয়েছে রাঘিবের বিরুদ্ধে।

গত ১৬ আগস্টের দুর্ঘটনার পর যে মামা তাকে দুবাই পালাতে সাহায্য করেছিলেন, সেই মুহম্মদ হামজার বিরুদ্ধে অসত্য বলা ও অপরাধীকে পালাতে সাহায্য করার জন্য ভারতীয় দণ্ডবিধির ২০১ ও ২১২ ধারায় মামলা করা হয়েছে।

তদন্তে নেমে কলকাতা পুলিশ প্রথমে আরসালান রেস্তোরাঁ চেনের মালিকের ছেলে পারভেজ আরসালানকে গ্রেপ্তার করে। কিন্তু পরে ওই ঘটনার তদন্তভার নেয় কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা দপ্তর। 

এরপর অন্য দিকে মোড় নেয় এই মামলা। গোয়েন্দা রিপোর্টে বলা হয়, দুর্ঘটনাগ্রস্ত জাগুয়ারের স্টিয়ারিং সেদিন আরসালানের হাতে নয়, গাড়িটি চালাচ্ছিলেন তার ভাই রাঘিব পারভেজ। তদন্তে উঠে আসে দুর্ঘটনার পর রাঘিবকে দুবাই পালাতে সাহায্য করেছিলেন তার মামা মুহম্মদ হামজা। পরে দুবাই থেকে ফিরলে রাঘিবকে গ্রেপ্তার করা হয়। সেই সঙ্গে আরসালান পারভেজকে জামিনে মুক্তি দেওয়া হয়।  

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা