kalerkantho

'দিদির আমলে পশ্চিমবঙ্গে হিন্দুরা দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৬:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'দিদির আমলে পশ্চিমবঙ্গে হিন্দুরা দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিক'

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুরেন্দ্র জৈন

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মমতা সরকারের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুরেন্দ্র জৈন। বুধবার আসামের দৈনিক যুগশঙ্খকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে  তিনি বললেন, পশ্চিমবঙ্গে মমতা সরকার হিন্দুদের সাথে দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিকদের মতো ব্যবহার করছে। যে রাজ্যে হিন্দুদের সংখ্যা প্রায় ৭৫% সেখানে রামনবমীর মিছিল এর জন্য অনুমতি নিতে হয় কিন্তু তাতে আবার অনেক বাধা নিষেধ থাকে। কিন্তু মহররম এর মিছিলে জন্য কোন সরকারি অনুমতি লাগে না। সেখানে এ.কে ফরটিসেভেন সহ নানা ধরনের আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে অবাধে মিছিল করা যায়। আবার মিছিল থেকে গুলিও ছোড়া যায়। অথচ রামনবমীর মিছিলে তলোয়ার ব্যবহার করলেও দিদির সমস্যা।

সুরেন্দ্র জৈন ন বলেন, আপনারা সবাই জানেন ঝাড়খন্ডে তারবেজ আনসারী মৃত্যুর পর যেভাবে সংখ্যালঘু সম্প্রদায় একত্রিত হয়ে প্রায় কুড়িটি হিন্দু মন্দির ভেঙে দিয়েছিল বা ৩২ টি জায়গায় হিন্দুদের ওপর আক্রমণ চালিয়েছিল তা এক কথায় বিরল। আমার এই প্রসঙ্গে পারভেজ আনসারীর ঘটনাটা সামনে আনার একটাই কারণ যে, মুসলিমরা সংখ্যালঘু হওয়া সত্বেও সামান্য গুজবে কান দিয়ে হিন্দুদের ওপর এইভাবে আক্রমণ করছে।

তিনি বলেন, কিন্তু এই ব্যাপারে আশ্চর্যজনকভাবে চুপ সেকুলারিজম নিয়ে অতি উৎসাহী ব্যক্তিরা। যেখানে কোন সংখ্যালঘুর ওপর আক্রমন হলে সারা দেশজুড়ে হৈ হৈ পড়ে যায় সেখানে প্রতিদিন বাংলায় হিন্দুদের ওপর আক্রমণ হচ্ছে। সন্দেশখালি বলুন বা বসিরহাট বলুন বা ডায়মন্ডহারবার ই হোক, আজও পশ্চিমবঙ্গে এই ধরনের আক্রমণ ঘটেছে বলে আমার কাছে খবর আছে।

তিনি আরো বলেন, তাই আমার বক্তব্য হলো এভাবে প্রতিদিন  বাঙালী হিন্দুদের নন; যে অত্যাচার প্রতিদিন বাংলায় চলছে এর প্রতিবাদে এখনো কেন হিন্দুরা, বাংলায় 'জাস্টিস ফর হিন্দু'- এ রকম একটা সংগঠন তৈরি করবে না। আমি হিন্দুদের আহবান জানিয়ে বলছি নিজেদের বিরুদ্ধে হওয়া অত্যাচারের প্রতিবাদ করুন সংগঠিতভাবে। তারবেজ আনসারী হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন পোস্টমর্টেমে এটা পরিষ্কারভাবে  লেখা থাকার পরেও শুধুমাত্র গুজবের কারণে যদি হিন্দুদের এতো ক্ষতি হতে পারে তাহলে পশ্চিমবঙ্গে দিনের-পর-দিন অত্যাচারিত হতে হতে এখনো কি হিন্দুদের ঘুরে দাঁড়ানোর সময় হয়নি।

সূত্র : যুগশঙ্খ

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা