kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

কিশোরের মৃত্যুতে কারফিউ ফিরল কাশ্মীরের শ্রীনগরে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০১:১৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কিশোরের মৃত্যুতে কারফিউ ফিরল কাশ্মীরের শ্রীনগরে

মাথায় গুরুতর জখম নিয়ে কাশ্মীরের শ্রীনগরের 'শের-ই কাশ্মীর ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্স' (এসকেআইএমএস)-এ চিকিৎসাধীন ছিল সৌরার আসরার আহমেদ খান (১৭)। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে ভেন্টিলেশনে দেওয়া হয়, তার পরেও বাঁচানো যায়নি আসরারকে। 

বুধবার ভোরে তার মরদেহ পরিবারের কাছে তুলে দেওয়া হলে স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়। কিন্তু হাসপাতাল থেকে কোনো ডেথ সার্টিফিকেট দেওয়া হয়নি। পুরনো কাশ্মীরের বিস্তীর্ণ এলাকায় কারফিউ জারি করার ফলে পুলিশ ভ্যানে মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় কবরস্থানে। পরিবারকে বলে দেওয়া হয়, সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কোনো কথা বলা যাবে না।

কিন্তু কীভাবে জখম হয়েছিল একাদশ শ্রেণির ছাত্র আসরার? স্থানীয়রা বলছেন, গত ৫ আগস্ট ৩৭০ ধারা বাতিল করা হয়, আর তার পরের দিন সৌরায় বিক্ষোভ দেখাতে রাস্তায় নামে সাধারণ মানুষ। শান্ত, নম্র ছেলে আসরারও ছিলেন সেখানে। কেউ পাথর ছোড়েনি, আগুন দেয়নি। শুধুই স্লোগান দিয়ে প্রতিবাদ জানাচ্ছিল। নিরাপত্তা বাহিনী হঠাৎ করেই কাঁদানে গ্যাস ছুড়তে থাকে। কাঁদানে গ্যাসের একটা গোলা খুব কাছ থেকে মাথায় লাগার পর লুটিয়ে পড়ে আসরার। 

তবে স্থানীয়দের এই দাবি মানছে না ভারত সরকার। সেনাবাহিনীর ১৫ নম্বর কোরের জিওসি-র সঙ্গে যৌথ সাংবাদিক বৈঠকে পুলিশের এডিজি (আইনশৃঙ্খলা) মুনির খান বলেন, ৪ আগস্টের পর থেকে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে কোথাও কোনো বেসামরিক নাগরিক মারা যাননি। আমি নিশ্চিত, বিক্ষোভকারীদের ছোড়া ইটেই জখম হয়েছিল আসরার।

চিকিৎসকরা বলছেন, কাঁদানে গ্যাসের গোলার ঘায়ে আসরারের মাথার একটা দিক থেঁতলে গিয়েছিল। তবে প্রশাসনের নির্দেশে তার পরিবারকে ডেথ সার্টিফিকেট দেওয়া হয়নি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা