kalerkantho

সোমবার । ২১ অক্টোবর ২০১৯। ৫ কাতির্ক ১৪২৬। ২১ সফর ১৪৪১                       

অবরুদ্ধ কাশ্মীরে নামাজের পর বিক্ষোভ, সংঘর্ষ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৪ আগস্ট, ২০১৯ ১৫:২৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অবরুদ্ধ কাশ্মীরে নামাজের পর বিক্ষোভ, সংঘর্ষ

সম্প্রতি ভারতশাসিত জম্মু ও কাশ্মীর দুই টুকরো করার ঘোষণার পর থেকেই অবরুদ্ধ হয়ে রয়েছে রাজ্যটি। ঘোষণার পর থেকেই সেনা-ঠাসা অঞ্চলটিতে সেনা সংখ্যা আরো বিপুল হারে বাড়ানো হয়েছে। জনশূন্য রাস্তাঘাটগুলোয় এখন অস্ত্রসজ্জিত উর্দি পরা ব্যক্তিদের নজরদারি। এর মধ্যেই শুক্রবারের নামাজের পরে কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগরের সৌরা এলাকায় একটি বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষোভ চলাকালে হঠাৎ করেই তা হিংসাত্মক হয়ে ওঠে। বিক্ষোভকারীদের পক্ষ থেকে পাথর ছোঁড়া শুরু হলে নিরাপত্তা বাহিনী জবাবে ছররা গুলি আর কাঁদানে গ্যাসের ছোঁড়ে।

বিবিসি জানায়, এই ঘটনায় অন্তত দু’জন আহত হয়েছে। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে আহতের সংখ্যা এখনও পর্যন্ত জানানো হয়নি।

ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের পরে থেকেই স্বাধীনতার দাবিতে এই সৌরা এলাকায় উত্তাল ছিলো। দু’সপ্তাহ আগে শুক্রবারের নামাজের পরেই এখানো বিক্ষোভ হয়। গত শুক্রবারও নামাজের পরে একটা শান্তিপূর্ণ মিছিল হয়েছিল। কোনো গন্ডগোল হয়নি। গতকাল শুক্রবারও এমন মিছিলের আশঙ্কা ছিলো। আর তাই বাস্তবে হলো। নামাজের পর মানুষ জড়ো হওয়া শুরু হয়েছিল। প্রথম নামাজের পরে স্বাধীনতাপন্থী কিছু স্লোগান ওঠে। তারপরে একটা শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ শুরু হয়। সেখানে তখন বেশ কয়েক হাজার মানুষ হাজির ছিলেন।

গত সপ্তাহের মতোই বিক্ষোভ মিছিলটাও নানা অলি গলি ঘুরে শেষ হয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু হঠাৎই একটা জায়গায় গলির ভেতরে নিরাপত্তা বাহিনী ঢুকতে চেষ্টা করে। তখনই অশান্তি শুরু হয়।

পুলিশ আর কেন্দ্রীয় বাহিনীর দলটা যেই ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করল, তখনই পাথর ছোঁড়া শুরু হল একদিকে, আর অন্যদিকে সব বাড়ি থেকে টিন বাজানো হতে লাগল। সবাই বাড়ি থেকে বেরিয়ে ওই গলিটার দিকে দৌড়তে লাগল।

একদিক থেকে পাথর ছোঁড়া হচ্ছে, অন্যদিক থেকে ছররা গুলি, কাঁদানে গ্যাস আর গোলমরিচের গোলা ছোঁড়া হচ্ছিল। সংঘর্ষটা প্রায় ঘণ্টা দুয়েক চলেছিল, বেলা চারটে পর্যন্ত। 

এদিকে কদিন ধরেই নিরাপত্তার কড়াকড়ি কিছুটা শিথিল করা হচ্ছিল, কিন্তু শুক্রবারের নামাজের পরে বিক্ষোভ হয়। তার প্রেক্ষিতেই প্রশাসন আবারো কড়া বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। কিন্তু প্রশাসন এটাও বলছে যে আগামী কাল থেকে আবারো কড়াকড়ি শিথিল হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা