kalerkantho

নদী সংক্রান্ত তথ্য দেবে না ভারত, বন্যার শঙ্কায় বিপাকে পাকিস্তান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ আগস্ট, ২০১৯ ১৯:১৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নদী সংক্রান্ত তথ্য দেবে না ভারত, বন্যার শঙ্কায় বিপাকে পাকিস্তান

জম্মু-কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিল করার ব্যাপারে ফুঁসছে পাকিস্তান। অক্রোশে ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য থেকে শুরু করে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করেছে ইসলামাবাদ। এদিকে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতও সৌজন্য দেখাতে রাজি নয়। 

সে জন্য পাকিস্তানের সঙ্গে  নদী সংক্রান্ত তথ্য আদান-প্রদান করার চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত। বুধবার এ কথা জানিয়েছেন ‘ইন্দাস ওয়াটার’-এর ভারতের কমিশনার পি কে সাক্সেনা।

১৯৮৯ সালে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের এই চুক্তি হয়। তার পর থেকে প্রতি বছর এই চুক্তি পুনর্নবীকরণ করা হয়। কিন্তু এবার আর কোনো রকম তথ্য দিতে রাজি নয় দিল্লি। সে কারণে ওই চুক্তিও আর রিনিউ করবে না ভারত।

চুক্তি অনুযায়ী, নদীর পানি বিপদ সীমা ছাড়ালে সেই সংক্রান্ত তথ্য পাকিস্তানকে জানিয়ে দেয় ভারত। ফলে আসন্ন বন্যা পরিস্থিতি সামাল দিতে আগাম প্রস্তুতি নিতে পারে দেশটি। 

কৃষি আর সেচের ক্ষেত্রে পানির ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তার ওপর বন্যায় কৃষি বা পানি বিদ্যুৎ উন্নয়ন প্রকল্পে যে ক্ষয়ক্ষতি হয়, তা ভারতের থেকে পাওয়া ‘হাইড্রোলজিক্যাল ডেটা’র ভিত্তিতে অনেকটাই সামাল দেওয়া সম্ভব হয় পাকিস্তানের। 

জানা গেছে, ১৯৬০ সালে বিশ্ব ব্যাংকের মধ্যস্থতায় ইন্দাস ওয়াটার ট্রিটি বা সিন্ধু পানি চুক্তি সই করে ভারত ও পাকিস্তান। ওই চুক্তির শর্ত মতে ছয়টি নদীর মধ্যে তিনটি-বিপাশা, ইরাবতী ও শতদ্রুর পানিতে ভারতের অধিকার রয়েছে। বাকি তিনটি নদী-সিন্ধু, চন্দ্রভাগা ও বিতস্তার পানি পাকিস্তান ব্যবহার করে।

সে কারণে ওই চুক্তি পুনর্বহাল না করার ফলে পাকিস্তান যে সমস্যায় পড়বে, তাতে সন্দেহ নেই। তবে ‘হাইড্রোলজিক্যাল ডেটা’ আদান-প্রদানের চুক্তি পুনর্বহাল না করার কথা জানালেও এর সঙ্গে সিন্ধু পানি চুক্তির কোনো সম্পর্কে নেই বলে জানিয়েছেন ভারতের ‘কমিশনার অব ইন্দাস ওয়াটার’ পি কে সাক্সেনা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা