kalerkantho

মঙ্গলবার। ২০ আগস্ট ২০১৯। ৫ ভাদ্র ১৪২৬। ১৮ জিলহজ ১৪৪০

পূত্রবধূর ভবিষ্যৎ ভেবে বিয়ে দিলেন শ্বশুর!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ আগস্ট, ২০১৯ ১৮:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পূত্রবধূর ভবিষ্যৎ ভেবে বিয়ে দিলেন শ্বশুর!

একমাত্র ছেলে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর পর অনেক সাধ করে তার বিয়ে দিয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব মেদিনিপুর জেলার মুকুন্দ মাইতি। বউমা এসেছিল ঘরে। বিয়ের এক মাস পরে বউকে বাবা মায়ের কাছে রেখে মহীশূরে নিজের কর্মস্থলে ফেরত চলে গিয়েছিলেন অমিত মাইতি। সেখানে একটি সোনার দোকানে ম্যানেজারের কাজ করতেন তিনি। সেই থেকেই উমা ছিলেন বাড়জিশুয়া গ্রামের শ্বশুরবাড়িতে শ্বশুর-শাশুড়ির কাছে।

তবে ২৩ বছরের অমিতের সঙ্গে উমার দেখা হয়নি আর। গত বছরের ডিসেম্বর মাসে বাড়ি ফেরার সময় ট্রেনের মধ্যেই অসুস্থ হয়ে পড়েন অমিত। ভুবনেশ্বরে ট্রেন থেকে নামিয়ে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। কিন্তু বাঁচানো যায়নি।

গত ডিসেম্বরে আকস্মিক মৃত্যু হয় মুকুন্দ মাইতির একমাত্র সন্তানের। তারপর থেকে গত কয়েক মাস ধরে মেয়ের মতোই আগলে রেখেছিলেন পুত্রবধূকে। ১৯ বছরের উমার ভবিষ্যতের কথা ভেবে সুপাত্র দেখে সোমবার তার হাতেই উমাকে তুলে দিলেন ডেবরার বাসিন্দা মুকুন্দ মাইতি ও তার স্ত্রী গায়ত্রী। স্থানীয় কালীবাড়িতে এই বিয়ের অনুষ্ঠানে হাজির ছিল গোটা গ্রাম। 

গতকাল সোমবার পাঁশকুড়ার কালিমন্দিরে স্বপনের সঙ্গে বিয়ে হল উমার। স্বপন পেশায় স্কুল শিক্ষক। মন্দিরে মালাবদলের পর বিয়ের অনুষ্ঠানও করেন মুকুন্দ। অতিথিদের জন্য ছিলো মাছ, মাংস, চিংড়ি পোস্ত থেকে দই মিষ্টি সবকিছুই। সমস্ত খরচই বহন করেন উমার প্রাক্তন শ্বশুর। শুধু পুত্রবধূর বিয়েই দিলেন না তিনি, একই সঙ্গে তার এমন ভাবনায় নাড়া দিয়ে গেলেন গোটা গ্রামকে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা