kalerkantho

মঙ্গলবার। ২০ আগস্ট ২০১৯। ৫ ভাদ্র ১৪২৬। ১৮ জিলহজ ১৪৪০

কাশ্মীর ইস্যু: অরুন্ধতী, মমতা ও কংগ্রেস পাকিস্তানের প্রতি সহানুভূতিশীল?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ আগস্ট, ২০১৯ ১৭:১৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কাশ্মীর ইস্যু: অরুন্ধতী, মমতা ও কংগ্রেস পাকিস্তানের প্রতি সহানুভূতিশীল?

অরুন্ধতী রায় (বাঁয়ে), মুশাহিদ হুসেন (মাঝে) এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (ডানে)।

ভারতের সংবিধান থেকে কাশ্মীর রাজ্যের স্বায়ত্বশাসন দানকারী ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করা হয়েছে। সেই সঙ্গে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখকে আলাদা দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিভক্ত করার। এই নিয়ে চলছে বিতর্ক। এমন পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের একজন প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন, ভারতের ভেতরে অনেক ব্যক্তি রয়েছেন যারা  কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের প্রতি সহানুভূতিশীল।

পাকিস্তানি রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক ও ভূ-কৌশলবিদ মুশাহিদ হুসেন পাকিস্তানি নিউজ চ্যানেল জিও টিভির একটি অনুষ্ঠানে হাজির হয়েছিলেন। সেখানে তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, লেখক অরুন্ধতী রায়, এবং কংগ্রেসের মতো রাজনৈতিক দলগুলো পাকিস্তানের প্রতি সহানুভূতিশীল।

জিও টিভির অনুষ্ঠান পারিচালক মুশাহিদ হুসেনকে জিজ্ঞাসা করেন, কীভাবে কাশ্মীরের দুর্দশার অবসান হবে? এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ভারতে একটি বড় দেশ। এখানে সবচেয়ে বড় জাতি বসবাস করে। ভারতের সবাই দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে সমর্থন করেন না। 

মুশাহিদ হুসেন বলেন, আমাদের এই (কাশ্মীর) ইস্যুটিকে নিয়ে গভীরভাবে চিন্তা করতে হবে। সেই সঙ্গে টেকসই সমাধানে পৌঁছাতে হবে। এটি একটি দীর্ঘ যুদ্ধ। ভারত একটি বিশাল দেশ। ভারত থেকেও বহু মানুষ এ ইস্যুতে সহানুভূতিশীল। অরুন্ধতী রায়, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, কংগ্রেস, কমিউনিস্ট পার্টি, দলিত দলও পাকিস্তানের প্রতি সহানুভূতিশীল। পুরো ভারত মোদির সঙ্গে নেই।

৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের পর কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে ১৪ আগস্টকে ‘কাশ্মীর সংহতি দিবস’ এবং ১৫ আগস্টকে ‘কালো দিবস’ হিসেবে পালন করবে বলে পাকিস্তান ঘোষণা করেছে। এদিকে ভারত বলছে ৩৭০ বাতিলের বিষয়টি একান্তই ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। ধারাটি বাতিলের পর কোনো ধরনের পদক্ষেপ নিতে এবং উদ্বেগজনক পরিবেশ তৈরি না করতে পাকিস্তানকে পরামর্শ দিয়েছিল ভারত।

সূত্র: ইন্ডিয়া টুডে।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা