kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২২ আগস্ট ২০১৯। ৭ ভাদ্র ১৪২৬। ২০ জিলহজ ১৪৪০

ডুবে গেছে জঙ্গল, বাড়িতে ঢুকে বিছানায় শুয়ে থাকল বাঘ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ জুলাই, ২০১৯ ১৮:৩৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ডুবে গেছে জঙ্গল, বাড়িতে ঢুকে বিছানায় শুয়ে থাকল বাঘ

পানিতে প্রায় ডুবে গেছে ভারতের আসাম। কাজিরাঙ্গা অভয়ারণ্যের পরিস্থিতি অত্যন্ত সঙ্গীন হয়ে পড়েছে। সে কারণে বিপন্ন হয়ে পড়েছে বন্যপ্রাণীরা। আবহাওয়ার সঙ্গে অস্তিত্ব রক্ষার লড়াইয়ে ব্যস্ত তারা। এই পরিস্থিতিতে অভয়ারণ্যে থাকা একটি রয়েল বেঙ্গল টাইগার প্রাণ বাঁচাতে যা করল, তা দেখে আতঙ্কিত স্থানীয়রা।

বৃহস্পতিবার আসামের কাজিরাঙ্গা অভয়ারণ্য লাগোয়া জাতীয় সড়কের পাশে একটি বাড়িতে ঢুকে পড়ে বাঘটি। সেটা দেখে ভয় পেয়ে যান স্থানীয়রা। 

সে সময় যদিও বাড়ির মালিক উপস্থিত ছিলেন না। তবে এলাকায় বাড়ির মালিক পৌঁছানোর আগে লোকমুখে গ্রামে বাঘ ঢোকার কথা রটে যায়। খবর দেয়া হয় বন দপ্তরে। 

বনকর্মীরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। বাড়ির ভিতরে বাঘ ঠিক কী অবস্থায় রয়েছে, তা দেখতে ড্রোনের সাহায্য নেন বনকর্মীরা। তাতে দেখা যায়, ওই বাড়ির বিছানার উপর দিব্যি আরাম করছে বাঘটি। হাবভাব দেখে মনে হচ্ছে, অথৈ পানি থেকে উঠে এসে বাড়িতে ঢুকে যেন বেশ নিশ্চিন্ত হয়েছে সে।

এদিকে, ওই বাড়ি থেকে বের হতে রাজি নয় নাছোড়বান্দা বাঘটি। তাকে উদ্ধার করতে বেশ বেগ পেতে হয় বনকর্মীদের। বাধ্য হয়ে ঘুমপাড়ানি গুলি ছোঁড়েন বনকর্মীরা। তারপর বেহুঁশ অবস্থায় উদ্ধার করা হয় বাঘটিকে।

ওয়াইল্ড লাইফ ট্রাস্ট ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে ছবিটি টুইট করা হয়। তারপর ছবিটি ভাইরাল হতে বেশি সময় লাগেনি। আর তারপর থেকেই নেটিজেনদের আলোচনায় বাঘ বাবাজি। 

অনেকেই বলছেন, বাঘটিকে দেখে মনে হচ্ছে সে বেশ ক্লান্ত। আবার কেউ বলছেন, এতদিন খাবার না পেয়ে অসহায় হয়ে গেছে বাঘটি। সে কারণে বাধ্য হয়ে বাড়িতে খাবারের খোঁজে এসেছে সে। 

কেউ কেউ আবার বলছেন, কাজিরাঙ্গা অভয়ারণ্য কর্তৃপক্ষের বিপন্ন বন্যপ্রাণীকে অন্যত্র স্থানান্তরিত করা উচিত। না হলে হয়ত পশু মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমশই বাড়বে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা