kalerkantho

শনিবার । ২৪ আগস্ট ২০১৯। ৯ ভাদ্র ১৪২৬। ২২ জিলহজ ১৪৪০

এবার জয় শ্রীরাম না বলায় মাদ্রাসাছাত্রকে মারধর

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ জুলাই, ২০১৯ ১৬:৩৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এবার জয় শ্রীরাম না বলায় মাদ্রাসাছাত্রকে মারধর

এবার মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রকে ‘জয় শ্রীরাম’ না বলায় বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল রবিবার  ভারতের মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘি থানার জনসি মোড়ে ৩৪ নং জাতীয় সড়কে ঘটনাটি ঘটেছে। 

ভুক্তভোগী রাজিবুল আলম (১১) জঙ্গিপুর মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনার পর ওই এলাকার কয়েক হাজার মানুষ অভিযুক্তদের আটকের দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ করেন।
 
জানা গেছে, ফুলশহরি গ্রামের রাজিবুল শেখদিঘি মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র। রবিবার সকালে মাদ্রাসায় যাওয়ার জন্য মহাসড়কের জনসির মোড়ে বাস ধরতে দাঁড়িয়েছিল সে। হঠাৎ করে সেখানে দু'টি মোটর সাইকেলে এসে হাজির হন চার যুবক। 

রাজিবুলের সামনে এসে তারা বলেন, জয় শ্রীরাম বল। তাদের কথা শুনে রাজিবুল হকচকিয়ে যায়। সে বলে, সেটা আবার কী! শুধু শুধু জয় শ্রীরাম কেন বলব?

এরপর শুরু হয় মারধর। রাজিবুলের অভিযোগ, চড়-থাপ্পড়, কিল-ঘুষি মারে। আমার বুকেও মেরেছে। আমি কাঁদতে কাঁদতে চিৎকার করে উঠি। তখন তারা পালিয়ে যায়।

রাজিবুলের বুকে, মাথার পেছনে গুরুতর আঘাত লেগেছে। জঙ্গিপুর মহকুমা হাসপাতালে তাকে অক্সিজেন দেয়া হয়। খবরটি গ্রামে গেলে এলাকার চার-পাঁচটি গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ এসে ৩৪ নং মহাসড়ক অবরোধ করেন। দীর্ঘক্ষণ চলা অবরোধে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। 

রাজিবুলের বাবা আখতার আলমের অভিযোগ, রাজিবুল বাচ্চা ছেলে। জয় শ্রীরামের কী বোঝে? কেন তাকে এজন্য মারা হলো? আমি চাই, পুলিশ দোষীদের অবিলম্বে ধরুক।
 
এলাকার মানুষদের দাবি, ওই এলাকায় সব সম্প্রদায়ের মানুষ বসবাস করেন। কোনো অশান্তি, ঝামেলা নেই। বিজেপি এসব করে ঝামেলা করার চেষ্টা করছে।

পুলিশ বলছে, ভোলেবাবা নামে কোনো সংগঠন তৈরি হয়েছে। বীরভূম, জঙ্গিপুর এলাকায় এই নামে কিছু যুবক বিভিন্ন এলাকায় ঘুরছে। রবিবার রাজিবুলকে যারা মেরেছে, তারা কোন এলাকার, তা পুলিশ খতিয়ে দেখছে। বিজেপির পুরোপুরি মদত রয়েছে ভোলেবাবা নামে সংগঠনটির পেছনে। 

যদিও জঙ্গিপুরের বিজেপি নেতারা বলছেন, বিজেপি এই ঘটনার সঙ্গে আদৌও জড়িত নয়। ভোলেবাবা নামে কোনো সংগঠনও তাদের নেই।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা