kalerkantho

মঙ্গলবার। ১৬ জুলাই ২০১৯। ১ শ্রাবণ ১৪২৬। ১২ জিলকদ ১৪৪০

কলকাতায় রোগীদের ভোগান্তি চরমে, সন্ধ্যায় মমতার মিটিং

কলকাতা প্রতিনিধি    

১৫ জুন, ২০১৯ ১৩:৫৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কলকাতায় রোগীদের ভোগান্তি চরমে, সন্ধ্যায় মমতার মিটিং

কলকাতার নিল রতন হাসপাতাল ঝামেলার জেরে শনিবারও রাজ্যের হাসপাতালগুলোর অচলাবস্থা অব্যাহত। কলকাতা এবং রাজ্যের বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে দূর‌দূরান্ত থেকে আসা অসহায় রোগীদের। মুমূর্ষু রোগীদের নিয়ে এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ছুটে বেড়াচ্ছেন পরিজনেরা। বহির্বিভাগ বন্ধ। কোথাও কোথাও জরুরি বিভাগ চালু হলেও পরিষেবা না থাকারই সমান। কারণ দীর্ঘকালীন চিকিৎসা বা ভর্তি হওয়ার প্রয়োজন পড়লে তা জুটছে না। রক্ত পরীক্ষা থেকে অন্যান্য ডায়াগনস্টিক পরিষেবা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ। দিন কাটাতে হচ্ছে গাছতলাতেই। হাসপাতালে এসে চিকিৎসকের দেখা মিললেও তাঁরা আন্দোলনে ব্যস্ত। নির্দিষ্ট বিভাগে চিকিৎসকের দেখা না মেলায় রোগী ও তাঁদের আত্মীয়দের ক্ষোভ–বিক্ষোভ ক্রমশই বাড়ছে।

এসএসকেএমেও বহির্বিভাগ বন্ধ, ইমার্জেন্সি চালু থাকলেও কার্যত বন্ধের সমানই বলে অভিযোগ রোগীদের। হাওড়ার আন্দুল থেকে এসেছিলেন বছর বত্রিশের জয়শ্রী বিশ্বাস। তাঁর পেটে টিউমার। এ দিন অস্ত্রোপচারের ডেট দেওয়া ছিল। বললেন, ‌ডাক্তার নেই তাই অপারেশন হবে না বলে ইমার্জেন্সি থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়।‌ জঙ্গিপুর থেকে ক্যান্সার আক্রান্ত রোগী নুরুল ইসলাম কেমো নিতে এসেছিলেন কিন্তু এ দিন নেওয়া হলো না বলে জানান। এসএসকেএমের বহির্বিভাগে দাঁড়িয়ে হতাশ মুখে প্রিয়াঙ্কা সরকার বলেন, ‌ইমার্জেন্সিতে গিয়েছিলাম। কোনো লাভ হয়নি। কারণ ইকোকার্ডিওগ্রাফি করতে হবে তার জন্য ডাক্তার দেখাতে হবে। কিন্তু ওপিডি বন্ধ।‌ 

কলকাতার ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজে থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত পাঁচ বছরের শিশু আমার রক্ত চাই বলে হাহাকার করলেও তা জোটেনি। শিশুটির মা ‌বলেন, ‌ছেলের শরীরে রক্ত পরিবর্তন করতে হয় প্রতিমাসে। ব্লাড ট্রান্সফিউশনের জন্য এসে শুনছি হবে না। কী করব কোথায় যাব কিছুই বুঝতে পারছি না। আরজিকর মেডিক্যাল কলেজের গেটে প্রসবযন্ত্রণা নিয়ে কাতরাচ্ছিলেন হাবড়ার রহিমা বিবি। অবিলম্বে ব্যবস্থা না করলে মৃত্যু হতে পারে বলে আশঙ্কা করছিল পরিবারের সদস্যরা।

কলকাতা মেডিক্যাল কলেজেও রোগীদের এসে ভুগতে হয়।  

এই ভোগান্তি আদৌ মিটবে কি-না, বা মিটলেও কবে মিটবে তা জানার সম্ভাবনা আছে আজ শনিবার বিকেলে। কারণ মমতা ব্যানার্জি আজ কর্মবিরতিরত ডাক্তারদের সাথে মিটিং করার ঘোষণা দিয়েছেন। যদিও ডাক্তাররা এই মিটিং এ যাবেন কি-না, তা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েছে, তবুও অনেকেই আশা করছেন এই মিটিং হলে কিছু সমাধানসূত্র বেরোতে পারে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা