kalerkantho

সোমবার। ১৭ জুন ২০১৯। ৩ আষাঢ় ১৪২৬। ১৩ শাওয়াল ১৪৪০

যুক্তরাষ্ট্র-ইরান উত্তেজনা চরমে, হুমকি-পাল্টা হুমকি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ মে, ২০১৯ ১৮:১১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



যুক্তরাষ্ট্র-ইরান উত্তেজনা চরমে, হুমকি-পাল্টা হুমকি

পরমাণু চুক্তি ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র-ইরান উত্তেজনা চরমে পৌঁছেছে। হুমকি পাল্টা হুমকিতে উত্তপ্ত যুক্তরাষ্ট্র এবং ইরানের কূটনীতি। যুদ্ধে না জড়ানোর কথা বললেও থেমে নেই দুই দেশের শীর্ষ নেতাদের বাকযুদ্ধ। কড়া বাক্যে একে অপরকে ঘায়েল করতে মরিয়া ওয়াশিংটন এবং তেহরান।

যুদ্ধ বাঁধাতে চাইলে ইরানকে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়া হবে বলে হুমকি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ইরান পাল্টা হুমকি দিয়ে বলেছে, যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধ শুরু করলে কিছুই নিয়ন্ত্রণের মধ্যে থাকবে না।

ইরানের সঙ্গে যুদ্ধ চায় না যুক্তরাষ্ট্র, এমন মন্তব্যের দুই দিন পর আবারো তেহরানকে কড়া হুমকি দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এক টুইটে তিনি হুঁশিয়ার করে বলেন, ইরান যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে লড়তে চাইলে তাদের নিশ্চিহ্ন করে দেওয়া হবে। যুক্তরাষ্ট্রকে লক্ষ্য করে আর কোনো তির্যক বাক্য ব্যবহার না করতেও তেহরানকে সতর্ক করেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের এমন হুমকির জবাব দিতে বেশি সময় নেয়নি ইরান। রবিবারই দেশটির ইসলামিক রেভ্যুলেশনারী গার্ড বাহিনীর প্রধান মেজর জেনারেল হোসাইন সালামি সতর্ক করে বলেন, যুক্তরাষ্ট্র এবং তার ঘনিষ্ঠ মিত্র ইসরাইল পতনের দিকে এগুচ্ছে। প্রতিরোধ শক্তির কৌশলে যুক্তরাষ্ট্র আতঙ্কিত বলেও দাবি করেন তিনি। যুদ্ধ শুরু হয়ে গেলে যুক্তরাষ্ট্রের সব অহংকার চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়ে যাবে বলে মন্তব্য করেন ইরানে সবচেয়ে শক্তিশালী বাহিনীটির প্রধান।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ইরান কখনোই মাথানত করবে না বলে জানিয়েছেন ইরানি প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। রবিবার রাতে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, কোন দেশ ইরানকে আলোচনায় বসতে বাধ্য করতে পারে না।

ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেন, ইরান সব সময়ই আলোচনা এবং যুক্তির পক্ষে। কিন্তু তাই বলে আমাদের বাধ্য করা যাবে না। ইরান কারো কাছে মাথানত করতে জানে না। আর আমাদের এ মনোবলের কাছে যুক্তরাষ্ট্র এবং তার মিত্রদের পরাজয় নিশ্চিত।

ওদিকে ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে যুদ্ধের আশঙ্কায় মধ্যপ্রাচ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। আর এই উত্তেজনা নিরসনে জরুরি বৈঠক ডেকেছে সৌদি আরব। আগামী ৩০ মে মক্কায় ওই বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পর চলতি মাসে ইরানও পরমাণু চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেওয়ার পর, মধ্যপ্রাচ্যে ফের বেজে উঠছে যুদ্ধের দামামা। অন্যদিকে দুই দেশের নেতাদের মধ্যে শুরু হওয়া বাকযুদ্ধ দিন গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে রূপ নিয়েছে তীব্র স্নায়ুযুদ্ধে। তবে আশার কথা, প্রবল ক্ষয়ক্ষতির কথা বিবেচনা করে এখনই কোনো দেশ যুদ্ধে জড়াতে চাইছে না বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা