kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৭ জুন ২০১৯। ১৩ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

ইরান-যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধের আশঙ্কা, মধ্যপ্রাচ্যে আতঙ্ক; জরুরি বৈঠক মক্কায়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ মে, ২০১৯ ১১:৫৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইরান-যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধের আশঙ্কা, মধ্যপ্রাচ্যে আতঙ্ক; জরুরি বৈঠক মক্কায়

আরব উপসাগরে যুক্তরাষ্ট্রের বিমানবাহী যুদ্ধজাহাজ পাঠিয়েছে

ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে যুদ্ধের আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে। এ প্রেক্ষিতে মধ্যপ্রাচ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। আর এই উত্তেজনা নিরসনে জরুরি বৈঠক ডেকেছে সৌদি আরব। আগামী ৩০ মে মক্কায় ওই বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে।  

সৌদি বার্তা সংস্থা এসপিএ-এর বরাতে এ তথ্য জানা গেছে। 

বার্তা সংস্থা এসপিএ  এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, সৌদি বাদশাহ সালমান ওই বৈঠকে অংশ নেয়ার জন্য আরব লীগ এবং উপসাগরীয় দেশগুলোর জোট (জিসিসি) সদস্যদের আমন্ত্রণপত্র পাঠিয়েছেন।  

সৌদি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, সৌদি আরবের দুটি তেল ক্ষেত্রে হুতি সন্ত্রাসীদের হামলা এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে সমুদ্র সীমায় সৌদি বাণিজ্যিক জাহাজে হামলার প্রেক্ষিতে জরুরি বৈঠক ডাকা হয়েছে।

এসপিএ জানিয়েছে, শনিবার রাতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও মধ্যপ্রাচ্যের আঞ্চলিক নিরাপত্তা নিয়ে সৌদি যুবরাজ এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী মোহামেদ বিন সালমানের সঙ্গে কথা বলেছেন।

সৌদি পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আদিল আল জুবেইর রিয়াদে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, সৌদি আরব এ অঞ্চলে কোনো যুদ্ধ চায় না। যুদ্ধ যাতে না বাঁধে তার সব চেষ্টাই সৌদি আরব করবে। তবে অন্যপক্ষ যুদ্ধ শুরু করলে, সৌদি আরব তার নিরাপত্তা এবং স্বার্থ রক্ষায় কড়া জবাব দেবে।

তাঁর দাবি, ইরান সমর্থিত মিলিশিয়ারা উদ্দেশ্যমূলকভাবে সৌদি স্বার্থে আঘাতের চেষ্টা করছে।

তিনি বলেন, সৌদি আরব আশা করে বিপদ এড়াতে ইরানের সরকার তাদের শুভবুদ্ধি প্রয়োগ করবে এবং তাদের অনুচরদের দায়িত্বহীন হঠকারী কর্মকাণ্ড থেকে বিরত রাখবে। না হলে এই অঞ্চলের যে পরিণতি হবে তার জন্য পরে অনুশোচনা করতে হবে। 

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহের শেষে উপসাগরে দুটি সৌদি তেলের ট্যাংকারে হামলা চালানো হয়। এ ছাড়া, সৌদি দুটি তেলের স্থাপনায় ড্রোন হামলার পর অপরিশোধিত তেলের গুরুত্বপূর্ণ একটি পাইপলাইন বন্ধ করে দিতে হয়েছে। এসব হামলা এই অঞ্চলের শান্তি ও নিরাপত্তা এবং বিশ্বে তেল সরবরাহের ওপর মারাত্মক হুমকি তৈরি করেছে।

এদিকে, ইরানও  হুমকি দিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র তাদের ওপর হামলা চালালে তারা তেল পরিবহনের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হরমুজ প্রণালী বন্ধ করে দেবে।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ বলেছেন, ইরান কোনো যুদ্ধ চায় না। কিন্তু ট্রাম্পের আশপাশের কিছু মানুষ তাকে যুদ্ধের উসকানি দিচ্ছে।

তিনি বলেন, ইরানের সঙ্গে যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র জয়ী হবে না এটা মার্কিনিরা ভালো করেই জানে।

সাবেক মার্কিন জেনারেল ডেভিড পেট্রেয়াস বলেছেন, ইরান দখল করার ক্ষেত্রে যে বিশাল চ্যালেঞ্জ রয়েছে মার্কিন সামরিক দপ্তর পেন্টাগন সে কথা যুক্তরাষ্ট্রের নেতাদের নিশ্চয়ই জানিয়ে দেবে।

সূত্র : বিবিসি, পার্স টুডে 


খবরটি ইউনিকোড থেকে বাংলা বিজয় ফন্টে কনভার্ট করা যাবে কালের কণ্ঠ Bangla Converter দিয়ে

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা