kalerkantho

রবিবার। ১৬ জুন ২০১৯। ২ আষাঢ় ১৪২৬। ১২ শাওয়াল ১৪৪০

শেষ দফার ভোটে পশ্চিমবঙ্গে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার আয়োজন

অনিতা চৌধুরী, কলকাতা প্রতিনিধি    

১৮ মে, ২০১৯ ২০:৪০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শেষ দফার ভোটে পশ্চিমবঙ্গে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার আয়োজন

প্রতীকী ছবি

রবিবার শেষ দফার ভোট ভারতে। সপ্তম দফায় সারা দেশের ৫০ টি কেন্দ্র ছাড়া পশ্চিমবঙ্গে ভোট হবে ৯ কেন্দ্রে। বসিরহাট, বারাসাত, দমদম, ডায়মন্ড হারবার, যাদবপুর, মথুরাপুর, জয়নগর ও কলকাতার দুই কেন্দ্রে ভোট হবে রবিবার। রাজনৈতিক নেতারা বলছেন, শেষ দফায় বেশ কয়েকটি কেন্দ্র স্পর্শকাতর, যেখানে প্রায় প্রতি ভোটেই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। 

তাছাড়া, যেভাবে বিজেপি এবং তৃণমূলের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ চলছে এবং উত্তেজনার পারদ চড়ছে, তা নিয়ে রয়েছে নানা মহলে অনেক উদ্বেগ। 

সে কারণে শেষ দফার ভোটে শ্চিমবঙ্গে যে ১৮ হাজার পাঁচশ সাতটি বুথ রয়েছে। সবগুলোতেই নির্বাচন কমিশন মোতায়েন রাখবে কেন্দ্রিয় আধা সামরিক  বাহিনী। 

এছাড়াও থাকবে কুইক রেসপন্স টিম। কুইক রেসপন্স টিমের জন্য আবার বিশেষ ব্যবস্থা নিচ্ছে নির্বাচন কমিশন। কমিশন সূত্রে খবর, সঠিক সময়ে নির্দিষ্ট জায়গায় কিউআরটি পাঠাতে নতুন অ্যাপ বানানো হয়েছে। 

জিপিএস-এর মাধ্যমে কন্ট্রোল রুম থেকে এই এই অ্যাপের মাধ্যমে কুইক রেসপন্স টিমের ওপর নজরদারি চালাবেন পশ্চিমবঙ্গের বিশেষ পুলিশ পর্যবেক্ষক বিবেক দুবে। তিনিই রিপোর্ট করবেন উপ মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈনকে।

ষষ্ঠ দফায় একাধিক জায়গায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সে সময় প্রশ্ন উঠেছিল কুইক রেসপন্স টিমের ভূমিকা নিয়ে। অভিযোগ উঠেছিল, যখন যে জায়গায় পৌঁছানো উচিত, তখন সেখানে পৌঁছাচ্ছে না তারা। তারপরই দ্রুত অ্যাপ বানানোর সিদ্ধান্ত নেয় কমিশন।

অনেকের মতেই, গত দফায় কেশপুর, মেদিনীপুর এবং বিষ্ণুপুরে যা ঘটেছে, তা এড়ানো যেত কিউআরটি সক্রিয় থাকলে। 

উত্তর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনার বেশ কিছু জায়গায় সহিংসতার ইতিহাস থাকার কারণে নির্বাচন কমিশন শেষ দফার ভোটে নিরাপত্তা ব্যবস্থা সুনিশ্চিত করতে  চাইছে। তবে এই সব ব্যবস্থার ফলে ভোট কতটা অবাধ এবং শান্তিপূর্ণ হয়, তা বোঝা যাবে রবিবার। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা