kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙল বিজেপি; আমার থেকে ভয়ঙ্কর কেউ হবে না, পাল্টা হুুঁশিয়ারি মমতার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ মে, ২০১৯ ১২:২৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙল বিজেপি; আমার থেকে ভয়ঙ্কর কেউ হবে না, পাল্টা হুুঁশিয়ারি মমতার

বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের রোড শো থেকেই তাণ্ডব চালানো হলো কলকাতার বিখ্যাত বিদ্যাসাগর কলেজে। এ সময় ভাঙা হয় ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মূর্তিও। এ ঘটনার পর তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপিকে ‘আমার থেকে ভয়ঙ্কর কেউ হবে না’ বলেও পাল্টা হুুঁশিয়ারি দিয়েছেন মমতা।

বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার নিন্দায় সরব হয়েছে বিভিন্ন মহল। পুরো ঘটনার তদন্ত হবে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পুলিশ কমিশনার রাজেশ কুমার রাতে জানান, তদন্ত শুরু হয়ে গিয়েছে।

রাতেই পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ঘটনাস্থলে যান। যান শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং পুলিশ কমিশনার। পুলিশ রাতে জানায়, ১৬ জন হাঙ্গামাকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে এ ঘটনার জন্য বিজেপিকে দায়ী করে তীব্র সমালোচনা করেছেন মমতা। তিনি বলেন, ‘ওরা বাংলার হেরিটেজ, বাংলার মনীষীর গায়ে হাত দিয়েছে। আমার থেকে ভয়ঙ্কর কেউ হবে না। তোমাদের ঔদ্ধত্য খর্ব করবই।’

বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের নেতৃত্বে মঙ্গলবার শহিদ মিনার থেকে উত্তর কলকাতাগামী মিছিল কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে পৌঁছলে তৃণমূল ও বিজেপির ছাত্রদলের মধ্যে মুখোমুখি সংঘাত বাধে। তার পরই তা বিদ্যাসাগর কলেজ পর্যন্ত ছড়ায় এবং মিছিলকারীরা কলেজে ঢুকে এলোপাথাড়ি ভাঙচুর চালায় বলে অভিযোগ। চুরমার করে দেওয়া হয় বিদ্যাসাগরের মূর্তিও।
 
মমতা তখন দক্ষিণ কলকাতায় নির্বাচনী সভা করছিলেন। বেহালার মঞ্চ থেকেই এ সম্পর্কে মুখ খোলেন তিনি। বলেন, ‘বিদ্যাসাগর কলেজে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙেছে। এত বড় লজ্জা কলকাতায় কখনও হয়নি। বিজেপি জেনে রাখ, ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে জবাব নেব।’

বিজেপি অবশ্য অভিযোগ করেছে, অমিত শাহের রোড শোয়ে ইট ছুড়ে আক্রমণ চালিয়ে প্রথমে গোলমাল বাধিয়েছে তৃণমূলই। এমনকি রোড শো শুরুর আগেই পোস্টার-ফেস্টুন খুলে দিয়ে প্ররোচনা সৃষ্টির চেষ্টা চালিয়েছিল তৃণমূল। এরপর মূর্তি ভাঙার মতো ঘটনা ঘটেছে।

অমিত শাহ নিজে অবশ্য মূর্তি ভাঙা নিয়ে কিছু বলেননি। বরং তাঁর রোড শো-এর দু’জায়গায় হামলা হয়েছে বলে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘আমি তো ভাবতেই পারছি না, বাংলায় গণতন্ত্র কী ভাবে চলছে। আমাদের রোড শো-এর দু’জায়গায় হামলা হয়েছে। বিবেকানন্দের বাড়িতে যেতে পারিনি।’

এ ঘটনার প্রতিবাদে বুধবার কলেজ স্কোয়ারে বিদ্যাসাগর মূর্তির পাদদেশ থেকে হেদুয়া পর্যন্ত প্রতিবাদ মিছিল করবে সিপিএমও। থাকবেন সীতারাম ইয়েচুরি, প্রকাশ কারাট ও বিমান বসু।

মন্তব্য