kalerkantho

মঙ্গলবার । ২২ অক্টোবর ২০১৯। ৬ কাতির্ক ১৪২৬। ২২ সফর ১৪৪১              

হাওড়ার রাস্তায় ভাবির গায়ে অ্যাসিড নিক্ষেপ করল দেবর

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৭:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হাওড়ার রাস্তায় ভাবির গায়ে অ্যাসিড নিক্ষেপ করল দেবর

অ্যাসিড নিক্ষেপ করে ভাবিকে গুরুতর আহত করার অভিযোগ উঠেছে দেবরের বিরুদ্ধে। গতকাল রবিবার সরস্বতী পূজোর দুপুরে ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের হাওড়ার টিকিয়াপাড়া এলাকার নুর মহম্মদ মুন্সি লেনে। 

পুলিশ বলছে,  গতকাল দুপুর আড়াইটা নাগাদ রাজাবাজারে বিয়েবাড়ি যাবেন বলে মেয়ে শবনম পারভিনকে নিয়ে বেলিলিয়াস রোডের মুরগি গলির সামনে টোটোর অপেক্ষায় দাঁড়িয়েছিলেন জামিরা বেগম নামে ওই নারী। 

অভিযোগে বলা হয়েছে, হঠাৎ তার দিকে ছুটে এসে একটি বোতল থেকে অ্যাসিড ছুঁড়ে মারে ওই নারীর দেবর রাজু আনসারি। যন্ত্রণায় জামিরা চিৎকার শুরু করলে স্থানীয় বাসিন্দারা দৌড়ে এসে রাজুকে ধরে ফেলেন। শুরু হয় গণধোলাই। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে। আটক রাজুকে আজ, সোমবার আদালতে তোলার কথা।

গুরুতর জখম অবস্থায় জামিরাকে হাওড়া জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ওই নারীর ডান গাল থেকে ঘাড়ের অনেকটা অংশ সম্পূর্ণ ঝলসে গেছে। 

সোমবার বিকেলে হাসপাতালে শুয়ে জামিরা বলেন, স্ত্রী মারা যাওয়ার পরে রাজু ছেলেমেয়েদের নিয়ে থাকত। মাঝখানে বাইরে বেড়াতে গিয়েছিল। ফিরে এসে প্রচণ্ড মদ্যপান শুরু করে। বাধা দিলে গালিগালাজ করত। ছেলেমেয়েদেরও মারধর করত।

ওই গৃহবধূর জামাই সমীরুদ্দিন বলেন, সম্প্রতি আগরায় গিয়ে মারপিট করে ডান হাত ভেঙেছিল। আমরা গিয়ে ওকে নিয়ে আসি। এখানে এসেও এমন কাণ্ড করল।

স্থানীয়রা বলছেন, একটি পরিবহণ সংস্থায় কাজ করত রাজু। কিন্তু হাত ভাঙার পরে সেই কাজ চলে যায় তার। তার পর থেকেই রাজু মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। নেশাও করতে শুরু করে। 

পুলিশের ধারণা, নেশাগ্রস্ত অবস্থায় সে এমন কাণ্ড ঘটিয়েছে। রবিবার তার ভাই আমিরুল আনসারির বাড়িতে গিয়ে জামিরাকে গালগালাজ করতে শুরু করে রাজু। বাড়ির লোকজন তাকে বের করে দেন। এর পরেই জামিরা যখন মেয়ের সঙ্গে রাস্তায় দাঁড়িয়েছিলেন, সে সময় রাজু এসে তাকে অ্যাসিড ছুড়ে মারে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা