kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭। ১১ আগস্ট ২০২০ । ২০ জিলহজ ১৪৪১

এই বিজ্ঞানের যুগেও মানুষ 'আত্মা'র কথা শোনে : তসলিমা

অনলাইন ডেস্ক   

২৫ জুলাই, ২০২০ ১৫:২৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এই বিজ্ঞানের যুগেও মানুষ 'আত্মা'র কথা শোনে : তসলিমা

কোনও এক স্টিভ হাফ দাবি করছেন তিনি নাকি সুশান্ত সিং রাজপুতের 'আত্মা'র সঙ্গে কথা বলেছেন। ভিডিও পোস্ট করেছেন দুখানা। মানুষ তো হুমড়ি খেয়ে পড়ছে, বিশ্বাসও করছে আজগুবি কথোপকথন। কবে যে বিজ্ঞানমনস্ক হবে মানুষ, কবে যে ভুত প্রেত, আত্মা ফাত্মা ইত্যাদির যে অস্তিত্ব নেই বুঝবে। হয়তো এমনই হওয়ার। কিছু লোক বুঝবে, কিছু লোক বুঝবে না, হয়তো কেউ পরে বুঝবে, কেউ আবার কোনওদিনই বুঝবে না।

মানুষ সব এক নয়। কমিউনিজম সব মানুষকে এক করতে চেয়েছিল, যাদের আছে তারা দেবে, যাদের নেই, তারা খাবে। এতে কিছু লোক রাজি হলেও সব লোক রাজি হয়নি। সব লোক সব কিছুতে এক মত হয় না। এই ভয়ংকর করোনার দুর্দিনে যখন প্রাণে বাঁচার জন্য মাস্ক পরা সবার জন্য অত্যন্ত জরুরি, তখন কিছু লোক রাস্তায় নেমেছে মাস্ক পরবে না ঘোষণা দিয়ে। মানুষ চাঁদে গেলেও কিছু মানুষ থাকে বিশ্বাস না করার যে, মানুষ চাঁদে গিয়েছে। আকাশে কোনও ঈশ্বর বসে আছে , এর প্রমাণ আজও মেলেনি। তারপরও ঈশ্বরে বিশ্বাসী মানুষের অভাব নেই।

কোনও পুনর্জন্ম নেই, কোনও পরকাল নেই । মানুষকে কেউ সৃষ্টি করেনি -- বহু আগেই বিবর্তন তত্ত্ব তা বুঝিয়ে দিয়েছে। তারপরও কিছু মানুষ বিশ্বাস করবেই এসব। ভুত পেত্নি, আত্মা -- এসব মানুষের কল্পনা থেকে রচিত। আর এগুলোকে সত্যি বলে মেনে এই বিজ্ঞানের যুগেও মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়ে 'আত্মা'র কথা শুনতে। এরা আছে বলেই স্টিভ হাফের মতো লোক-ঠকানোর ব্যবসায়ীরা করে খাচ্ছে। পৃথিবী এমনই, বিজ্ঞান আর অবিজ্ঞানের, সংস্কার আর কুসংস্কারের, বুদ্ধিমান আর মূর্খের, সত্য আর মিথ্যের, যুক্তি আর বিশ্বাসের মিশেল।

-তসলিমা নাসরিনের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেইজ থেকে

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা