kalerkantho

শনিবার । ২৭ আষাঢ় ১৪২৭। ১১ জুলাই ২০২০। ১৯ জিলকদ ১৪৪১

মুসলিম নারী-শিশুকে জ্যান্ত পুড়িয়ে হত্যার ভিডিও ভাইরাল? সত্য কি?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ মার্চ, ২০২০ ১৮:৩০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মুসলিম নারী-শিশুকে জ্যান্ত পুড়িয়ে হত্যার ভিডিও ভাইরাল? সত্য কি?

নাজির আহমেদ, জন্মসূত্রে পাকিস্তানি, ব্রিটিশ মেম্বার অফ পার্লামেন্ট, সম্প্রতি একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন ট্যুইটারে। সেই ভিডিওতে দেখানো হচ্ছে, এক নারী এবং তাঁর সন্তানকে উদ্ধার করা হয়েছে। দাবি করা হচ্ছে যে, ভারতে হিন্দুত্ববাদী ফ্যাসিস্টরা জ্যান্ত পুড়িয়ে মেরেছে এই বাচ্চা এবং তার মাকে। ট্যুইটারে বলা হচ্ছে, ‘ভয়ংকর ভিডিও যেখানে এক মা এবং তাঁর সন্তানকে জ্যান্ত পোড়ানো হয়েছে। ঈশ্বরের অশেষ কৃপা যে, তাঁদের উদ্ধার করা গিয়েছে।’

এখন এই ভিডিওটি ডিলিট করে দেওয়া হয়েছে। কমপক্ষে ৩৫০০ বার রিট্যুইট করা হয়েছে ভিডিওটি। পাশাপাশি ৭০ হাজারেরও বেশি মানুষ দেখে ফেলেছেন এই ভিডিও।

একই ভিডিও আবার ট্যুইট করেছেন অবসরপ্রাপ্ত পাকিস্তান আর্মি মেজর মুহম্মদ আরিফ। তাঁর বক্তব্য, ‘মুসলিমদের ভারতে পুড়িয়ে মারা হচ্ছে।’

সেই ট্যুইট আবার ৩১০০ বারেরও বেশি রিট্যুইট করা হয়েছে। ৮০ হাজার বার এই ভিডিও দেখা হয়ে গিয়েছে ট্যুইটারে।

ভিডিওটি খুবই পীড়াদায়ক। সেই কারণেই ভিডিওটি শেয়ার করা হচ্ছে না এখানে।

সত্য-তথ্য:
এই ঘটনাটি আদপে পশ্চিমবঙ্গের উত্তর দিনাজপুরের একটি প্রত্যন্ত গ্রামের। ২০২০ সালের জানুয়ারি মাসের ঘটনা।

আকবর আলি নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে তার স্ত্রী এবং সন্তানকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ ওঠে। এই সময়ের রিপোর্ট বলছে, স্থানীয়রা এই কাণ্ডে এতটাই ক্ষিপ্ত হয়ে যায় যে, আকবর আলির বাড়ি ভাঙচুর করে জ্বালিয়ে দেয়। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আকবর বাড়ি থেকে পলাতক।

কোনও ধর্মীয় কারণে এই ঘটনা যে ঘটেনি তা একপ্রকার নিশ্চিত।

তথ্য অনুসন্ধান পদ্ধতি:
ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এই সময় সত্য-তথ্য ডেস্ক একটি বিষয় লক্ষ্য করে যে, ভিডিওতে মানুষজন বাংলায় কথা বলছেন। আর তারপরই ভিডিওটি শেয়ার করা হয় এই সময় ডিজিটালের সঙ্গে।

এর পর দেখা যায়, ৩১ জানুয়ারি, ২০২০ সালেই এই সময় সংবাদপত্রে একটি খবর প্রকাশিত হয়েছিল। শিরোনামে লেখা হয়েছিল, ‘স্ত্রী এবং সন্তানকে হত্যা করেছে এই যুবক’।

যে ছবিটি রিপোর্টে ব্যবহার করা হয়েছে তা আদপে ওই ভিডিওর একটি স্ক্রিনশট। আর সেটাই এখন সোশ্যাল মাধ্যমে ছড়িয়ে দাবি করা হচ্ছে, ‘ভারতে হিন্দুত্ববাদী ফ্যাসিস্টরা এই নারী এবং তাঁর সন্তানকে পুড়িয়ে হত্যা করেছে।’

রিপোর্টে আরও বলা হচ্ছে যে, আকবর আলি নামের ওই ব্যক্তি সন্তান ও স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যা করে তাদের দেহ মাটিতে পুঁতে দিয়েছে। ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে উদ্ধার করা হয় তাদের দেহ। স্থানীয়রা এতটাই ক্ষিপ্ত হয়ে যায় যে, আলির বাড়ি ভাঙচুর করে সেখানে আগুনও ধরিয়ে দেয়। রিপোর্টে আরও উল্লেখ করা হয়েছে যে, আকবর আলি পলাতক।

সিদ্ধান্ত:
পুরো বিষয়টির পর্যালোচনা করে এই সময় সত্য-তথ্য ডেস্ক এই সিদ্ধান্তে পৌঁছায় যে, ঘটনাটি পশ্চিমবঙ্গের উত্তর দিনাজপুরের। তবে ট্যুইটারে মূলত পাকিস্তানিরা যে দাবি করছেন অর্থাৎ ‘ফ্যাসিস্টরা ভারতে নারী এবং তাঁর সন্তানকে পুড়িয়ে হত্যা করেছে’, তা সম্পূর্ণ ভাবে মিথ্যে।

যে ধর্মীয় অ্যাঙ্গল এই ঘটনায় যোগ করা হচ্ছে তারও কোনও ভিত্তি নেই। সুতরাং এই ভিডিও ঠিক হলেও এর পিছনে যে দাবি পাকিস্তানিরা করে আসছেন তা পুরোপুরি মিথ্যে।

সূত্র: এই সময়

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা