kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৯ চৈত্র ১৪২৬। ২ এপ্রিল ২০২০। ৭ শাবান ১৪৪১

'বোরখা পরা মেয়েরা নারীবাদী?'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৬:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'বোরখা পরা মেয়েরা নারীবাদী?'

ফেসবুকে বা টুইটারে সেদিন বারবার সামনে আসছিল এ আর রহমানের মেয়ে খতিজার বোরখা পরা ছবি। ভাবছিলাম গান বাজনা নিয়ে থাকা সংস্কৃতিমনস্ক সংসারের শিক্ষিত মেয়েরাও কী করে যে ধর্মান্ধ হয়! সে কারণেই টুইট করা। তারপর দেখতে হলো খতিজার রিয়্যাকশান! যে কোনও হিজাবি বা বোরখাওয়ালি যে ভাবে রিয়্যাক্ট করে, সে ভাবেই করেছে-- 'এটা আমার চয়েস, আমি গর্বিত, আমি এম্পাওয়ার্ড'।

খতিজা আরও বললো আমি যেন গুগল করে 'সত্যিকার নারীবাদ' সম্পর্কে জেনে নিই। সে বলতে চাইছে বোরখা পরাই সত্যিকার নারীবাদ। এই বোকা বোকা উত্তর পড়ে মিডিয়া, এমন কী সেক্যুলার মিডিয়াও, উচ্ছসিত। খবরের শিরোনাম লিখেছে, খতিজা তসলিমাকে ধুয়ে দিয়েছে, খতিজা তসলিমাকে এক হাত নিয়েছে, খতিজা উচিত জবাব দিয়েছে, ধাঁরালো জবাব দিয়েছে।

রে মূর্খের দল। তোদের কাছে কি সত্যিই মনে হয় বোরখা পরা মেয়েরা নারীবাদী? চল্লিশ বছর যাবত যে নারী সমানাধিকারের জন্য সংগ্রাম করছে, যে সংগ্রাম মোল্লাতন্ত্রকে ভয় পাইয়ে দিয়েছে, তাই তারা খুনের ফতোয়া দিয়েছে, তার ফাঁসির দাবিতে লক্ষ লোকের মিছিল বের করেছে, দেশে দেশে পুরুষতান্ত্রিক সমাজও তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে, কী করে তাকে দেশছাড়া করবে, রাজ্যছাড়া করবে, ভ্যানিশ করবে। তাকে গুগল করে 'সত্যিকার নারীবাদ' শিখতে বললো এক বোরখাওয়ালি মেয়ে, আর এটাই চরম বিনোদনের বিষয় হয়ে উঠলো সারা উপমহাদেশে!

বোরখা ইস্যুটা একটা সিরিয়াস বিতর্কের ইস্যু হতে পারত। সেদিকে গেলই না মিডিয়া। সকলে হাসছে আমার দিকে তাকিয়ে কেমন চমৎকার উত্তর দিয়ে আমাকে 'কাবু' করা হলো এই বলে। যেন আমি মানবতার শত্রু, যেন মেয়েদের সমানাধিকারের জন্য আমার এতকালের লেখালেখি সব ভুল, যেন নারীবিরোধী ধর্ম নিয়ে প্রশ্ন করা আমার ভুল, যেন বোরখাওয়ালীরাই আসল নারীবাদী, যেন ইসলামই নারীর সমানাধিকার নিশ্চিত করে, যেন পুরুষের চার বিয়েই সঠিক, কোরান যে অবাধ্য নারীকে মারধর করতে বলে, সেটাই সত্যিকারের নারীবাদ। আমিই ভুল।

*** এই বিভাগে প্রকাশিত লেখার দায়ভার একমাত্র লেখকের।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা