kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

বাংলাদেশি ডাক্তাররা নন; গরিবের হাসপাতাল চালাতে এলেন মার্কিন দম্পতি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩০ নভেম্বর, ২০১৯ ১৯:০৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাংলাদেশি ডাক্তাররা নন; গরিবের হাসপাতাল চালাতে এলেন মার্কিন দম্পতি

'ডাক্তার ভাই'। টাঙ্গাইল জেলার মধুপুর উপজেলার কালিয়াকুড়ি গ্রামবাসীর কাছে এই নামেই পরিচিত ছিলেন নিউজিল্যান্ডের ডাক্তার এড্রিক বেকার। টানা  ৩২ বছর তিনি ওই এলাকার দরিদ্র রোগিদের সেবা দিয়ে ২০১৫ সালে পাড়ি জমান না ফেরার দেশে। গরীবদের প্রিয় এই ডাক্তারকে হারিয়ে হাসপাতালটির কার্যক্রমেও বড় প্রভাব ফেলে। প্রয়োজন ছিল ডাক্তার ভাইয়ের মতো একজন পরিচালকের। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে ডাক্তার ভাই নিজেই এমন একটি আহ্বান জানিয়েছিলেন বাংলাদেশি ডাক্তাদের উদ্দেশ্য। কিন্তু তারপর কী হলো? বাংলাদেশের কোনো ডাক্তার কি শুনেছেন এড্রিক বেকারের সেই আহ্বান? 

৩২ বছর এই হাসপাতাল চালিয়ে গেছেন প্রয়াত ডা: এড্রিক বেকার ওরফে 'ডাক্তার ভাই'।

৫ বছর আগে হানিফ সংকেতের উপস্থাপনায় দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো ইত্যাদির মঞ্চে এসে বৃদ্ধ ডাক্তার এড্রিক বেকার বলেছিলেন, বাংলাদেশি কোনো ডাক্তার যাতে হাসপাতালটির দায়িত্ব গ্রহণ করেন। বাংলাদেশের নাগিকত্ব পাওয়া এড্রিক পরিস্কার বাংলায় বলেছিলেন, 'এদেশের মেডিক্যাল কলেজে অনেক মেধাবী ছাত্র আছে। আমি বলব, আপনারারা গ্রামকে ভুলে যাবেন না। গরীব মানুষকে ভুলে যাবেন না। গ্রামে গিয়ে চিকিৎসা করবেন।' দুঃখজনক হলেও সত্য যে, বাংলাদেশের কোনো ডাক্তার এড্রিক বেকারের ডাকে সাড়া দেননি! ডাক্তার হয়ে গরীব মানুষের সেবার জন্য কেউ ফিরে যাননি গ্রামে। তাই বলে কিন্তু থেমে নেই ডাক্তার বেকারের সেই হাসপাতাল। 

সন্তানদের ভর্তি করিয়ে দিয়েছেন স্থানীয় স্কুলে।

বাংলাদেশি কোনো ডাক্তার সাড়া না দিলেও এড্রিক বেকারের আহ্বান শুনতে পেয়েছিলেন সুদূর আমেরিকায় বসবাসরত ডাক্তার দম্পতি জেসিন-মেরিন্ডি। ডাক্তার বেকারের যখন শেষ সময়, তখন তরুণ এই দম্পতির সন্তানগুলো বেশ ছোট ছোট ছিল। যে কারণে তাদের নিয়ে বাইরে যাওয়াটা ছিল প্রায় অসম্ভব। জেসিন-মেরিন্ডি দম্পতি তাই সময়ের অপেক্ষা করেন। অবশেষে গত বছর চার সন্তান নিয়ে তারা চলে আসেন মধুপুরের সেই হাসপাতালে। এসেই প্রথমে শুরু করেন বাংলা ভাষা শেখা এবং বাঙালি খাবার খাওয়ার অভ্যাস তৈরি। নিজেরা তো বটেই, সন্তানদেরকেও বাঙালি খাবারে অভ্যস্ত করিয়ে ফেলেছেন জেসিন-মেরিন্ডি। গতকাল শুক্রবারের ইত্যাদির সৌজন্য এই কাহিনী এখন ভাইরাল।

বাঙালি শিশুদের সঙ্গে মিশে মহানন্দে আছে জেসিন-মেরিন্ডি দম্পতির সন্তানরা। 

আমাদের দেশের ডাক্তাররা সরকারি চাকরি পেয়েও গ্রামে যেতে চান না। গ্রাম-মফস্বঃলের হাসপাতালগুলো ডাক্তারশূন্য থাকে। বিসিএস নিয়োগের পর শুরু হয় শহরে থাকার তদবির। তারা চান শহুরে আধুনিক জীবন। অথচ, বাংলাদেশের চেয়ে একশগুণ উন্নত দেশ আমেরিকার একশগুণ উন্নত জীবন ছেড়ে, স্রেফ মানবসেবার জন্য বাংলাদেশের একটি প্রত্যন্ত গ্রামে চলে এসেছেন জেসিন-মেরিন্ডি। সারাজীবনই তারা গরীব মানুষের সেবা করে যেতে চান। যে কারণে স্থানীয় স্কুলে ভর্তি করে দিয়েছেন সন্তানদের। তারা আর দশটা বাংলাদেশি শিশুর মতোই বেড়ে উঠছে, বাংলা শিখছে। তবে সন্তান ইংরেজি না শিখলে বাংলাদেশি বাবা-মায়ের যেমন সম্মান যায়, সন্তানরা বাংলা শেখায় জেসিন-মেরিন্ডি কিন্তু মোটেও অসম্মানিত বোধ করছেন না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা