kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

বাবরি মসজিদ : ৫ একর জমি দেওয়ায় প্রশ্ন তুললেন তসলিমা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ নভেম্বর, ২০১৯ ১৩:২১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাবরি মসজিদ : ৫ একর জমি দেওয়ায় প্রশ্ন তুললেন তসলিমা

শনিবার ভারতের সুপ্রিম কোর্টের তরফ থেকে অযোধ্যার বাবরি মসজিদের বিতর্কিত জমি নিয়ে মামলার রায়ে মুসলিমদের পাঁচ একর জমি দেওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুললেন বাংলাদেশের নির্বাসিত লেখক তসলিমা নাসরিন। তার পোস্ট ঘিরে ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়েছে অনলাইনে।

মামলার রায়ে বলা হয়, বাবরি মসজিদের ওই জমি সরকার পরিচালিত একটি ট্রাস্টের হাতে তুলে দেয়া হবে এবং তারা সেখানে একটি রামমন্দির নির্মাণ করবে। আর মসজিদ নির্মাণের জন্য শহরের অন্য কোনো জায়গায় মুসলমানদের ৫ একর জমি দেওয়া হবে। এই রায়ের পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে এক পোস্টে করেছেন তসলিমা নাসরিন।

তসলিমার ভারতীয় সমালোচকরা অনেকেই তসলিমাকে বাংলাদেশে ফিরে ইচ্ছেমতো কাজ করার পরামর্শ দেন। ভারতের আদালতের সিদ্ধান্ত নিয়ে সমালোচনা করা তাঁর শোভা পায় না বলেও লিখেন তারা।

সেই পোস্টে তসলিমা লিখেছেন, ‘আমি বিচারপতি হইলে অযোধ্যার রায়টা অন্যভাবে দিতাম। ২.৭৭ একর জমি যেইখানে রাম মন্দির বানানির অনুমতি দেওয়া হইছে সেইটা সরকারকে দিতাম আধুনিক একটা বিজ্ঞান স্কুল বানানির জন্য । আর যে ৫ একর জমি দেওয়া হবে মসজিদ বানানির জন্য, সেই ৫ একর জমিও আমি সরকারকে দিতাম একটা আধুনিক হাসপাতাল আর চিকিৎসা গবেষণাকেন্দ্র বানানির জন্য। আধুনিক বিজ্ঞান স্কুলে পুলাপানেরা ফ্রি পড়বে। আধুনিক হাসপাতালেও সবাই ফ্রি চিকিৎসা পাবে।’

তসলিমার পোস্টটি দেওয়ার পরই ভারতীয় ডানপন্থীসহ বিভিন্ন ভাবধারার মানুষ সেখানে ব্যাপক সমালোচনা শুরু করে।

ফেসবুকে বশির জামাল লিখেছেন, ‘আপনি প্রধান বিচারপতি হয়ে এমন রায় দিলে আরেকটা রায়ট হত।’

অলক ভট্টাচার্য লিখেছেন, ‘দেশে কি জায়গা কম পড়িয়াছে?’

শেফালি বৈদ্য নামে ভারতের একজন লেখক তসলিমার পোস্টের কড়া সমালোচনা করে লিখেছেন, ‘আপনি ভারতে শরণার্থী হয়ে হিন্দুদের কাছে জীবন ভিক্ষা চান আর আপনি প্রতিটা ঘটনার সমালোচনা করেন। বাংলাদেশে ফিরে গিয়ে সেখানে স্কুল বানান। আপনার নিরক্ষর লোকদের তা দরকার।’

তসলিমাকে অকৃতজ্ঞ অতিথি হিসেবে মন্তব্য করে আরেক লেখক ও কলামিস্ট সঞ্জয় দীক্ষিত লিখেছেন, ‘ভগবান রামের প্রতি কৃতজ্ঞ থাকুন যে এতকিছুর পরও হিন্দুরা আপনায় সহ্য করে আছে। আপনি নিজের দেশেই বেশি কিছু বলার কারণে ঠিকতে পারেননি। আপনি একজন অকৃতজ্ঞ অতিথি।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা