kalerkantho

বুধবার । ২৬ জুন ২০১৯। ১২ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

গেইমস

ডিম নিয়ে কারবার

এস এম তাহমিদ   

৬ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ডিম নিয়ে কারবার

মুরগির ডিম উৎপাদন বা মুরগির খামার নিয়ে তৈরি করা গেইমও যে জনপ্রিয় হতে পারে, সেটা চট করে কারো মাথায়ই আসবে না। অথচ ঠিক এটি নিয়েই তৈরি গেইম ‘এগস ইঙ্ক’ এবং সেটি খুব মন দিয়ে খেলার গেইমারেরও অভাব নেই। অনলাইনে গেইমটির আছে নিজস্ব ফোরাম, প্রতি মুহূর্তে অন্তত ২০০ জন গেইমার সেটি নিয়ে আলোচনাও করছেন।

গেইমের কাহিনিটা এমন—ভবিষ্যতের কোনো একসময় আবিষ্কার হয়, মুরগির ডিমেই লুকিয়ে আছে মহাবিশ্বের সব রহস্য। রাতারাতি ডিম উৎপাদনে ঝুঁকে পড়তে শুরু করে বিশ্বের সব মানুষ। চাই আরো ডিম, তার জন্য চাই আরো মুরগি, তাদের বাঁচাতে চাই আরো খাবার, বাসস্থান। ডিম শুধু উৎপাদন করলেই হবে না, সেগুলো পৌঁছে দিতে হবে বাজারে বিক্রির জন্য কিংবা ব্যবহার করতে হবে গবেষণায়। এগুলো সবই করা যাবে ‘এগস ইঙ্ক’ গেইমে।

বড় বাসস্থান, আরো কার্যকর ট্রাকব্যবস্থা, আরো বড় খাদ্যভাণ্ডার তৈরি করে নিজের খামারকে বড় করার দিকে খেয়াল রাখতে হবে। এ জন্য অন্যান্য গেইমের মতো এই গেইমেও আছে নানা রকম আপগ্রেড ব্যবস্থা। তবে এর বাইরে আছে গোল্ডেন এগ ব্যবহার করে উচ্চমানের গবেষণা করার সুবিধা।

একা একা খামার করতে বিরক্ত লাগলে কো-অপ খেলার সুবিধাও রয়েছে। তার জন্যই অনলাইন ফোরামের জন্ম, যেখানে অনেক গেইমার একত্রভাবে দিন-রাত উৎপাদন করছেন ডিম। শুনতে হাস্যকর লাগলেও গেইমটি খুবই মজাদার। বিশেষ করে কিছু মিশন কনট্র্যাক্ট গেইমটিতে আনবে ভিন্নতা। এ ছাড়া চাইলে খামার বন্ধ করে নতুন করে শুরু করার উপায়ও আছে। তবে নতুন করে শুরু করলেও তা খালি হাতে করতে হবে না, পুরনো খামারের সব আপগ্রেড এবং গোল্ডেন এগ নতুন খামারেও ব্যবহার করা যাবে।

 

খেলতে যা লাগবে

বিনা মূল্যের গেইমটি খেলার জন্য খুব শক্তিশালী ডিভাইসের প্রয়োজন নেই। ১ গিগাবাইট র‌্যাম ও ডুয়ালকোর প্রসেসর যথেষ্ট।   

 

ডাউনলোডলিংক

অ্যানড্রয়েড: https://goo.gl/H9Z6gs

আইওএস: https://itunes.apple.com/us/app/egg-inc/id993492744?mt=8

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা