kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৩ মে ২০১৯। ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৭ রমজান ১৪৪০

গেইম রিভিউ

এক যোদ্ধার প্রতিশোধ

এস এম তাহমিদ   

২০ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এক যোদ্ধার প্রতিশোধ

তুমুল জনপ্রিয় গেইম ‘ব্লাডবোর্ন’ এবং ‘ডার্ক সোলস’ সিরিজের নির্মাতা ফ্রম সফটওয়্যার সম্প্রতি বাজারে এনেছে নতুন গেইম ‘সেকিরো : শ্যাডোজ ডাই টুয়াইস’। গেইমটির মূল চরিত্র একজন শিনোবি সামুরাই। কাহিনির স্থান জাপান। সময় ষোড়শ শতকের সেংগোকুকাল। একেবারে শুরুতে দেখা যাবে, আশিনা এলাকাটি জোর করে দখল করে নিয়েছে সেনাপতি ইশিন। সে সময় গেইমের মূল চরিত্র সেজুকে দত্তক নেয় ‘আউল’ নামের এক শিনোবি। তারপর পেরিয়ে যায় ২০ বছর, ইশিন বার্ধক্যজনিত কারণে হয়ে পড়ে দুর্বল। তার রাজ্য দখল করে নেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিতে থাকে শত্রুরা। এর মধ্যেই সেজু হয়ে ওঠে শক্তিশালী এক শিনোবি সামুরাই যোদ্ধা। সে দায়িত্ব পায় প্রাচীন জাদুশক্তির শেষ উত্তরাধিকারী কুরোকে রক্ষা করার। এদিকে কুরোকে অপহরণ করার চেষ্টা করে ইশিনের নাতি গেনিচিরো। তাকে ব্যবহার করে গেনিচিরো চেষ্টা করে এক অমর সেনাদল তৈরি করতে। তাকে ঠেকানোর সময় সেজু গুরুতর আহত হয়, কাটা পড়ে তার এক হাত। তাকে নতুন হাত দান করে এক রহস্যময় ব্যক্তি। নতুনভাবে সেকিরো নেমে পড়ে কুরোকে উদ্ধার কাজে।

বাকি কাহিনি গেইমারের খেলার ধরনের ওপর নির্ভর করে। বেশ কয়েকভাবে শেষ হতে পারে এই গেইমের গল্প। ফ্রম সফটওয়্যারের তৈরি করা অন্য গেইমগুলোর মতো এটিও থার্ড পারসন অ্যাকশন ঘরানার। অত্যন্ত কঠিন এ গেইমটি খেলতে প্রয়োজন প্রচুর ধৈর্য। সেকিরোর প্রতিটি অ্যাটাক মুভ ও আইটেম কিভাবে কাজ করে, সেটি ধরতে না পারলে গেইম খেলাটা অসম্ভব হয়ে যাবে। যাঁরা ডার্ক সোলস বা ব্লাডবোর্ন খেলেছেন, তাঁরাও শুরুতে হোঁচট খেতে পারেন। সরাসরি হামলা নয়; বরং লুকিয়ে থেকে চোরাগোপ্তা হামলাই হচ্ছে গেইমটিতে সফলতা পাওয়ার মূলমন্ত্র। ধীরে ধীরে স্কিল পয়েন্ট ব্যবহার করে সেকিরোর শক্তি কিছুটা বাড়ানো সম্ভব, পাওয়া যাবে নতুন কিছু অস্ত্র এবং প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র। অন্যান্য গেইমের মতো বারবার অ্যাটাক করে শত্রুর আয়ু কমানো এটির লক্ষ্য নয়; বরং শত্রুকে বুদ্ধি করে বেকায়দায় ফেলে এক আঘাতে পরাস্ত করাই সেকিরোর মূল গেইমপ্লে।

 গেইমটির গ্রাফিকস ও আর্ট ডিজাইন অত্যন্ত সুন্দর। বিশেষ করে সে সময়ের কিছু জাপানি তৈলচিত্র থেকে সেকিরো চরিত্রটির ডিজাইন করা হয়েছে। খেলার সময় গেইমের চেয়ে এনিমেশন মুভির কথাই মনে হবে বেশি। বিশেষ করে চরিত্রগুলোর চেহারা এনিমেশন স্টাইলে করা হয়েছে।

পুরোপুরি একক প্লেয়ারের গেইম এটি। এতে নেই কোনো অনলাইন বা কো-অপ খেলার উপায়। এ সময় এ ধরনের গেইমের দেখা পাওয়া সত্যিই বিরল। এর পরও গেইমটির জনপ্রিয়তায় ভাটা পড়েনি মোটেও। যাঁরা একটু ভেবেচিন্তে সময় নিয়ে অ্যাকশন ঘরানার গেইম খেলতে পছন্দ করেন, তাঁদের জন্য ‘সেকিরো : শ্যাডোজ ডাই টুয়াইস’ আদর্শ এক গেইম।

পিসি ছাড়াও গেইমটি খেলা যাবে প্লেস্টেশন ৪ এবং এক্সবক্স ওয়ানেও।

 

খেলতে যা যা লাগবে

৬৪ বিট উইন্ডোজ ৭

ইন্টেল কোর আই৩ বা সমমানের এএমডি প্রসেসর

৪ গিগাবাইট র‌্যাম

এনভিডিয়া জিফোর্স ৭৬০ বা এএমডি রেডিওন ৭৯৫০ গ্রাফিকস। ২৫ গিগাবাইট খালি জায়গা।

 

বয়স

১৮+

মন্তব্য