kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৭ জুন ২০১৯। ১৩ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

পরিবেশদূষণ ও যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতি

রব উরিয়ে

১০ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বর্তমান যুগের সবচেয়ে বড় সমস্যা দুর্যোগ ও পরিবেশ বিপর্যয়ের মাত্রা বৃদ্ধি; পারমাণবিক ধ্বংসযজ্ঞের শঙ্কা এবং শ্রেণিবিরোধ বৃদ্ধির প্রবণতা। নানা কৌশল অবলম্বন করে এসব বিষয়কে পাশে সরিয়ে রাখা হচ্ছে। ‘গ্রিন নিউ ডিল’-এর নামে কিছু প্রগতিশীল কর্মসূচি প্রস্তাবিত না হলে যুক্তরাষ্ট্রের ডেমোক্র্যাটরা এবং তাদের বিপথগামী সহযোগীরা এ কথা প্রতিষ্ঠা করে ফেলত যে ট্রাম্পকে থামানোই তাদের মূল কাজ—অন্য কিছু নয়।

পরিবেশগত দুর্যোগ প্রায় ৩০০ বছর ধরে একটি বর্ধমান সমস্যা। এ সমস্যা দ্রুত প্রকট হয়েছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে, সঙ্গে পারমাণবিক ধ্বংসযজ্ঞের হুমকি বেড়েছে। আর শ্রেণিবিরোধ বাড়ছে সত্তরের দশক থেকে। কারণ নব্য উদারতন্ত্র সাধারণ তথা সামষ্টিক ক্ষেত্রকে ক্ষীয়মাণ করে তুলেছে। ফলে সম্পদ ক্রমবর্ধমান হারে তাদের হাতে জমা হচ্ছে, যারা সমাজকে ধ্বংস করে লাভবান হয়। এসব সমস্যা ট্রাম্পের প্রেসিডেন্ট হওয়ার আগে থেকেই বিরাজমান। এ কথা বলার অর্থ, তিনি এসবের কারণ নন এবং তিনি বিদায় নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এসব বিদায় নেবে না। যাঁরা ডেমোক্র্যাটদের গদিনশিন দেখেননি, তাঁদের কাছে ক্ষমতার বাইরে থাকা ডেমোক্র্যাটদের কথা যুক্তিসংগতই মনে হয়। তরুণ এবং রাজনৈতিক বিষয়ে অনবহিত ব্যক্তিদের বুঝতে হবে যে মার্কিন রাজনৈতিক কাঠামো অস্তিত্বশীল থাকে জনগণের ইচ্ছাকে শ্বাসরুদ্ধ করে রাখার জন্য।

আমি যখন শিশু ছিলাম তখন বেশির ভাগ মার্কিন যথাযথ তথ্য পেলে সঠিক কাজটিই করতে চাইত। যেমন—এখনো বেশির ভাগ মার্কিন ‘সাধারণ স্বাস্থ্যসেবা’র পক্ষে। মিথ্যা প্রচারণা বন্ধ হলে তারা বাসযোগ্য পরিবেশের জন্য প্রাণপাত করবে। কিন্তু জনগণ যা চায় তা ‘কতিপয়তন্ত্রীরা’ তা চায় না। মুনাফামুখী সেবা ও পরিবেশের ধ্বংসের কর্মসূচি তাদের রাজনৈতিক ক্ষমতার উৎস। ডেমোক্র্যাটরা এখন রিপাবলিকান প্রস্তাবকে আগে বাড়িয়ে দিচ্ছে, রিপাবলিকানরা বেকায়দায় পড়ে। এই রাজনৈতিক প্রতিযোগিতার উদ্দেশ্য কতিপয়তন্ত্রীদের নেক নজর পাওয়া—এটা অধোমুখী দৌড় প্রতিযোগিতা।

ওবামাকেয়ার ছিল রিপাবলিকান হেরিটেজ ফাউন্ডেশনের কর্মসূচির সামান্য পরিবর্তিত রূপ; ম্যাসাচুসেটসে রিপাবলিকান গভর্নর মিট রমনি এটিকে প্রথম কার্যকর করেছিলেন। ডেমোক্র্যাটরা এটাকেই রক্ষা করতে চাইছে। অথচ এটাকে তেমন কার্যকর মনে করেনি রিপাবলিকানরা। এটাই ডেমোক্র্যাটদের স্টাইল। অন্যদিকে রিপাবলিকানরা এতটাই ডানে সরেছে যে ‘রাজনৈতিক মধ্যপন্থা’ এখন অসম্ভবী ভাবনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই প্রবণতা এমন একসময়ে দেখা যাচ্ছে যখন দুনিয়া ধ্বংসকারী পরিবেশগত সংকট চলছে। পাঁচ দশকের নব্য উদারতন্ত্রী চর্চা জলবায়ু পরিবর্তন ও মানববিধ্বংসী ঘটনা ঘটানোর পাশাপাশি রাজ্যগুলোকে এমন অবস্থায় ফেলেছে যে তাদের এসব সমস্যা সমাধানের সামর্থ্য নেই। যুক্তরাষ্ট্রের বেশির ভাগ পানি সিসা-দূষিত, কৃষি-রাসায়নিক ও অবশেষের দ্বারা দূষিত। অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে যে কৃষি উৎপাদনের জন্য বিশুদ্ধ মাটি আমদানি জরুরি হয়ে পড়েছে। আর মার্কিন রাজনীতি এখনো এই দূষণ দূর করার প্রতিবন্ধক।

জলবায়ু পরিবর্তন ধনিক শ্রেণি কর্তৃক মানবজাতির ওপর বিষাক্ত অবশেষ চাপিয়ে দেওয়ার ফল। জিডিপি সমন্বয় করেও পরিবেশ বিপর্যয়জনিত ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া যাচ্ছে না। ভূ-রাজনৈতিক গুরুত্ব অর্জনের লক্ষ্যে তেল আহরণের ওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা—১৯৫০ সাল থেকে এটাই মার্কিন পরিকল্পনা। এ পরিকল্পনা মার্কিন কতিপয়তন্ত্রীদের স্বার্থে করা হয়েছে। এর কারণে মানুষকে যে মূল্য দিতে হচ্ছে তা গণহত্যার সমান। এ পরিকল্পনা এখনো বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে ট্রাম্পের নীতির যে বিরোধিতা করা হচ্ছে, তা আসলে দৃষ্টি সরানোর চেষ্টা। দাসত্ব, গণহত্যা, সাম্রাজ্যবাদ, পরিবেশ ধ্বংস করা—এসব যেন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য ভালো! যুক্তরাষ্ট্র একটি ধারণা গেলাচ্ছে মানুষকে—তাদের শাসনরীতি শাসিতদের মতের নিরিখে প্রবর্তিত; ৭০ বছর ধরে এ মত উৎপাদন করা হচ্ছে। অথচ মুক্ত ও স্বচ্ছ নির্বাচনের তালিকায় যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান অনেক নিচের দিকে।

জলবায়ু পরিবর্তন ও গণবিধ্বংসী কর্মকাণ্ডের কারণে এ গ্রহ এখন মৃত্যুপথযাত্রী। এ পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রগতিশীল লোকজন গ্রিন নিউ ডিলের জন্য সক্রিয় ও সোচ্চার হয়েছে। এর উদ্দেশ্য ন্যায় ও টেকসই অর্থনৈতিক ব্যবস্থা কায়েম করা। এ জন্য ট্রানজিশন প্রগ্রাম দরকার—তা না হলে দূষক শিল্প-কারখানাকে বৈশ্বিক অর্থনীতিতে সংশ্লিষ্ট করার চেষ্টা টেকসই অর্থনীতি গড়ে তোলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে; ব্যাপক হারে কর্মী ও ব্যবস্থার স্থানান্তরের ঘটনা ঘটবে। এ বিবেচনায় গ্রিন নিউ ডিল সবচেয়ে ভালো প্রস্তাব। পরিবেশ সমস্যার সমাধানের কেন্দ্র হতে হবে যুক্তরাষ্ট্রকে। কারণ পরিবেশের ক্ষতির বেশির ভাগের জন্য সে-ই দায়ী। তাই ক্ষতিপূরণে যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষ দায়িত্ব রয়েছে। রিসোর্স ইমপেরিয়ালিজমের কট্টর সমর্থক ডেমোক্রেটিক পার্টির পক্ষে পরিবেশের রুগণ্তা দূর করা সম্ভব কি? তারা বরং সাধারণ স্বাস্থ্যসেবা ও গ্রিন নিউ ডিলকে নস্যাৎ করার চেষ্টায় থাকবে।

 

লেখক : শিল্পী, লেখক ও রাজনৈতিক অর্থনীতিবিদ

সূত্র : কাউন্টারপাঞ্চ অনলাইন

ভাষান্তর : সাইফুর রহমান তারিক

 


খবরটি ইউনিকোড থেকে বাংলা বিজয় ফন্টে কনভার্ট করা যাবে কালের কণ্ঠ Bangla Converter দিয়ে

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা