kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৫ জুন ২০১৯। ১১ আষাঢ় ১৪২৬। ২২ শাওয়াল ১৪৪০

সেরা সব দলকেই হারিয়েছে বাংলাদেশ

বিশ্বকাপের দল নিয়ে ‘ক্রিকেটনেক্সডটকম’-এ ধারাবাহিক বিশ্লেষণ করছেন ভারতীয় কিংবদন্তি অনিল কুম্বলে। সাবেক এ অধিনায়ক ও কোচ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সম্ভাবনা এবং শক্তির জায়গা নিয়েও করেছেন চুলচেরা বিশ্লেষণ। মাশরাফিদের ভালো কিছু করতে তাগিদ দিয়েছেন ধারাবাহিক ভালো খেলার। নক আউটে মানসিক চাপে পড়ে বিধ্বস্ত হওয়ার অতীতও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন তিনি।

২২ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



সেরা সব দলকেই হারিয়েছে বাংলাদেশ

প্রশ্ন : বাংলাদেশ হয়তো পুরনো কোনো পরাশক্তি নয়, তবে এবারের বিশ্বকাপে বেশ অভিজ্ঞ দল। দীর্ঘদিন ধরে খেলছেন দলের অনেকে। তাঁদের অভিজ্ঞ ও তরুণরা মিলে প্রত্যাশা মেটাতে পারে কতটা?

অনিল কুম্বলে : বাংলাদেশকে হালকাভাবে নেওয়ার কোনো উপায় নেই। গত কয়েক বছর দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলছে ওরা। মাশরাফি বিন মর্তুজা অসাধারণ এক নেতা। দলের ছেলেদের খুব ভালো জানে ও, মাঠে নিতে পারে সঠিক সিদ্ধান্ত। আমার মনে হয় মাশরাফি যখন অধিনায়ক থাকে, তখন দেখা যায় অন্য বাংলাদেশকে। তামিম ইকবাল সময়ের অন্যতম সেরা ওপেনার এখন। ধারাবাহিকভাবে ভালো রান করে যাচ্ছে ও।

প্রশ্ন : এ দুজন ছাড়াও বাংলাদেশের আরো কয়েকজন তারকা আছেন, যাঁরা বদলে দিতে পারেন ম্যাচের ভাগ্য।

কুম্বলে : সাকিব আল হাসান সেরা অলরাউন্ডারদের একজন। ওর ১০টা ওভার গুরুত্বপূর্ণ। পাওয়ার প্লের মতো শেষ দিকের ওভারেও বাংলাদেশের হয়ে ভালো বোলিং করে সাকিব। বলের মতো অবদান রাখে ব্যাট হাতেও। মুশফিকুর রহিম ম্যাচ শেষ করতে পারে, কয়েকটা সেঞ্চুরি আছে ওর। মাহমুদ উল্লাহও অনবদ্য।

প্রশ্ন : এমন ভালো মানের খেলোয়াড়দের নিয়েও চ্যাম্পিয়নস ট্রফি আর গত বিশ্বকাপের নক আউটে বাংলাদেশের পেরে না ওঠার কারণ কী?

কুম্বলে : বাংলাদেশের সব ধরনের সামর্থ্য আছে। তবে কেন জানি ওরা বড় মঞ্চের নক আউট ম্যাচে চোক করে বসে। গত বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল কিংবা গত চ্যাম্পিয়নস ট্রফির নক আউটে যেকোনো কারণে নিজেদের সেরা ক্রিকেটটা খেলতে পারেনি ওরা। এটা উতরানো ওদের চ্যালেঞ্জ।

প্রশ্ন : ইংল্যান্ডে বড় রানের অনেক ইনিংস হতে পারে এই বিশ্বকাপে। বাংলাদেশের রানে বাঁধ দেওয়ার মতো বোলার রয়েছেন কেমন?

কুম্বলে : বাংলাদেশের বোলিংও শক্তিশালী। হয়তো ভারত, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা বা পাকিস্তানের মানের ফাস্ট বোলার নেই, তবে স্পিনাররা ভালো। অভিজ্ঞতাও আছে। সব মিলিয়ে বাংলাদেশের ভালো করা উচিত।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের ক্রিকেটভক্তরা অসাধারণ। বিশ্বকাপে পাকিস্তান বা ইংল্যান্ডকে হারানোর মতো অঘটন ঘটিয়েছে তারা। তবে ওদের সমর্থকরা আরো বেশি কিছু চায়। ক্রিকেটারদের যা অভিজ্ঞতা, তাতে আরো বেশি দূর যাওয়া উচিত বিশ্বকাপে।

কুম্বলে : বাংলাদেশ এর আগে সেরা সব দলকে হারিয়েছে। ওদের সেই ক্ষমতা আছে। এবার কোচ স্টিভেন রোডসের জন্য এগিয়ে থাকবে ওরা। কারণ ইংলিশ কন্ডিশনটা ভালো জানেন তিনি। কোচের জন্য কিছুটা তো এগিয়ে থাকবেই বাংলাদেশ।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের অভিজ্ঞরা ভালো করছে, তুলনায় তরুণরা কি মেলে ধরতে পারছে নিজেদের?

কুম্বলে : ওদের অভিজ্ঞরা খুবই ভালো ক্রিকেট খেলছে, ধারাবাহিকতাও আছে। কিন্তু তরুণরা সেই পথে হাঁটতে পারছে না। লিটন দাস আছে, সৌম্য সরকারের মতো দারুণ প্রতিভাবান ব্যাটসম্যানও আছে বাংলাদেশের। অতীতে নিজের মান বুঝিয়েছে সৌম্য; কিন্তু ধারাবাহিকতাটা ধরে রাখতে পারেনি। বিশ্বকাপ এক ইনিংস ভালো খেলার জায়গা না। আর এ জন্যই অনন্য তামিম ইকবাল। বিশ্বকাপে অনেক দূর যেতে হলে দল হিসেবেই আরো ধারাবাহিক হতে হবে বাংলাদেশকে।

প্রশ্ন : মুস্তাফিজুর রহমান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এসেছিল মুগ্ধতা ছড়িয়ে। এত দ্রুত সময়ে আগের সেই কার্যকারিতা হারিয়ে ফেলেছেন তিনি...

কুম্বলে : মুস্তাফিজ ১৪০ থেকে ১৪৫ কিলোমিটার গতিতে বল করত। তারপর একই ভঙ্গিতে তাঁর স্লোয়ার আর কাটার সামলাতে নাভিশ্বাস উঠেছিল ব্যাটসম্যানদের। কিন্তু ইনজুরিতে পড়ে যেকোনোভাবে ওর গতি কমেছে। চোট কাটিয়ে মুস্তাফিজ কিভাবে বিশ্বকাপ শুরু করে, সেটা গুরুত্বপূর্ণ। তবে দলে একজন বাঁহাতি পেসার থাকা সব সময় গুরুত্বপূর্ণ। মুস্তাফিজ নিজের পুরনো রূপ ফিরে পেলে বাংলাদেশে সত্যিকারের ভয়ংকর দল হয়ে উঠবে।

প্রশ্ন : বাংলাদেশকে কি সেমিফাইনালে দেখছেন আপনি?

কুম্বলে : আগেও বলেছি ধারাবাহিকতা বড় একটা ব্যাপার। অধারাবাহিক বলে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সেমিফাইনালে রাখছি না। বাংলাদেশও অধারাবাহিক। এই জন্য ওদের আমি সেমিফাইনাল সম্ভাবনা দেখছি না।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা