kalerkantho

সোমবার । ২০ মে ২০১৯। ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৪ রমজান ১৪৪০

বাংলাদেশের জন্য ভালো করা কঠিন হবে

২৬ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বাংলাদেশের জন্য ভালো করা কঠিন হবে

ক্যাম্প থেকে পাওয়া আত্মবিশ্বাস ও সাম্প্রতিক ফর্ম নিয়ে...

কম খেলোয়াড় নিয়ে আমরা ক্যাম্প শুরু করেছি। কেননা অনেকে এই প্রচণ্ড গরমের মধ্যে ডিপিএলের মতো প্রতিযোগিতামূলক খেলার মধ্যে ছিল। ওদের বিশ্রামের প্রয়োজন। ক্যাম্পে এখন আমাদের মনোযোগ সতেজ থাকা ক্রিকেটারদের ওপর। এখন পর্যন্ত তা ভালোই হচ্ছে। কম ক্রিকেটারের সঙ্গে করছি অনেক কাজ। বেশির ভাগ ক্রিকেটারকে ক্যাম্পে একসঙ্গে পাব মাত্র দুই দিনের জন্য। আয়ারল্যান্ডে ৭ মে ম্যাচ খেলার আগে সবাই প্রস্তুত হয়ে যাবে বলে আমার বিশ্বাস। ফর্মের কথা বললে, নিউজিল্যান্ড সফর ছিল হতাশার। মিঠুন-সাব্বিরের মতো কিছু ভালো পারফরম্যান্স ছিল। কিন্তু সব মিলিয়ে ভালো খেলতে পারিনি। হয়তো সামনের জন্য সব জমিয়ে রেখেছি।

বিশ্বকাপের লক্ষ্য...

পুরোপুরি সৎ হয়ে কথাটি বলি। এবারের বিশ্বকাপে খুব ভালো কিছু দল থাকছে। বাংলাদেশের জন্য ভালো করা কঠিন হবে। কিন্তু আমি জানি, বিশ্বকাপের অনেক দেশ এখন বাংলাদেশকে সমীহ করে। তারা জানে, নিজেদের বিবর্ণ দিনে কিংবা ভালো দিনেও বাংলাদেশ ওদের হারানোর সামর্থ্য রাখে। অতীতে আমরা তা প্রমাণ করেছি। আমি আসার আগে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে অনেক দূর গিয়েছি; ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দুটি সিরিজে হারিয়েছি। আমরা তাই শীর্ষ দলকে অবশ্যই হারাতে পারি। সে জন্য নিজেদের সেরা ক্রিকেটটা খেলতে হবে, বিশেষত যদি নক আউট পর্যায়ে যেতে চাই। সে সামর্থ্য বাংলাদেশের আছে।

বিশ্বকাপ প্রস্তুতির জন্য এ ক্যাম্প যথেষ্ট কি না...

আয়ারল্যান্ডের ত্রিদেশীয় সিরিজকে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে দেখছি আমি। সেখানে আয়ারল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে খেলব। সে সিরিজ প্রসঙ্গে তামিম সেদিন গণমাধ্যমে যথার্থই বলেছে—সেখানে কোনো কোনো ম্যাচে কাউকে বিশ্রাম দেওয়া, অন্য কাউকে সুযোগ দেওয়া, তাঁদের আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর কাজগুলো সেখানে করা হবে। আশা করছি ম্যাচও জিতব; শিরোপা জিতলে দারুণ হবে। আয়ারল্যান্ডে আমরা ট্রফি জয়ের জন্য যাব, তবে সেটি বিশ্বকাপের প্রস্তুতির অংশ। আর বিশ্বকাপে যখন যাব, ওই টুর্নামেন্টের শিরোপা জিততে চাওয়া ১০ দলের একটি হিসেবেই যাব।

ইমরুল কায়েসের বাদ পড়া প্রসঙ্গে...

আমরা চেষ্টা করছি, দক্ষ খেলোয়াড়দের সমন্বয়ে স্কোয়াডের গভীরতা বাড়াতে; চার-পাঁচজনের বেশি ক্রিকেটার নিয়ে। ইমরুল দক্ষ ক্রিকেটার। ও যখন স্কোয়াডে নেই, এর অর্থ বাকি ক্রিকেটাররা কতটা দক্ষ। এর অর্থ, দল নির্বাচনে আমরা স্কোয়াডের গভীরতা পাচ্ছি। আবার প্রয়োজন পড়লে ইমরুল কী করতে পারে, তা-ও আমরা জানি। বিশ্বকাপ দলে ও নেই কিন্তু খুব সহজেই থাকতে পারত। ভালো ক্রিকেটারদের দেশে রেখে যাওয়ার অর্থ আরো ভালো ক্রিকেটার নিয়ে বিশ্বকাপে যাচ্ছি।

তিনি ইংরেজ হওয়ায় বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সুবিধা নিয়ে...

বিশ্বকাপের কিছু কিছু ভেন্যুর কিউরেটর ও কোচদের সঙ্গে আমার সখ্যের কারণে কিছু সুবিধা হয়তো পাব। ওই মাঠগুলোতে খেলা ও কোচিং করানোর কারণেও। তবে শেষ পর্যন্ত ব্যাটে-বলে ভালো করতে হবে ক্রিকেটারদেরই।

আয়ারল্যান্ডে বাড়তি বোলার নিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রসঙ্গে...

দলে ছোটখাটো কিছু ইনজুরি সমস্যা আছে। রুবেলের সাইড স্ট্রেইন, মুস্তাফিজের অ্যাঙ্কেলের সমস্যা, সাইফউদ্দিন খেলছে ব্যথা পাওয়া এলবো নিয়ে। মাশরাফির কথাও কিছু বলা যায় না; ও তো খেলছেই। ইনজুরি থেকে প্রত্যাশিত গতিতে সেরে না উঠলে আয়ারল্যান্ডে বাড়তি কাউকে নিয়ে যেতে পারি। তবে এখন পর্যন্ত সবাই সেরে ওঠার প্রক্রিয়ায় আছে।

বাইরের বিষয়ে ক্রিকেটারদের মনোযোগ সরে যাওয়া নিয়ে...

ওরা সবাই প্রাপ্তবয়স্ক। সবাইকে বুঝতে হবে, ভালো করাটা ওদের দায়িত্ব। মাঠের বাইরের বিষয় নিয়ে সিনিয়র ক্রিকেটারদের সাহায্যের প্রয়োজন হবে জুনিয়রদের।

২০১৫ বিশ্বকাপে এমন ঘটনায় তামিম ইকবালের মনোযোগ সরে যাওয়া প্রসঙ্গে...

তামিম দারুণ পেশাদার। ও জানে, আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সাফল্যের জন্য কী করা প্রয়োজন। ডিপিএল না খেলে তিন-চার সপ্তাহের বিশ্রাম নিয়েছে ও। কারণ এই সতেজ থাকার গুরুত্ব বুঝতে পেরেছে। তামিম এমন এক ক্রিকেটার, যার ওপর আমি ভরসা করি, যার মতামত শুনতে চাই সব সময়। তামিম সবার জন্য এক উদাহরণ; ওর প্রতি আমার অনেক শ্রদ্ধা। দুর্দান্ত ক্রিকেটার, দারুণ পেশাদার।

মন্তব্য