kalerkantho

সোমবার। ২৭ মে ২০১৯। ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ২১ রমজান ১৪৪০

কোহলিদের নিয়ে আশাবাদী কপিল

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভারত ১৯৮৭ বিশ্বকাপ জিতেছিল কপিল দেবের হাত ধরে। এরপর মহেন্দ্র সিং ধোনি ২০১১ সালে ওয়ানডে শ্রেষ্ঠত্বের শিরোপা এনে দিয়েছেন আরো একবার। এর আগে ২০০৭ টি-টোয়েন্টির আরো একটি বৈশ্বিক শিরোপাও জিতিয়েছিলেন ধোনি। ৩৮ বছর ছুঁই ছুঁই এই তারকাকে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের আগে শুভ কামনা জানালেন কপিল দেব। শেষ বিশ্বকাপটা ধোনি জিতবেন বলে আশাবাদী এই কিংবদন্তি, ‘কেউ জানে না ও আর কত দিন ক্রিকেট খেলবে। তবে এটা নিশ্চিত, ধোনির মতো দেশের সেবা করা আর কোনো ক্রিকেটার নেই। আমাদের ওকে শ্রদ্ধা করা উচিত। আশা করছি এই বিশ্বকাপটাও জিতবে ও।’

এবারের বিশ্বকাপে হট ফেভারিট ইংল্যান্ড ও ভারত। অস্ট্রেলিয়াও হেলাফেলার দল নয়। তাই বিশ্বকাপ শিরোপা জেতাটা যে সহজ হবে না—কোহলিদের স্মরণ করিয়ে দিলেন কপিল, ‘ভারতের এই দলটি বেশ ভালো। তবে এটা সহজ নয় (বিশ্বকাপ জয়)। ওদের একটা দল হয়ে খেলতে হবে। আশা করছি কেউ চোট পেয়ে বসবে না। যদি ভাগ্যের কিছুটা সহযোগিতা পায়, তাহলে অবশ্যই শিরোপা জিতবে ওরা।’

বিশ্বকাপ জিততে ভারতীয় নির্বাচকরা আস্থা রেখেছেন অভিজ্ঞদের ওপর। তাই মহেন্দ্র সিং ধোনি ও দীনেশ কার্তিককে রেখে বাদ দেওয়া হয়েছে ঋষভ পান্টকে। এটাই মানতে পারছেন না অস্ট্রেলিয়ান সাবেক অধিনায়ক ও আইপিএলে দিল্লির মেন্টর রিকি পন্টিং। গত পরশু রাজস্থানের বিপক্ষে ৩৬ বলে ৭৮ রানের বিধ্বংসী ইনিংসে দিল্লিকে জয় এনে দিয়েছেন এই তরুণ। বিশ্বকাপে পান্টকে না রাখাটাকে ভুল সিদ্ধান্তই মানছেন পন্টিং, ‘আমি জানি বিশ্বকাপে সুযোগ না পেয়ে কতটা হতাশ পান্ট। আমার মতে, ওকে বাদ দেওয়াটা ভারতীয় নির্বাচকদের ভুল সিদ্ধান্ত। ইংলিশ কন্ডিশনে মিডল অর্ডারে প্রতিপক্ষের জন্য আতঙ্ক হতে পারত পান্ট। তবে ওর বয়স কম। আশা করছি এই ফিটনেস আর ছন্দ ধরে রাখতে পারলে আগামী তিন-চারটি বিশ্বকাপ খেলতে পারবে ও।’

ইংল্যান্ডে যেতে না পেরে হতাশ পান্ট নিজেও। সেই হতাশাটা লুকালেন না তিনি। রাজস্থানের ১৯১ রান তাড়া করে দিল্লিকে ৬ উইকেটে জয় এনে দেওয়ার পর জানালেন, ‘মিথ্যা বলব না, দল থেকে বাদ পড়াটা মাথায় ঘুরছিল। এভাবে ব্যাট করতে পেরে আমি খুশি। দলকে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে জয় এনে দেওয়া সন্তুষ্টির।’ পিটিআই

মন্তব্য