kalerkantho


পিএসজির ৯ গোল

২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



শনিবার ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে উলভস-লিস্টার ম্যাচে হয়েছিল ৭ গোল, লিভারপুল-ক্রিস্টাল প্যালেস ম্যাচেও তা-ই। ইংলিশ চ্যানেলের ওপারে, প্যারিসে হলো ৯ গোল। তাও একটা দলের বিপক্ষেই! ফরাসি লিগের ম্যাচে গুইনগ্যাম্পের বিপক্ষে গোল উৎসব করেছে প্যারিস সেন্ত জার্মেই। হ্যাটট্রিক করেছেন কিলিয়ান এমবাপ্পে ও এদিনসন কাভানি দুজনই।

ফ্রান্সের উত্তর-পশ্চিমের একটা ছোট্ট জনপদ গুইনগ্যাম্প। লোকসংখ্যা মাত্র আট হাজার। ছোট্ট জনপদ হলেও তাদের ফুটবল দলটি বেশ কয়েক মৌসুম ধরেই খেলছে ফ্রান্সের সর্বোচ্চ লিগে। তবে ধারে-ভারে কোনো দিকেই তারা প্যারিসবাসীর কাছাকাছি নয়, বাজেটে তো নয়ই! পয়েন্ট টেবিলে অবস্থান আর স্কোরলাইনের ব্যবধানের চেয়ে বিত্ত-সামর্থ্যের ব্যবধানটা আরো বেশি। এমন প্রতিপক্ষের প্রতিরোধ ভেঙে গোল উৎসব করলেন পিএসজির তারকারা। ১২ মিনিটে প্রথম গোলটা করেন নেইমার, ৩৮ ও ৪৫ মিনিটে দুটো গোল কিলিয়ান এমবাপ্পের। গুইনগ্যাম্পের গোলরক্ষকের ওপর ধকলটা বেশি গেছে দ্বিতীয়ার্ধে। নতুন করে খেলা শুরুর পরই ঝটপট দুটো গোল করে ফেলেন কাভানি। এরপর নেইমার, তারপর আবার গোল করে হ্যাটট্রিক পূরণ কাভানির। ৮০ মিনিটে হ্যাটট্রিক পূরণ করে ফেলেন এমবাপ্পেও। শেষ গোলটা ৮৩ মিনিটে, থমাস মুনিয়েরের। সব মিলিয়ে ৯০ মিনিটে ৯ গোল গুইনগ্যাম্পের জালে।

কিছুদিন আগেই শীর্ষস্থানীয় দলই ছিল মোনাকো। কোচ হয়েছেন থিয়েরি অঁরি, যোগ দিয়েছেন সেস্ক ফাব্রেগাস। তাই বলে নিজের মাঠে ৫-১ গোলে হার! তাও স্ট্রসবার্গের কাছে। এমনটাই হয়েছে। ফালকাও একটা গোল করেছেন বটে; কিন্তু অঁরির দলকে হজম করতে হয়েছে ৫ গোল। মোনাকো লুটোপুটি খাচ্ছে পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে, একদম নিচে থাকা গুইনগ্যাম্পের ওপরে।

ইতালিয়ান সিরি ‘এ’তে রোমা ৩-২ গোলে হারিয়েছে তোরিনোকে, উদিনেস ২-১ গোলে হেরেছে পারমার কাছে আর ইন্টার মিলান গোলশূন্য ড্র করেছে সাসুউলোর সঙ্গে। বুন্দেসলিগায় বায়ার্ন জিতে নিজেদের কাজটা করে রেখেছিল; কিন্তু আরবি লিপজিগ থামাতে পারেনি বরুশিয়া ডর্টমুন্ডকে। অ্যাক্সেল উইটসেলের একমাত্র গোলে ডর্টমুন্ড ১-০ গোলে হারিয়েছে লিপজিগকে, তাই ৬ পয়েন্টের ব্যবধান ধরে রেখে শীর্ষে তারাই।

লা লিগায় রিয়াল মাদ্রিদ ২-০ গোলে জিতেছে সেভিয়ার বিপক্ষে, গোলের দেখা পেয়েছেন লুকা মডরিচ। অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদও ৩-০ গোলে হারিয়েছে হুয়েস্কাকে। স্কাই স্পোর্টস

 



মন্তব্য