kalerkantho

বুধবার । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

রাজাপক্ষের ব্যাটে শ্রীলঙ্কার চ্যালেঞ্জিং স্কোর; পাকিস্তান কি পারবে?

অনলাইন ডেস্ক   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ২১:৫১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রাজাপক্ষের ব্যাটে শ্রীলঙ্কার চ্যালেঞ্জিং স্কোর; পাকিস্তান কি পারবে?

ছবি : ক্রিকইনফো

টস জিতলেই ম্যাচ জয়―চলতি এশিয়া কাপে এটা যেন অলিখিত নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছিল। টানা চার ম্যাচ টস জেতা দাসুন শানাকা আজ আসল মঞ্চেই হেরে গেলেন। বাবর আজমের আহ্বানে ব্যাটিংয়ে নেমে পাকিস্তানের পেস আক্রমণে ভুগতে হয়েছে। ৫৮ রানে ৫ উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কা কিন্তু একবারও হাল ছাড়েনি।

বিজ্ঞাপন

আক্রমণাত্মক মানসিকতা বিসর্জন দেয়নি। তাইতো পরবর্তী সময়ে রাজপাক্ষে-হাসারাঙ্গাদের দাপুটে ব্যাটিংয়ে লঙ্কানদের সংগ্রহ দাঁড়িয়েছে ৬ উইকেটে ১৭০ রান।

দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনালে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় শ্রীলঙ্কা। নাসিম শাহর করা ইনিংসের প্রথম ওভারের তৃতীয় বলেই ‘গোল্ডেন ডাক’ মেরে ফেরেন দারুণ ফর্মে থাকা কুশল মেন্ডিস (০)। ২ রানে প্রথম উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা। এরপর উইকেটে এসে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা শুরু করেন পাল্টা আক্রমণ। শ্রীলঙ্কার বিপদ আরো বাড়ে দলীয় ২৩ রানে হারিস রউফের বলে অপর ওপেনার পাথুম নিশাঙ্কার বিদায়ে। ১১ বলে ৮ রান করে বাবর আজমের তালুবন্দি হন নিশাঙ্কা। পরবর্তী ব্যাটার দানুশকা গুনাথিলাকা এসে টিকতে পারেননি। ৪ বলে ১ রান করে হারিস রউফের বলে বোল্ড হয়ে যান।

৩৬ রানে ৩ উইকেট পড়লেও অন্য প্রান্তে আগ্রাসী ছিলেন ধনাঞ্জয়া। পাওয়ারপ্লেতে আসে ৪২ রান। দলীয় ৫৩ রানে ইফতেখার আহমেদ কট অ্যান্ড বোল্ড করে দেন ধনাঞ্জয়াকে। ২১ বলে ৪ বাউন্ডারিতে ধনাঞ্জয়া করেন ২৮ রান। দলীয় ৫৮ রানে শ্রীলঙ্কার ইনিংসের অর্ধেক শেষ হয়। শাদাব খানের বলে বোল্ড হয়ে যান লঙ্কান অধিনায়ক দাসুন শানাকা। তার সংগ্রহ ৩ বলে ২ রান। ওই অবস্থা থেকে ফের পাল্টা আক্রমণ শুরু করেন হাসারাঙ্গা এবং ভানুকা রাজপাক্ষে। দুজনে ষষ্ঠ উইকেটে গড়েন ৩৫ বলে ৫৮ রানের দারুণ এক জুটি। ২১ বলে ৫ চার ১ ছক্কায় ৩৬ রান করা হাসারাঙ্গা ডি সিলভাকে উইকেটকিপার রিজওয়ানের তালুবন্দি করে এই জুটি ভাঙেন হারিস রউফ।

এক প্রান্তে অবিচল ভানুকা রাজাপক্ষে ৩৫ বলে তুলে নেন ক্যারিয়ারের তৃতীয় ফিফটি। হাসনাইনের করা ১৯তম ওভারের শেষ বলে দুই ফিল্ডার আসিফ আলী আর শাদাব খান একসঙ্গে ক্যাচ নিতে গিয়ে উল্টো ছক্কা বানিয়ে দেন। মাথা ও ঘাড়ে প্রচণ্ড আঘাত পাওয়া শাদাবকে বেশ কিছুক্ষণ মাঠেই চিকিৎসা নিতে হয়েছে। নাসিম শাহর করা শেষ ওভারে আসে ১৫ রান। ৪৫ বলে ৬ চার ৩ ছক্কায় ৭১* রানে অপরাজিত থাকেন রাজাপক্ষে। তার সঙ্গী চামিকা করুণারত্নে ১৪ বলে ১৪ রানে অপরাজিত থাকেন। অবিচ্ছিন্ন সপ্তম উইকেট জুটিতে আসে ৩১ বলে ৫৪* রান। ২৯ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন হারিস রউফ।  



সাতদিনের সেরা