kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ছিটকে গেলেন নাদালও

অনলাইন ডেস্ক   

৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৮:৩৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ছিটকে গেলেন নাদালও

তারকা পতন চলছেই ইউএস ওপেনে। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন দানিল মেদভেদেভের পর অঘটনের শিকার হয়ে শেষ ষোলো থেকে বাড়ি ফিরতে হচ্ছে চারবারের জয়ী রাফায়েল নাদালকেও। চার সেটের থ্রিলারে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্রান্সেস টিয়াফোর কাছে ৩-১ সেটে হেরে গেছেন স্প্যানিয়ার্ড তারকা। ২০১৬ সালের পর এই প্রথম ইউএস ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিলেন ২২ বারের গ্র্যান্ড স্লাম জয়ী নাদাল।

বিজ্ঞাপন

চোট ভোগালেও ২০২২ সাল দ্বিতীয় বাছাই নাদালের জন্য সাফল্যমণ্ডিত একটি বছর। অস্ট্রেলিয়ান ওপেন ও ফ্রেঞ্চ ওপেন জয়ের পর সেমিফাইনালে উঠেছিলেন উইম্বলডনেও। কিন্তু চোটের জন্য অল ইংল্যান্ড ক্লাবে শেষ চারের ম্যাচ থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলেন স্প্যানিয়ার্ড তারকা। শিগগিরই হয়তো প্রতিযোগিতামূলক টেনিসে দেখা যাবে না নাদালকে, ‘কিছু বিষয় আমাকে ঠিক করতে হবে। জানি না আবার কবে খেলায় ফিরব। নিজেকে মানসিকভাবে তৈরি করার চেষ্টা করব আগে। যখন মনে করব আমি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য প্রস্তুত তখন ফিরে আসব। ’

প্রথমবার বাবা হতে যাচ্ছেন নাদাল। এই মুহূর্তে এ বিষয়টিই শুধু তাঁর ভাবনায়, ‘এখন আমি বাড়ি যাব এবং টেনিসের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ কাজ করতে হবে আমাকে। ব্যক্তিজীবনে কী ঘটবে তার ওপর নির্ভর করবে কোর্টে ফেরার সিদ্ধান্ত। পেশাদার ক্যারিয়ারেরও আগে ব্যক্তিজীবন!’ আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর লন্ডনে শুরু লেভার কাপে খেলার কথা নাদালের। নভেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য মৌসুম শেষের আসর এটিপি ট্যুর ফাইনালসে খেলার টিকিটও ইতিমধ্যে পেয়ে গেছেন স্প্যানিয়ার্ড তারকা।

নাদালের বিপক্ষে প্রথমবার জিততে ১৮টি এইসের পাশাপাশি ৪৯টি উইনার্স করেছেন বিগ হিটারের জন্য বিখ্যাত ষোড়শ বাছাই টিয়াফো। ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বার গ্র্যান্ড স্লামের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে যেন স্বপ্নের ঘোরে আছেন যুক্তরাষ্ট্রের এই তারকা, ‘এখন কী বলা উচিত আমি জানি না। আমি খুব খুশি। নাদাল সর্বকালের সেরাদের একজন। সত্যি আজ অবিশ্বাস্য টেনিস খেলেছি আমি। বিশেষ কিছু ঘটেছে আজ। ’ ২৪ বছরের টিয়াফো শেষ আটে খেলবেন আন্দ্রে রুবলেভের বিপক্ষে।

কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছেন কার্লো আলকারাজও। পাঁচ সেটের থ্রিলারে ১৯ বছরের এই স্প্যানিয়ার্ড তরুণ ৩-২ সেটে হারিয়ে দিয়েছেন ২০১৪ সালের চ্যাম্পিয়ন মারিন সিলিচকে। মাত্র তিন মিনিটের জন্য ফ্লাশিং মিডোয় সবচেয়ে দেরিতে শেষ হওয়া ম্যাচের রেকর্ড ভাঙতে পারেনি আলকারাজ ও সিলিচের এই মহকাব্যিক এই ম্যাচ। নাদাল ও মেদভেদেভের বিদায়ে শিরোপা জয়ে এখন অন্যতম ফেভারিট আলকারাজ। সিলিচের বিপক্ষে ঘাম ঝরানো জয়ের পর বলছিলেন, ‘ম্যাচটি খুব কঠিন ছিল, তবে আমার নিজের ওপর বিশ্বাসও ছিল। চতুর্থ সেট হারের পর ম্যাচে ফেরা মোটেও সহজ ছিল না। ’ সেমিফাইনালে আলকারাজের প্রতিপক্ষ ইতালির ইয়ানিক সিন্নার। এএফপি 



সাতদিনের সেরা