kalerkantho

রবিবার । ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১০ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২৮ সফর ১৪৪৪

সাফের জন্য মেয়েরা প্রস্তুত: ছোটন

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

১ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ২০:৫৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সাফের জন্য মেয়েরা প্রস্তুত: ছোটন

ছবি : মীর ফরিদ

গত জুনে মালয়েশিয়ার বিপক্ষে দুটি ম্যাচের পর আর কোনো ম্যাচ খেলেনি বাংলাদেশের মেয়েরা। ম্যাচ আয়োজনের চেষ্টা চালিয়েও প্রতিপক্ষ খুঁজে পায়নি বাফুফে। প্রস্তুতি ম্যাচ না খেলায় নিজেদের শক্তি-দুর্বলতা চিহ্নিত না করেই সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ দল। অবশ্য টানা অনুশীলনের মধ্যে ছিল মেয়েরা।

বিজ্ঞাপন

তাই নেপালে উড়াল দেওয়ার আগে দলের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন বললেন, সাফের জন্য প্রস্তুত মেয়েরা।  

আগামী ৬ থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নেপালের কাঠমান্ডুতে হবে নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ। এবারের সাফে অংশ নিচ্ছে সাতটি দেশ। 'এ' গ্রুপে বাংলাদেশের মেয়েরা খেলবে ভারত, মালদ্বীপ ও পাকিস্তানের বিপক্ষে। 'বি' গ্রুপে আছে নেপাল, শ্রীলঙ্কা ও ভুটান। দুই গ্রুপের শীর্ষ চার দল লড়বে সেমিফাইনালে। নারী সাফের পাঁচ আসরেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ভারত। ২০১৬ সালে একবারই ফাইনাল খেলেছিল বাংলাদেশের মেয়েরা; কিন্তু ভারতের কাছে হেরে শিরোপা স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছিল সাবিনাদের। সবশেষ ২০১৯ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ১৫ ফুটবলার আছেন এবারের স্কোয়াডে।

সাফের আগে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার সুযোগ না পেলেও টানা অনুশীলনের কারণে নিজেদের সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নেওয়ার কথা জানালেন কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ মালদ্বীপ। এই ম্যাচের জন্য মেয়েরা প্রস্তুত বলছেন ছোটন,'সূচি ঘোষণার পর ৬ সপ্তাহ অনুশীলন করেছি। মেয়েরা মাঠে এবং জিমে কঠিন অনুশীলনের মধ্যে ছিল। প্রতিদিন তাদের যে হার্ড ওয়ার্কের রুটিন ছিল, সেটা পালন করেছে। মালয়েশিয়ার বিপক্ষে (গত জুনে) যে দুইটা ম্যাচ আমরা খেলেছিলাম, সেখানে আমাদের যে শক্তি-দুর্বলতা তা নিয়ে মূলত কাজ করেছি। আমি মনে করি, মেয়েরা এই টুর্নামেন্টের জন্য তৈরি। প্রথম ম্যাচ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম ম্যাচের জন্য তারা প্রস্তুত আছে। আশা করি জয় দিয়ে প্রথম ম্যাচ শুরু করব। সেমিফাইনালে খেলতে হলে শুরুর দুই ম্যাচ গুরুত্বপূর্ণ। এই দুই ম্যাচে আমরা আপাতত মনোযোগ দিচ্ছি। যখন আমরা সেমিতে যাব, সেটা নিয়ে তো আমাদের পরিকল্পনা আছেই, সেটা পুরোপুরি বাস্তবায়ন করব। ট্রেনিংয়েও আমাদের সেটা নিয়ে কাজ হয়েছে। আপাতত আমরা মালদ্বীপ ও পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে কাজ করছি। '

গত জুনে র‍্যাংকিংয়ে এগিয়ে থাকা মালয়েশিয়াকে ৬-০ ব্যবধানে উড়িয়ে দেয় বাংলাদেশ। এরপর আর ম্যাচ খেলা হয়নি বাংলাদেশের। তাই প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে আরব আমিরাতের সঙ্গে কথা-বার্তা এগিয়েও শেষ পর্যন্ত তারা বাংলাদেশে আসতে রাজি হয়নি। পরবর্তীতে ইন্দোনেশিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করেও ম্যাচ আয়োজন সম্ভব হয়নি। সাফের আগে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে পারলে প্রস্তুতি আরো ভালভাবে নেওয়া যেত বলছেন ছোটন,'প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে পারলে ভালো হতো, যেহেতু এর আগে মালয়েশিয়ার বিপক্ষে খেলেছিলাম, সেই অভিজ্ঞতা ছিল, যদি আরব আমিরাতে বিপক্ষে খেলতে পারতাম, তাহলে অবশ্যই অনেক ভালো হতো। '



সাতদিনের সেরা