kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১১ আগস্ট ২০২২ । ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১২ মহররম ১৪৪৪

'ওয়াকারের সঙ্গে মতভেদ ছিল'―মুখ খুললেন আকরাম!

অনলাইন ডেস্ক   

২৭ জুন, ২০২২ ২২:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'ওয়াকারের সঙ্গে মতভেদ ছিল'―মুখ খুললেন আকরাম!

বিশ্বক্রিকেটের অন্যতম ভয়ংকর বোলিং জুটি ছিলেন পাকিস্তানের ওয়াসিম আকরাম ও ওয়াকার ইউনিস। ১৯৯০ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কোর্টনি ওয়ালশ ও কার্টলি অ্যামব্রোস, দক্ষিণ আফ্রিকার অ্যালান ডোনাল্ড ও শন পোলক এবং অস্ট্রেলিয়ার গ্লেন ম্যাকগ্রা ও ডেমিয়েন মার্টিনের জুটিও ওয়াসিম আকরাম ও ওয়াকার ইউনিসের মতো বিপজ্জনক ছিলেন না। মজার ব্যাপার হলো, প্রথমদিকে দুজনের মধ্যে দারুণ বন্ধুত্ব থাকলেও পরে তা বিবাদে রূপ নেয়।

নির্দিষ্ট করে বলতে গেলে, ১৯৯৯ সাল থেকে ওয়াসিম-ওয়াকারের বিবাদ শুরু হয়।

বিজ্ঞাপন

তখন দুই খেলোয়াড়ের মধ্যে ফাটল নিয়ে অনেক গল্পই উঠে এসেছে। ২০০৭ সালে ওয়াসিম আকরাম নিজেই বলেছিলেন, একটা সময় ছিল যখন তিনি ও ওয়াকার ইউনিস মাঠে এবং মাঠের বাইরে কথা বলতেন না। তার মতে, দুজনের মাঝে সব সময় শীতল লড়াই চলত। ওয়াসিম লড়াইটিকে স্বাস্থ্যকর এবং প্রতিযোগিতামূলক বলে অভিহিত করেছেন। যা পাকিস্তান ক্রিকেটকে উপকৃত করেছে।

একটি টিভি অনুষ্ঠানে ওয়াসিম আকরাম বলেন, ‘আমাদের মধ্যে মতভেদ ছিল।  বয়স যখন ২৩-২৪, ওই সময় এমনটা হয়ে থাকে। কিন্তু আমাদের মধ্যে সব সময়ই সুস্থ প্রতিযোগিতা ছিল। আমরা কখনোই একে অপরের খারাপ চাইনি। আমরা দ্বিতীয় উইকেট নিতে চাইনি। আসলে কেউ ৫ উইকেট নিলে অন্যজন বলত আমিও ৫ উইকেট নিতে চাই। তাই সব সময় একটি সুস্থ প্রতিযোগিতা ছিল। মাঝে মাঝে মেজাজ খারাপ হবে। এটা সতীর্থদের কারণে হতে পারে। কখনো একজনের প্রশংসা করত, কখনো অন্যের। '

উল্লেখ্য, পাকিস্তানি স্পিডস্টার শোয়েব আখতার তার জীবনী ‘কন্ট্রোভারসিলি ইয়োরস’-এ লিখেছেন, 'ওয়াসিম আকরাম ও ওয়াকার ইউনিসের মধ্যে পার্থক্য ১৯৯৯ সালে চরমে পৌঁছে যায়। আমরা দিল্লি টেস্ট হেরেছি। এ নিয়ে ওয়াসিম ও ওয়াকারের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। বিষয়টি অনেক দূর গড়ায় এবং গুজব ছড়াতে থাকে যে ওয়াকারকে পাকিস্তানে ফেরত পাঠানো হবে। ড্রেসিংরুমের পরিবেশের অবনতি ঘটে। আমরা তরুণ ছিলাম, আমাদের দল নতুন ছিল। সবাই তখন মানসিক চাপে ছিল। '

তবে এখন এই বয়সে এসে দুজনই খোলোয়াড়ি জীবনের সেই বিরোধ মিটিয়ে ফেলেছেন। তাদের দুজনকে একসঙ্গে টিভি অনুষ্ঠানেও দেখা গেছে।


এই রকম আরো খবর


সাতদিনের সেরা