kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

বৃষ্টির আগে পরের সাকিব-এবাদত

সাইদুজ্জামান    

২৬ মে, ২০২২ ০২:৩৯ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বৃষ্টির আগে পরের সাকিব-এবাদত

দিন শেষে মাঠ ছাড়ছেন এবাদত ও সাকিব। ছবি : মীর ফরিদ

দ্বিতীয় মেয়াদে আসা জেমি সিডন্সের চোখে সবচেয়ে বড় পরিবর্তন ধরা পড়েছে বাংলাদেশি পেসারদের উন্নতি। গতকাল ঢাকা টেস্টের তৃতীয় দিনের খেলা শেষে পেস বোলিং কোচ অ্যালান ডোনাল্ডও প্রশংসায় ভাসিয়েছেন এবাদত হোসেনকে। তবে বৃষ্টিবিঘ্নিত দিনে দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক ফাস্ট বোলারের বিস্ময় সাকিব আল হাসানকে ঘিরে।

একরকম বিনা প্রস্তুতিতে নেমে টানা দ্বিতীয় টেস্টে তাঁর বুদ্ধিদীপ্ত বোলিং পুরনো ধারণা নতুন করে সামনে এনেছে—ফিটনেস নির্ধারণ করবেন ট্রেনাররাই।

বিজ্ঞাপন

তবে ম্যাচ ফিটনেস সংশ্লিষ্ট ক্রিকেটারের উপলব্ধির ওপরই নির্ভরশীল। সাকিব স্বঘোষিত ম্যাচ ফিটনেস নিয়েই বোলিংয়ে নেতৃত্ব দিচ্ছেন বাংলাদেশকে।

সাকিবের সমবয়সী এক শ্রীলঙ্কানের ফিটনেস নিয়েও মাঝেমধ্যে প্রশ্ন উঠেছে। যথেষ্ট ফিট নন, এই অভিযোগে দল থেকে বাদও পড়েছিলেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ। পঁয়ত্রিশের তিনি স্বভাবতই ক্যারিয়ার শুরুর সময়কার মতো ক্ষিপ্র নন আউটফিল্ডে। তবে সাড়ে ৯ ঘণ্টা ব্যাটিং করতে পারেন এখনো, চট্টগ্রামে করে দেখিয়েছেন। ঢাকায় ম্যাচের লাগাম যে সফরকারীদের হাতছাড়া হয়নি, সেটিও ম্যাথুজের কারণে। সকালে জোড়া আঘাতের চোট মনঃসংযোগে ব্যাঘাত ঘটায়নি শ্রীলঙ্কার সাবেক অধিনায়কের। ৫৮ রানে অপরাজিত আছেন ম্যাথুজ, সঙ্গী শেষ স্বীকৃত ব্যাটার দীনেশ চান্দিমাল। তাতে ৫ উইকেট হাতে নিয়ে প্রথম ইনিংসে ৮৩ রানের ঘাটতি পুষিয়ে ফেলার আশা আজ করতেই পারে শ্রীলঙ্কা।

অবশ্য এই আশা বৃষ্টিতে ভেসেও যেতে পারে। আবহাওয়ার পূর্বাভাসে গতকালের চেয়েও আজ এবং কাল বেশি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনার কথা বলা হয়েছে। আবহাওয়ার পূর্বাভাস প্রায়ই ভুল হয়। এটাও যেন ভুল হয়। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আকর্ষণের পাপড়ি মেলতে থাকা ঢাকা টেস্ট প্রকৃতির কাছে এতটুকু আনুকূল্য দাবি করতেই পারে!

গতকাল অবশ্য পূর্বাভাস মেনে বৃষ্টি হয়েছে, ভেসে গেছে পুরো একটি সেশন। তাতে ক্ষতি যা হয়েছে, তা বাংলাদেশের। দিনের দ্বিতীয় বলেই নাইটওয়াচম্যান কাসুন রাজিথার স্টাম্প উপড়ে ফেলেন এবাদত। দুই দলের প্রথম ইনিংসের ব্যবধান আর ২০ রান কমতেই যেভাবে দিমুথ করুনারত্নেকে ফাঁদে ফেলেছেন সাকিব, তা নিয়ে আলাদা একটা প্যারা লেখা যায়। তৃতীয় দিনে নিজের পঞ্চম ওভারে পর পর একটু জোরের ওপর বল করে শেষটা ঝুলিয়ে দিয়ে লঙ্কান অধিনায়ককে ড্রাইভ খেলায় প্রলুব্ধ করেন সাকিব। করুনারত্নে সেই ফাঁদে পা দিয়ে ড্রাইভও খেলেছিলেন। কিন্তু বাড়তি ফ্লাইট পাওয়া বল টার্ন করে তাঁর ব্যাট-প্যাডের ফাঁক গলে আঘাত হানে স্টাম্পে। ফাঁদে পড়ে আউট হওয়া করুনারত্নে সীমানাদড়ি পেরিয়েই গ্লাভস আর হেলমেট ছুড়ে ফেলেন হতাশায়। ওদিকে নতুন করে আশায় বুক বেঁধেছে বাংলাদেশ। আর দুটি উইকেট নিতে পারলেই তো প্রথম ইনিংসে বড় ব্যবধানে এগিয়ে থাকার পথ ফাঁকা হয়ে যাবে।

কিন্তু বিধি বাম। দ্রুত জোড়া আঘাতের পর যে চাপ প্রতিপক্ষের ওপর অব্যাহত রাখা জরুরি ছিল, সেটি পারেননি বাংলাদেশের বোলাররা। সকালে এবং বিকেলে দুর্দান্ত দুটি স্পেল করা এবাদত বাউন্ডারি বল দিয়েছেন, নতুন বলে তাঁর সঙ্গী খালেদ আহমেদও ব্যতিক্রম কিছু ঘটাতে পারেননি। চট্টগ্রামের মতো ঢাকায়ও ম্যাথুজ নোঙর গেড়ে বসেন ক্রিজে। রান রেটের ব্যাপারটা সামাল দিয়েছেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। এর মধ্যে মুষলধারের বৃষ্টি একটি সেশনের সঙ্গে বাংলাদেশের মোমেন্টামটাও ধুয়ে নিয়ে যায়।

বৃষ্টির পরের দুই ঘণ্টায় প্রবলভাবে ম্যাচে ফিরেছে সফরকারীরা। নেতৃত্বে ম্যাথুজ। রানের ঘোড়া ছোটানো ধনঞ্জয়া ডি সিলভাকে ফিরিয়ে কিছুটা স্বস্তি ফিরিয়েছেন সাকিব। এই স্বস্তিতে বাংলাদেশের অন্য একটা অস্বস্তিও মুছে গিয়ে থাকতে পারে! ডিফেন্স করতে গিয়ে ধনঞ্জয়াকে পরাস্ত হতে দেখেও কট বিহাইন্ডের আবেদন করেননি সাকিব। ব্যাটে-বলে হওয়ার ব্যাপারে উইকেটরক্ষক লিটন দাসও নিশ্চিত নন। তবে সিলিতে দাঁড়ানো মাহমুদুল হাসান জয়ের পীড়াপীড়িতে ‘রিভিউ’ নিয়েছে বাংলাদেশ এবং জিতেছেও। এই সাফল্য আজ, চতুর্থ দিনের সকালের আকর্ষণ আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। এমনিতে ঢাকায় টেস্ট ম্যাচের গতিপথ অন্তত তৃতীয় দিনে একরকম নির্ধারিত হয়ে যায়। কিন্তু এবারের অপেক্ষা চতুর্থ দিনে গড়িয়েছে। টেস্ট ক্রিকেটের দারুণ বিজ্ঞাপন হয়ে উঠছে, যার পেছনে মিরপুরের কিউরেটরের অবদানও দেখছেন বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ অ্যালান ডোনাল্ড। তৃতীয় দিনেও উইকেট ভেঙে চুরমার হয়নি। তবে বাংলাদেশের জন্য আশার কথা, স্পিনাররা টার্ন পেতে শুরু করেছেন। শেষ দুই দিনে আরো বেশি স্পিনবান্ধব হওয়ার কথা। তাতে চতুর্থ ইনিংসে সাকিব ও তাইজুল ইসলামের ওপর বাজি ধরতেই পারে বাংলাদেশ দল।

তার আগে অবশ্য অনেক কাজ বাকি মমিনুল হকদের। শেষের আগে বাকি দেড় ইনিংসেও কর্তৃত্ব ধরে রাখতে হবে। দেড় ইনিংস মানে শ্রীলঙ্কার প্রথম ইনিংসের বাকি ৫ উইকেট ও মমিনুলদের নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংস। আরেকটা শর্ত আছে, আবহাওয়ার পূর্বাভাস ভুল হতে হবে!



সাতদিনের সেরা