kalerkantho

শনিবার । ২ জুলাই ২০২২ । ১৮ আষাঢ় ১৪২৯ । ২ জিলহজ ১৪৪৩

শুরুর বিভীষিকা কাটিয়ে মিরপুরে সেঞ্চুরির উৎসব

অনলাইন ডেস্ক   

২৩ মে, ২০২২ ১৭:৪৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শুরুর বিভীষিকা কাটিয়ে মিরপুরে সেঞ্চুরির উৎসব

দিনশেষে হাসিমুখেই মাঠ ছেড়েছেন মুশফিক-লিটন। ছবি : কালের কণ্ঠ

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে বাংলাদেশের শুরুটা হয়েছিল বিভীষিকাময়। প্রথম ওভার থেকেই উইকেট পতনের শুরু, দলীয় ২৪ রানে নেই ৫ উইকেট! এই পাঁচজনের তিন জনই 'ডাক' মেরেছেন। সাকিব আবার 'গোল্ডেন ডাক'। সবাই যখন দলের অল্প রানে গুটিয়ে যাওয়ার আশংকা করছিল, তখন ধ্বসংস্তুপে দাঁড়িয়ে প্রতিরোধ গড়েন মুশফিকুর রহিম আর লিটন কুমার দাস।

বিজ্ঞাপন

ফর্মের তুঙ্গে থাকা এই দুই ক্রিকেটার তুলে নেন সেঞ্চুরি। গুটিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে উড়তে থাকে বাংলাদেশ। ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনও তাই শেষ হয়েছে ৫ উইকেটে ২৭৭ রান তুলে।  

টস জিতে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশি ব্যাটাররা আউট হওয়ার মিছিল শুরু করে দেন! স্কোরবোর্ডে কোনো রান যোগ হওয়ার আগেই কাসুন রাজিথার করা প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলে 'ডাক' মারেন মাহমুদুল হাসান জয়। নাজমুল হোসেন শান্ত এসে একটি বাউন্ডারি মেরে ভিন্ন কিছুর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। কিন্তু পরের ওভারেই আসিথা ফার্নান্দোর বলে 'ডাক' মারেন আগের ম্যাচেই সেঞ্চুরি করা তামিম ইকবাল। অধিনায়ক মুমিনুল হক দলকে আবারও বিপদে ফেলেন আলাগা শট খেলে। ফার্নান্দোর দ্বিতীয় শিকার হন ৯ রান করে।  

৭ম ওভারে শান্তকে (৮) বোল্ড করে দেন রাজিথা। পরের বলেই সাকিব মারেন 'গোল্ডেন ডাক'। ২৪ রানে নেই পাঁচ উইকেট! যার মধ্যে তিনজনই 'ডাক' মেরেছেন। এরপর দলের হাল ধরেন মুশফিকুর রহিম আর লিটন দাস। দুজনের দুর্দান্ত জুটিতে এগিয়ে যেতে থাকে বাংলাদেশের স্কোর। দুজনেই সমানতালে ব্যাটিং করছিলেন। খারাপ সময় পার হওয়ার পর দর্শকদের আগ্রহের বিষয় হয়ে দাঁড়ায়, দুজনের মধ্যে কে আগে সেঞ্চুরি করেন? শেষ পর্যন্ত লিটনই আগে পৌঁছে যান তিন অংকে। হাঁকিয়েছেন ১৩টি বাউন্ডারি। সেঞ্চুরির পর দ্রুত রান তুলছিলেন লিটন।  

অন্যদিকে তিন অংকের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলেন মুশফিক। ক্যারিয়ারের ৯ম টেস্ট সেঞ্চুরি তুলে নিতে তার সময় লেগেছে ২১৮ বল, হাঁকিয়েছেন ১১টি বাউন্ডারি। দুজনের এই জুটি আর ভাঙতে পারেনি লঙ্কান বোলাররা। ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনে বাংলাদেশ শেষ করেছে ৫ উইকেটে ২৭৭ রান তুলে। মুশফিক ২৫২ বলে ১৩ চারে ১১৫* এবং লিটন দাসা ২২১ বলে ১৬ চারে ১৩৫* রানে অপরাজিত আছেন। তাদের বিশ্বরেকর্ড গড়া অবিচ্ছিন্ন ৬ষ্ঠ উইকেট জুটিতে এসে গেছে ২৫৩ রান। সকালের ধ্বংসযজ্ঞের নায়ক কাসুন রাজিথা ৪৩ রানে নিয়েছেন ৩ উইকেট। বাকি ২ উইকেট নিয়েছেন আসিথা ফার্নান্দো।



সাতদিনের সেরা