kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ মাঘ ১৪২৮। ২৫ জানুয়ারি ২০২২। ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

স্টোকসের ১২টি ’নো বল’ ধরতে পারেননি আম্পায়ার

অনলাইন ডেস্ক   

৯ ডিসেম্বর, ২০২১ ১৫:১৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্টোকসের ১২টি ’নো বল’ ধরতে পারেননি আম্পায়ার

ব্রিসবেনে অ্যাশেজের প্রথম টেস্টের প্রথম দিনে ১৪৭ রানে অলআউট হয় সফরকারী ইংল্যান্ড।  দ্বিতীয় দিনে ব্যাটিংয়ে নেমে দুর্দান্ত করেছে অস্ট্রেলিয়া। ৭ উইকেটে ৩৪৩ রানে দ্বিতীয় দিন শেষ করেছে তারা। এরই মধ্য ইংল্যান্ডের চেয়ে ১৯৬ রানে এগিয়ে গেছে অজিরা।

বিজ্ঞাপন

তবে দিনের আলোচ্য বিষয় এটি নয়, অন্য কিছু।

ম্যাচের দ্বিতীয় দিন আলোচিত ঘটনা ছিল বেন স্টোকসের ’নো বল কাণ্ড’। একবার-দুইবার নয়, নিজের প্রথম পাঁচ ওভারে ১৪টি ‘নো বল’ করেছেন স্টোকস। এর মধ্যে নিজের প্রথম ওভারের প্রথম চারটি বলই ছিল ওভার স্টেপ করা। সবমিলিয়ে এই ১৪ বলের মধ্যে মাত্র দুইটি ধরতে পেরেছেন মাঠের আম্পায়ার, ১২টিই ধরতে পারেননি।

অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসের ১৩তম ওভারে প্রথমবারের মতো আক্রমণে আসেন স্টোকস। ওভারের চতুর্থ বলে ওয়ার্নারকে আউট করে দেন তিনি। কিন্তু রিপ্লেতে দেখা যায়, সেই বলে ওভারস্টেপিং করেছেন স্টোকস। ফলে বেঁচে যান ওয়ার্নার। জীবন পেয়ে ৯৪ রানের ইনিংস খেলেন ওয়ার্নার।

চলতি অ্যাশেজের ব্রডকাস্টিং চ্যানেল সেভেন পরে জানিয়েছে, স্টোকসের প্রথম পাঁচ ওভারে ১৪টি ডেলিভারি ছিল ‘নো বল’। যেখানে ১২টিই ধরতে পারেননি আম্পায়ার। অথচ বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের নিয়মে স্পষ্ট উল্লেখ আছে, প্রতিটি ডেলিভারিতেই টিভি আম্পায়ার চেক করবেন, সেটি নো বল ছিল কি না।

কিন্তু ব্রিসবেনের গ্যাবায় চলতি টেস্ট শুরুর ঠিক আগে দিয়ে গোলযোগ দেখা দেয় ‘নো বল’ চেক করার মনিটরে। ফলে এই ম্যাচটিতে শুধু আউট হওয়ার বলই চেক করে দেখবেন থার্ড আম্পায়ার। যে কারণে ওয়ার্নারের আউটের বলটি চেক করলেও, সেই ওভারের আগের তিন বল চেক করা হয়নি। তাই বেঁচে যান স্টোকস।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে প্রথমবারের মতো ‘নো বল’ চেক করার জন্য টিভি আম্পায়ারকে আলাদা মনিটর দিয়ে ট্রায়াল করিয়েছিল আইসিসি। পরে গত বছর পাকিস্তান-ইংল্যান্ড সিরিজে প্রথমবারের মতো ব্যবহৃত হয় এই প্রযুক্তি। এর সফলতার কারণে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপেও অন্তর্ভুক্ত করা হয় ‘নো বল’ চেক করার নিয়ম।



সাতদিনের সেরা