kalerkantho

শনিবার । ১৫ মাঘ ১৪২৮। ২৯ জানুয়ারি ২০২২। ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

'ড্রেসিংরুমে সাকিবকে নিয়ে চিন্তার সুযোগ নেই'

অনলাইন ডেস্ক   

৫ ডিসেম্বর, ২০২১ ১৭:৩৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'ড্রেসিংরুমে সাকিবকে নিয়ে চিন্তার সুযোগ নেই'

ছবি : মীর ফরিদ

নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য দল ঘোষণার দিন গতকাল শনিবার জন্ম নিয়ে বড় নাটকীয়তার। গত কিছুদিন ধরেই শোনা যাচ্ছিল, সাকিব আল হাসান নিউজিল্যান্ড সফরে যাচ্ছেন না। গতকাল সাংবাদিকদের প্রশ্নে বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন বলেছিলেন, সাকিবের থেকে লিখিত কোনো আবেদন তারা পাননি। পাপনের সংবাদ সম্মেলনের পরপর দল ঘোষণা হয়।

বিজ্ঞাপন

এর ঘণ্টাখানেকের মাঝেই 'ব্যক্তিগত কারণ' দেখিয়ে নিউজিল্যান্ড সফর থেকে ছুটির লিখিত আবেদন করেন সাকিব।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভরাডুবি ও ঘরের মাঠে পাকিস্তানের কাছে নাকানি চুবানি খেয়ে দলের অবস্থা এমনিতেই নড়বড়ে। তাছাড়া নিউজিল্যান্ডে বাংলাদেশ টেস্ট জয় তো দূরের কথা, প্রায় প্রতিটি ম্যাচই বাজেভাবে হেরেছে। এবার সাকিবকে ছাড়া নিউজিল্যান্ড সফর নিঃসন্দেহে কঠিন হবে। আজ দিনের খেলা পরিত্যক্ত হওয়ার পর জাতীয় দলের ফিল্ডিং কোচ মিজানুর রহমান বাবুলকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, সাকিবের এই চিঠি ড্রেসিংরুমে কতটা প্রভাব ফেলেছে?

মিজানুর বলেন, 'এটা যার যার ব্যক্তিগত ব্যাপার। সাকিব যাবে কি যাবে না সেটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার, বোর্ডের ব্যাপার। ওই বিষয়গুলা আসলে দলে কোনো প্রভাব ফেলে না। কারণ অন্যরা নিজেদের পারফর্মেন্স নিয়ে চিন্তা করে, দলের পারফর্মেন্স নিয়ে চিন্তা করে। যে যাবে (সফরে) সে নিজের এবং দলের পারফর্মেন্স নিয়েই চিন্তা করে। তাই যদি কেউ না যায়, তাকে নিয়ে চিন্তা করার আসলে এখানে সুযোগ নেই। সাকিব বা অন্য ভালো ক্রিকেটাররা যদি সফরে যায়, তবে অবশ্যই দলের শক্তি বাড়ে। যদি না যায়, তাহলে যারা যাবে তাদের নিয়ে আমরা জেতার জন্যই যাব। '

তিনি আরও বলেন, 'আমরা যদি আগেই অন্য মানসিকতা নিয়ে বিদেশ সফরে যাই, তাহলে তো ভালো কিছু আনার প্রশ্নই আসে না। আমি বিশ্বকাপের পর যখন থেকে আসছি, তখন থেকেই ড্রেসিংরুমে ছেলেদের মোটিভেট করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। হয়তো আপনারা লক্ষ্য করেছেন যে, তাদের বডি ল্যাঙ্গুয়েজ, মাঠে চলাফেরা, হাসিখুশি মুখচ্ছবি এবং তাদের চেষ্টা ফুটে ওঠে খেলার মধ্যে। আমার চোখে এগুলো ধরা পড়েছে যে, তারা খুব ভালো করছে। আরেকটা ব্যাপার, অনেকদিন ছেলেরা বায়ো বাবলে থেকে একটা মানসিক অবসাদের মধ্যে আছে। এগুলো কাটিয়ে ওঠাও কষ্টের ব্যাপার। তো ছেলেদের হাসিখুশি রাখাও আমরা যারা কোচিং স্টাফ আছি তাদের বড় দায়িত্ব। এইটা আমরা পালন করার চেষ্টা করছি। '



সাতদিনের সেরা