kalerkantho

বুধবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ১ ডিসেম্বর ২০২১। ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

আসল বিশ্বকাপের দামামা

অনলাইন ডেস্ক   

২৩ অক্টোবর, ২০২১ ০৩:০৮ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



আসল বিশ্বকাপের দামামা

এক ফ্রেমে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করা দলগুলোর অধিনায়করা। ছবি : আইসিসি টুইটার

ভোরের আলো তখন সবে ফুটতে শুরু করেছে। শহরের আড়মোড়া ভেঙে জেগে উঠতে সময় তাই ঢের বাকি থাকার কথা। ভোরের নিস্তরঙ্গ মাসকাট ছেড়ে ধরা উড়ান দুবাইয়ে এসে পৌঁছতেই অবশ্য অন্য চিত্র। রাতের নীরবতা ভেঙে কাকভোরেই জমজমাট দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। একের পর এক উড়ান এসে নামছে আর মানুষও নামছে হাজারে হাজার। তাদের সামলাতে গিয়ে হিমশিম খেতে থাকা ইমিগ্রেশনকর্মীদেরও দম ফেলার ফুরসত নেই।

এমনিতেই ব্যস্ত বিমানবন্দরের কর্মীদের অবশ্য কিছুদিন ধরেই পার করতে হচ্ছে ব্যস্ততম একেকটি দিন। এভাবেই চলতে থাকবে আগামী বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত। সেদিনই শেষ হওয়ার নির্ধারিত সময় দুবাই এক্সপো-২০২০-এর, যা শুরুই হলো গত ১ অক্টোবর থেকে। করোনাভাইরাসের কারণে বছরখানেক পিছিয়ে এই বাণিজ্যিক আয়োজন শুরুর সময়টিতে ভ্রমণ নিয়ে কড়াকড়ি অনেকটাই শিথিল বলে দুবাইয়ে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে মানুষ। গত ২০-২২ দিনেই এখানে ঢুকেছেন ১৮১টি দেশের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা। ১-১৭ অক্টোবরের মধ্যেই দুবাই এক্সপোতে অংশ নেওয়ার জন্য তালিকাভুক্ত পৌনে আট লাখ লোক এসেছেন, যা শহরটিকে বিশ্বের ‘বাণিজ্যিক রাজধানী’ই বানিয়ে ফেলেছে একরকম।

এই বাণিজ্যিক রাজধানী আজ থেকে হয়ে উঠছে ক্রিকেটবিশ্বের রাজধানীও। ঝিমিয়ে থাকা মাসকাটে প্রথম পর্বের মোড়কে বাছাই পর্বের একাংশ শেষ হয়েছে এক দিন আগে। বাকি অংশও কাল শেষ হলো শারজায়। এবার সুপার টুয়েলভ পর্ব নামের আসল বিশ্বকাপ। বাণিজ্যিক সম্মেলনকে ঘিরে ভীষণ জমে ওঠা সংযুক্ত আরব আমিরাতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দামামাও বেজে উঠতে চলেছে আজ। শুরুতেই এর উত্তাপ আরো তুঙ্গে পৌঁছে দিতেই কিনা প্রথম দিনেই আগুনে এক লড়াই।

২০১৬ সালে সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ যেখানে শেষ হয়েছিল, ঠিক সেখান থেকেই আজ শুরু হচ্ছে আবার। কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে গতবারের ফাইনালে বেন স্টোকসের করা শেষ ওভারের প্রথম চার বলেই চার ছক্কা মেরে কার্লোস ব্রাথওয়েট ক্যারিবীয়দের মাথায় পরিয়েছিলেন কুড়ি-বিশের ক্রিকেট শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট। দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে সেটি ধরে রাখার অভিযান শুরুর দিনেও আজ ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে সেই ইংল্যান্ড। প্রতিশোধ নেবে ইংলিশরা? নাকি হবে পাঁচ বছর আগের ফাইনালের পুনরাবৃত্তিই? ইত্যাকার নানা কৌতূহলী জিজ্ঞাসাই যেন এই ম্যাচকে ঘিরে উত্তেজনার কড়াই আরো উত্তপ্ত করে তুলেছে।

সুপার টুয়েলভ বা মূল পর্বের প্রথম দিনে গ্রুপ ওয়ানের খেলা আছে আরেকটি। আবুধাবিতে যে ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে নজরটা নিশ্চিতভাবেই বেশি থাকবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ আর ইংল্যান্ডের সম্ভাব্য মারদাঙ্গা লড়াইয়ের দিকে। শুরুর দিনে আছে আরেক মহারণের অপেক্ষাও। পরদিনই যে আবার দুবাইয়ে দেখা হয়ে যাচ্ছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত আর পাকিস্তানের। বাণিজ্যিক দৃষ্টিকোণ থেকে আইসিসির কোষাগার ভরিয়ে তুলতে যে ম্যাচটি একাই যথেষ্ট বলে ধরা হয়।

একসময় এই সংযুক্ত আরব আমিরাতেই নিয়মিত মাঠের ক্রিকেটে দেখা-সাক্ষাৎ হতো ভারত-পাকিস্তানের। সেটি যেখানে হতো, সেই শারজাও পেয়ে গিয়েছিল ক্রিকেট তীর্থের মর্যাদা। তবে ম্যাচ গড়াপেটা আর জুয়াড়িদের কেলেঙ্কারির নানা কাণ্ডে তীব্র মর্যাদাহানিও হয় একসময়। সুবাদে ক্রিকেট মানচিত্র থেকে একরকম হারিয়ে যায় শারজা, সেই সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতও। লম্বা বিরতির পর আবার যখন ফিরতে শুরু করে, তত দিনে দুবাইয়ে স্পোর্টস সিটি হয়ে গেছে। যেখানে আছে দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামও। আবুধাবিতেও প্রথম নজরেই দৃষ্টি কাড়ার মতো শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামও দাঁড়িয়ে গেছে। এই দুটি স্টেডিয়াম বিশেষত নিরপেক্ষ ভেন্যু হিসেবেই ব্যবহৃত হয়ে এসেছে শুরু থেকে। এর সুবাদে শারজাও পেয়ে যায় আয়োজক হিসেবে হারানো সুনাম পুনরুদ্ধারের সুযোগ। এই তিন মাঠেই সম্প্রতি চুটিয়ে হয়ে গেছে আইপিএলও। এর আগে হয়েছে এশিয়া কাপের মতো আঞ্চলিক শ্রেষ্ঠত্বের আসরও। এবার আর আঞ্চলিক নয়, প্রথমবারের মতো সংযুক্ত আরব আমিরাতে বসছে বিশ্ব শ্রেষ্ঠত্বের আসরও।

যার সূত্র ধরে গোটা ক্রিকেট পৃথিবী আছড়ে পড়ছে এসে দুবাইয়ে। সেই সঙ্গে দুবাই এক্সপো উপলক্ষেও সব মহাদেশ থেকে এসে হামলে পড়ার হুলুস্থুল তো আছেই। এমনই যে তা সামলাতে ইমিগ্রেশনকর্মীরা ভিসা কিংবা প্রয়োজনীয় কাগজপত্রও আর দেখতে চাইছেন না। না দেখেই পাসপোর্টে এন্ট্রি সিল-ছাপ্পড়ও মেরে দিচ্ছেন! দুয়ে মিলে বাণিজ্য আর ক্রিকেটও যেন এসে মিশেছে এক মোহনাতেই।



সাতদিনের সেরা