kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৯ ডিসেম্বর ২০২১। ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

হাঁটুর বয়সীদের সঙ্গে খেলতে কেমন লাগবে শোয়েবের?

অনলাইন ডেস্ক   

১৯ অক্টোবর, ২০২১ ১৩:৩৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হাঁটুর বয়সীদের সঙ্গে খেলতে কেমন লাগবে শোয়েবের?

শেষ মুহূর্তে বেশ নাটকীয়ভাবে পাকিস্তানের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে সুযোগ পেয়েছেন শোয়েব মালিক। তার বয়স এখন ৩৯। পাকিস্তানের হয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলতে নামার সময় নাকি নিজের বয়সের অনুভূতি ভুলে যাবেন এই অলরাউন্ডার। ১৯৯৯ সালে যখন মালিকের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় তখন জন্মই হয়নি তার বর্তমান সতীর্থ পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদি, মোহাম্মদ ওয়াসিম জুনিয়র ও ব্যাটসম্যান হায়দার আলীর।

শুধু তা-ই নয়, পাকিস্তান দলের সহ-অধিনায়ক শাদাব খানের বয়স তখন এক বছর। আর অধিনায়ক বাবর আজম ও অলরাউন্ডার হাসান আলী তখন ৫ বছরে পা রেখেছেন। ১৯৯৯ সালের অক্টোবরে শারজায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে ম্যাচে মালিকের অভিষেকের সময় পাকিস্তান দলের নেতৃত্বে ছিলেন কিংবদন্তি ফাস্ট বোলার ওয়াসিম আকরাম। যিনি অবসর নিয়েছেন ১৮ বছর আগে। তার পরও এখনো লড়াই করার মতো ফিটনেস ধরে রেখেছেন মালিক।

ওয়াসিম আকরাম এএফপিকে বলেন, '১৯৯৯ সালে মালিকের অভিষেক আমার এখনো মনে আছে। তার বয়স তখন ১৭ কি ১৮ বছর। আমিই তাকে তুলে এনেছিলাম এবং ধীরে ধীরে সে বোলার হয়ে উঠতে থাকে। সেই সঙ্গে একজন ফিল্ডার। তবে কখনো জানতাম না সে ভালো ব্যাট করতে পারে। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে মালিক দলের ইনিংস বাঁচাতে দক্ষ। এমনকি এখনো যদি ফিটনেসের কথা বলেন, তাহলে তার অবস্থা চমৎকার। অনুশীলনও করেন গভীরভাবে।'

তার পরও বিশ্বকাপের সবচেয়ে বয়সী খেলোয়াড় নন মালিক। তার এক মাস আগে ওয়ানডে অভিষিক্ত ৪২ বছর বয়সী ক্রিস গেইল এবারের বিশ্বকাপে অংশ নিতে যাচ্ছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের শিরোপা অক্ষুণ্ণ রাখার মিশনে। সাবেক সতীর্থ ও অধিনায়ক শহিদ আফ্রিদির বিশ্বাস, পাকিস্তানের দ্বিতীয় বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ের চেষ্টায় মালিক ভূমিকা রাখতে পারবেন। সাবেক এই অলরাউন্ডার বলেন, 'টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শোয়েব মালিকের ডাক পাওয়ায় ভালো লাগছে। অভিজ্ঞ ও সিনিয়র ব্যাটসম্যান হিসেবে তিনি পাকিস্তানকে বড় অর্জনে সহায়তা করতে পারবেন।'

ক্যারিয়ারের নানা উত্থান-পতন পেরোনো মালিক ২০০৭ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম আসরে পাকিস্তানকে নেতৃত্ব দিয়ে পৌঁছে দিয়েছিলেন ফাইনালে। ২০০৯ সালে শিরোপাজয়ী পাকিস্তান স্কোয়াডেরও সদস্য ছিলেন তিনি। ২০১০ সালের আসরে খেলতে না পারলেও শোয়েব মালিক সর্বশেষ তিনটি আসরেই পাকিস্তান দলের অংশ ছিলেন। ২০২২ সালে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলবেন না বলে ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছেন মালিক।



সাতদিনের সেরা