kalerkantho

মঙ্গলবার । ৩ কার্তিক ১৪২৮। ১৯ অক্টোবর ২০২১। ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

গন্তব্য ভিন্ন হলেও অভিন্ন প্রস্তুতি

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০৩:৪০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গন্তব্য ভিন্ন হলেও অভিন্ন প্রস্তুতি

একজন চলে এলেন সকালেই। অন্যজন আরো পরে। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের সেন্টার উইকেটে প্রথমজনকে ব্যাটিং অনুশীলনে দেখা গেল পাক্কা দেড় ঘণ্টা। পরেরজন অত সময় না হলেও নেটে পার করলেন ৫০ মিনিট। অনুশীলনের স্থায়িত্ব কমবেশি হলেও তাঁদের ব্যাটিংয়ে প্রতিফলিত হলো টি-টোয়েন্টির মেজাজই। দুজনই তাই নেটে ঝড় বইয়ে দিলেন লেগস্পিনার জুবায়ের হোসেনের ওপর দিয়ে। আগ্রাসী শট যেমন তাঁরা খেললেন, তেমনি এই সংস্করণের চাহিদা মেটাতে ব্যতিক্রমী কিছু স্ট্রোক খেলার চেষ্টাও তাঁদের দুজনের অনুশীলনজুড়েই লক্ষ করা গেল। গতকাল সকাল থেকে দুজনের একই ধরনের ব্যাটিং প্রস্তুতি দেখে অবশ্য বোঝার উপায় ছিল না যে মুশফিকুর রহিম আর তামিম ইকবালের গন্তব্য এক নয়।

একই মাঠে একই রকম অনুশীলন করেও তাঁরা ভিন্ন ভিন্ন গন্তব্যেই ছুটবেন। যদিও দুজনেই যাচ্ছেন টি-টোয়েন্টি খেলতেই। তবে মুশফিক যেখানে যাচ্ছেন দেশের হয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে, সেখানে নিজেকে বিশ্ব আসর থেকে সরিয়ে নেওয়া তামিম যাচ্ছেন ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট খেলতে। মুশফিকের প্রথম গন্তব্য ওমান। সেখানে বিশ্বকাপের প্রথম পর্বের বাধা পেরোতে পারলে খেলতে হবে সংযুক্ত আরব আমিরাতেও। আর তামিমের গন্তব্য নেপাল। সেখানকার এভারেস্ট প্রিমিয়ার লিগে (ইপিএল) ভৈরাওয়া গ্ল্যাডিয়েটরস দলের হয়ে খেলবেন তিনি।

আসর শুরু হচ্ছে ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে। ২৩ সেপ্টেম্বর কাঠমাণ্ডু উড়ে গিয়ে প্রস্তুতির তেমন সুযোগ নেই বলে ঢাকাতেই যা সারার সেরে যাচ্ছেন গত দুই মাস ডান হাঁটুর চোটের পুনর্বাসনে থাকা তামিম। গত কিছুদিন শুধুই ফিটনেস ট্রেনিং করেছেন, কাল থেকে শুরু করলেন স্কিলও। জিম্বাবুয়ে সফরে টি-টোয়েন্টি না খেলেই ফেরা তামিম দেশের মাটিতে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড সিরিজও খেলেননি পুনর্বাসনে থাকায়। এর আগে গত মার্চের নিউজিল্যান্ড সফর থেকেও টি-টোয়েন্টি না খেলেই ফিরেছিলেন। এই বছর কোনো কুড়ি-বিশের ম্যাচ না খেললেও বিশ্বকাপ দলে তাঁর জায়গা নিশ্চিতই ছিল। কিন্তু দল নির্বাচনী সভায় তাঁকে নিয়ে কারো কারো প্রশ্নের খবর কানে যেতেই তিনি নিজে থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন বলে প্রচার আছে। তাই ইপিএলকে একসময় বিশ্বকাপ প্রস্তুতির মঞ্চ বলে মনে করে আসা তামিম এখন সেখানে খেলতে যাচ্ছেন শুধুই ‘কমিটমেন্ট’ রক্ষার খাতিরে।

অন্যদিকে নিজের প্রস্তুতির ব্যাপারে বরাবরই খুঁতখুঁতে মুশফিক সর্বশেষ নিউজিল্যান্ড সিরিজে ভালো করতে পারেননি একদমই। পাঁচ ইনিংসে কেবল ৩৯ রান করতে পেরেছেন তিনি মাত্র ১৩ গড় ও ৫২ স্ট্রাইক রেটে। এ জন্যই ৩ অক্টোবর ওমান রওনা হওয়ার আগে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের হয়ে চট্টগ্রামে হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) ইউনিটের বিপক্ষে দুটি এক দিনের ম্যাচও খেলবেন বলে ঠিক করেছেন। বিশ্বকাপ দলের দুই ওপেনার সৌম্য সরকার ও নাঈম শেখেরও খেলার কথা আছে ম্যাচ দুটি। তাঁদের খেলার সুবিধার্থে ওই দুই ম্যাচের দিনক্ষণও এগিয়ে আনা হয়েছে। ২৮ ও ৩০ সেপ্টেম্বর হবে ম্যাচ দুটি। এর আগে কিউইদের বিপক্ষে সিরিজ শেষে ছুটিতেই আছেন কমবেশি সব ক্রিকেটার। তাসকিন আহমেদ ও আফিফ হোসেনসহ বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার গেছেন ওমরাহ করতে। ছুটিতে থাকা মুশফিক অবশ্য সবার আগে সেই পর্ব শেষ করে নেমে গেলেন অনুশীলনে, শুরু করে দিলেন বিশ্বকাপের প্রস্তুতিও। একই দিনে শুরু করলেন তামিমও, তবে সেটি ভিন্ন গন্তব্যের জন্য।



সাতদিনের সেরা