kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ আশ্বিন ১৪২৮। ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৩ সফর ১৪৪৩

আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচে মিতব্যয়ী বোলিংয়ে দুইয়ে আর্জেন্টিনার বোলার

অনলাইন ডেস্ক   

১ আগস্ট, ২০২১ ১৩:৩৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচে মিতব্যয়ী বোলিংয়ে দুইয়ে আর্জেন্টিনার বোলার

শনিবার রাতে মিতব্যয়ী বোলিং করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয়ের নায়ক হয়েছেন পাকিস্তানের অফস্পিনার মোহাম্মদ হাফিজ। ২৪টি বল করে ১৯টিই ডট নিয়েছেন তিনি। চার ওভারে রান দিয়েছেন মাত্র ৬টি, আর মেডেন একটি। ম্যাচ শেষে হাফিজের বোলিং ফিগারটা ছিল ৪-১-৬-১। তবে কোনো আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচে হাফিজের চেয়েও বেশি মিতব্যয়ী বোলিং করেছেন অনেকেই।

হাফিজ গতকাল ওভার প্রতি রান দিয়েছেন ১.৫০। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে এক ম্যাচে সবচেয়ে কম ইকোনমিধারীদের তালিকায় যৌথভাবে ২৮ নম্বরে আছেন তিনি। এমনকি তার চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন হংকং-কুয়েত-আর্জেন্টিনার বোলাররা।

ক্রিকেটকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটকেই অগ্রাধিকার দিচ্ছে আইসিসি। এজন্য টেস্টে র‌্যাঙ্কিংয়ে ১০টি ও ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে ২০দলকে অন্তর্ভুক্ত করা হলেও আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে ৮২টি দল অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সেখানে রয়েছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা-জার্মানির মতো ফুটবল খেলুড়ে দেশগুলোও।

কোনো নির্দিষ্ট আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচে সবচেয়ে মিতব্যয়ী বোলার হলেন শ্রীলঙ্কার নোয়ান কুলাসেকারা। ২০১৪ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে চট্টগ্রামে নেদারল্যান্ডের বিপক্ষে ২ ওভারে কোনো রানই দেননি তিনি। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন আর্জেন্টিনার মিডিয়াম পেসার স্যান্টিয়াগো রশি। ২০১৯ সালে মেক্সিকোর বিপক্ষে ৩ ওভারে মাত্র ১ রান দিয়েছিলেন তিনি। তার বোলিং ইকোনমি ছিল ০.৩৩। যৌথভাবে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুই বোলার কাদির আহমেদ ও সুলতান আহমেদ। দুজনেরই বোলিং ইকোনমি ০.৬৬। ম্যাচে সর্বনিম্ন ১২ বল করেছেন এমন বোলারদেরই শুধু এই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

তালিকার ষষ্ঠ নম্বরে রয়েছেন শ্রীলঙ্কার  সাবেক স্পিনার, বর্তমানে বাংলাদেশের বোলিং কোচ রঙ্গনা হেরাথ। ২০১৪ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ম্যাচে চট্টগ্রামে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩ দশমিক ৩ ওভার বোলিং করে মাত্র ৩ রান দিয়ে ৫ উইকেট নিয়েছিলেন। এই ম্যাচে তার বোলিং ইকোনমি ছিল মাত্র ০.৮৫। সপ্তম স্থানেও একজন আর্জেন্টাইন। ২০১৯ সালে ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচে ৪ ওভারে মাত্র ৪ রান দিয়ে পেড্রু অ্যারিগি ৫ উইকেট নিয়েছিলেন। ম্যাচে তার ইকোনমি ছিল ১.০০। এটি ছিল ৯০৯তম আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি। ম্যাচটি আর্জেন্টিনা জিতেছিল ২৯ রানে।

 

সূত্র: ক্রিকইনফো



সাতদিনের সেরা