kalerkantho

সোমবার  । ১২ আশ্বিন ১৪২৮। ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৯ সফর ১৪৪৩

সেই ট্রাক চালকদের খুঁজছেন অলিম্পিকজয়ী মীরাবাঈ

অনলাইন ডেস্ক   

৩০ জুলাই, ২০২১ ১৪:৫৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সেই ট্রাক চালকদের খুঁজছেন অলিম্পিকজয়ী মীরাবাঈ

টোকিও অলিম্পিকে ভারতকে প্রথম পদক এনে দিয়েছেন ভরত্তোলক মীরাবাঈ চানু। ২৬ বছরের এই অ্যাথলেট অলিম্পিকে রুপা জিতে বাড়ি ফিরেছেন। ভারত জুড়ে সবার শুভেচ্ছা পাচ্ছেন এই ভারোত্তোলক। পুরস্কার আর উপহারে ইতিমধ্যেই তিনি কোটিপতি হয়ে উঠেছেন। কিন্তু এই সুদিনে তিনি ভুলে যাননি নিজের কষ্টকর অতীত। আজকের এই মীরাবাঈকে একদিন গ্রাম থেকে শহরে অনুশীলনের জন্য নিয়ে যেতেন ট্রাকচালকরা। অলিম্পিকে পদক জয়ের পর এখন তাদের খোঁজে মীরাবাঈ।

নিজের গ্রাম নংপুক কাকচিং থেকে বেশ কিছুটা দূরে ইম্ফলের খুমান লাম্পাক স্পোর্টস কমপ্লেক্সে অনুশীলন করতে যেতেন মীরাবাঈ। ওই সময় কিছু ট্রাকচালক একদম বিনা পয়সায় তাকে গন্তব্যে পৌঁছে দিতেন। টোকিও অলিম্পিকে ভারতের হয়ে প্রথম পদকজয়ী মীরাবাঈ বলেন, 'আমি সেই ট্রাকচালকদের সঙ্গে দেখা করতে চাই যারা আমাকে প্রতিদিন বাড়ি থেকে অনুশীলনে নিয়ে যেতেন। আমি তাদের আশীর্বাদ নিতে চাই।'

ছোটবেলায় মীরাবাঈদের আর্থিক অবস্থা ভালো ছিল না। সেই সময় পাশে দাঁড়িয়েছিলেন এই ট্রাকচালকরা। বিনা পয়সায় তাকে প্রতিদিন বাড়ি থেকে অনুশীলনে নিয়ে যেতেন। নংপুকে চায়ের দোকান আছে মীরাবাঈর মা সাইখোম ওংবি টম্বির। সেই চায়ের দোকান থেকেই মীরাবাঈকে নিয়ে যেতেন ট্রাকচালকেরা। মীরাবাঈ বলেন, 'আমার কঠিন সময় পাশে ছিলেন ওই ট্রাকচালকরা। আমি তাদের সঙ্গে দেখা করতে চাই। তাদের যদি কোনও সাহায্যের প্রওজন হয় আমি পাশে থাকতে রাজি।'

সেই কঠিন সময়ের কথা স্মরণ করে মীরাবাঈয়ের বড় ভাই বলেন, 'আমাদের বাড়ি থেকে প্রায় ২০-৩০ কিলোমিটার দূরে ছিল মীরাবাঈয়ের অনুশীলনের জায়গা। কখনো মা আবার কখনো বাবা তার হাতে ১০-২০ রুপি দিত। ছোট গ্রাম আমাদের। সবাই সবাইকে চেনে। সকালবেলা গ্রাম থেকে ট্রাক যেত বাজারে। আমরা জানতাম মীরাবাঈকে কোনদিন কোন ট্রাকচালক নিয়ে যাচ্ছেন। একা একা অনুশীলনে যেতে হলেও সে কোনোদিন অভিযোগ করেনি।'



সাতদিনের সেরা