kalerkantho

শুক্রবার । ২ আশ্বিন ১৪২৮। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ৯ সফর ১৪৪৩

টাইফুনের সঙ্গেও লড়তে হবে রোমানকে

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

২৭ জুলাই, ২০২১ ০৩:১৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



টাইফুনের সঙ্গেও লড়তে হবে রোমানকে

টাইফুনের প্রবল বাতাসের মধ্যে লক্ষ্যে রাখতে হবে তীর। খুব কঠিন চ্যালেঞ্জ। গতকাল প্র্যাকটিসেও রোমান সানার দু-চারটি তীর উড়ে গেছে বাইরে। কিন্তু আজ এরই মধ্যে যে তাঁকে ‘অর্জুন’ হয়ে উঠতে হবে। অলিম্পিকের মঞ্চে নিজেকে প্রমাণ করতে হবে আরেকবার।

টোকিও অলিম্পিকে হানা দিয়েছে জাপানি টাইফুন নেপারটাক। আজ স্থলসীমায় হানা দিতে পারে বলে এরই মধ্যে রোয়িং ও আর্চারি কম্পিটিশনের সূচিতে খানিকটা পরিবর্তন আনা হয়েছে। টাইফুনের কারণে বাতাসের গতিবেগ এরই মধ্যে বেড়ে গেছে, এ নিয়েই খানিকটা দুশ্চিন্তা কোচ মার্টিন ফ্রেডরিখের, ‘কালকের (আজ) খেলাটার সময় পরিবর্তন করা হয়েছে, টাইফুনের কারণে সকালে না হয়ে এখন দুপুরের দিকে হবে। প্রবল বাতাসের মধ্যেই খেলতে হবে, এমন পরিস্থিতিতে লক্ষ্যে তীর রাখা কঠিন। তবে এই অসুবিধা দুজনের জন্যই হবে।’ রিকার্ভ এককের নকআউটে প্রথম রাউন্ডে রোমান সানার প্রতিপক্ষ ইংলিশ আর্চার টম হল। র্যাংকিং রাউন্ডে এই ইংলিশ আর্চারকে (৪৮তম) অনেক পেছনে ফেলে সপ্তদশ হয়েছিলেন রোমান, সুবাদে তিনিই ফেভারিট। কিন্তু আজ যে বাতাসও হয়ে উঠতে পারে ভাগ্যনিয়ন্তা! এ নিয়ে খানিকটা ভয় থাকলেও বাংলাদেশের জার্মান কোচ খুব ইতিবাচক, ‘রোমান আজ (গতকাল) প্র্যাকটিস করেছে বাতাসের মধ্যে। কয়েকটি তীর বাইরে উড়ে গেলেও বাকিগুলো ভালো মেরেছে, টার্গেটে রেখেছে। আশা করি, কালকের ম্যাচে ভালো করবে রোমান সানা।’

বাংলাদেশের কোচও প্রতিপক্ষ নিয়ে কিছু বলতে চান না। তিনি লেগে আছেন তাঁর আর্চারকে নিয়ে, ‘ইংলিশ আর্চার সম্পর্কে আমার তেমন কোনো ধারণা নেই। তাকে নিয়ে আমি অত চর্চাও করিনি, তার ভালো-মন্দ খেলায় কিছু যায়-আসে না। রোমানকে ভালো মারতে হবে, তাই চেষ্টা করছি তাকে ভালোভাবে আত্মবিশ্বাসী করে তুলতে। সে কিভাবে নির্ভার থেকে, স্নায়ুচাপ উপেক্ষা করে তীর ছুড়তে পারে সে লক্ষ্যেই কাজ করছি। তার তীরেই তার ভাগ্য রচিত হবে।’ ২০১৯ সালে নেদারল্যান্ডসে রোমান সানার তীর-ধনুকে রচিত হয়েছিল দেশের আর্চারির অমর কীর্তি। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে বিশ্বের সেরা আর্চারদের হারিয়ে তিনি ব্রোঞ্জ জিতে সরাসরি টোকিও অলিম্পিকের টিকিট হাতে পেয়েছিলেন। এর পর থেকেই আলোকিত দেশের আর্চারি।

এরপর তাঁর ফর্মে একটু অধোগতি ছিল। কিন্তু টোকিওতে যদি বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের ফর্মটা ফিরে পান এই তারকা! দুই সময়ের সঙ্গে তুলনায় গিয়ে মার্টিন পার্থক্য দেখছেন, ‘বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের সময় আর এই সময়ের তুলনা করা একটু কঠিন। কারণ বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ খেলতে যাওয়ার আগে ২০১৮ সালে সে অনেক আন্তর্জাতিক মিটে অংশ নিয়েছিল, তাতে তার টেম্পারামেন্ট ও পারফরম্যান্সে ঊর্ধ্বগতি ছিল। কভিডের কারণে গত এক বছর আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা তেমন খেলতে পারেনি। এটার প্রভাব স্বাভাবিকভাবে খেলার মধ্যে পড়বে। তবে সে র্যাংকিং রাউন্ড উতরে এ জায়গায় এসেছে এবং অনেক আত্মবিশ্বাসী হয়েছে।’ র্যাংকিং রাউন্ডে সপ্তদশ হলেও রোমান সানার ৬৬২ স্কোর নিয়ে তিনি খুব উচ্ছ্বসিত হতে পারছেন না। কারণ এর চেয়েও যে ভালো করার সামর্থ্য তাঁর আছে, সেটা মার্টিন জানেন। তাই প্রিয় শিষ্যের তীরে সেরাটা দেখার অপেক্ষায় আছেন, ‘তার র্যাংকিং রাউন্ডের স্কোরটাকে ভালোও বলব না, আবার খারাপও নয়। আমি জানি, এর চেয়েও ভালো করার সামর্থ্য আছে রোমান সানার। দেখা যাক, সামনে কী করে...।’ ইংলিশের বিপক্ষে প্রথম রাউন্ড জিতলে আজই দ্বিতীয় রাউন্ডে পড়বে আরো কঠিন প্রতিপক্ষের মুখে।



সাতদিনের সেরা