kalerkantho

শনিবার । ৯ শ্রাবণ ১৪২৮। ২৪ জুলাই ২০২১। ১৩ জিলহজ ১৪৪২

ইউক্রেনকে হারিয়ে শেষ ষোলোয় অস্ট্রিয়া

অনলাইন ডেস্ক   

২২ জুন, ২০২১ ০১:১০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইউক্রেনকে হারিয়ে শেষ ষোলোয় অস্ট্রিয়া

আগেই নকআউটে পৌঁছে গেছে হল্যান্ড নেদারল্যান্ডস। দ্বিতীয় দল হিসেবে শেষ ষোলোর টিকিটের লড়াই ছিল ইউক্রেন ও অস্ট্রিয়ার মধ্যে। দুই দলই একটি করে ম্যাচ জিতে গ্রুপ লিগের শেষ ম্যাচে মাঠে নেমেছিল। ড্র করলেই নক আউটে পৌঁছে যেত ইউক্রেন। গোল পার্থক্য সমান হলেও অস্ট্রিয়ার থেকে তারা বেশি গোল করে খেলতে নেমেছিল।

অন্যদিকে শেষ ষোলোয় পৌঁছনোর জন্য জেতা ছাড়া রাস্তা ছিল না অস্ট্রিয়ার সামনে। ‌মরণবাঁচন ম্যাচে জ্বলে উঠলেন ফ্রাঙ্কো ফোডার ফুটবলাররা। ইউক্রেনকে হারিয়ে শেষ ষোলোয় জায়গা করে নিল অস্ট্রিয়া।

রোমানিয়ার বুখারেস্টে সোমবার ‘সি’ গ্রুপের শেষ রাউন্ডে ১-০ গোলে জিতেছে অস্ট্রিয়া। ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেন ক্রিস্টোফ বমগার্টনার।

ইউক্রেনের একমাত্র আশা এখন ছয় গ্রুপের তৃতীয় হওয়া সেরা চার দলের একটি হয়ে পরের রাউন্ডে যাওয়ার।

একই সময়ে শুরু হওয়া আরেক ম্যাচে নর্থ মেসিডোনিয়াকে ৩-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে আগেই গ্রুপ সেরা হওয়া নেদারল্যান্ডস।

এর আগে দুইবার ইউরোতে অংশ নিয়ে কোনো জয় ছিল না অস্ট্রিয়ার; দুটিতে ড্র করেছিল, হেরেছিল চারটি। এবার তিন ম্যাচে সেই স্বাদ তারা পেল দুবার। প্রথম ম্যাচে নর্থ মেসিডোনিয়ার বিপক্ষে ৩-১ গোলে জয়ের পর নেদারল্যান্ডসের কাছে হেরেছিল ২-০ ব্যবধানে।

প্রথমবারের মতো প্রতিযোগিতাটির গ্রুপ পর্ব পার হওয়া অস্ট্রিয়া শেষ ষোলোয় ইতালির মুখোমুখি হবে। ১৯৫৪ বিশ্বকাপের পর এই প্রথম কোনো মেজর টুর্নামেন্টের নকআউট পর্বে খেলবে তারা। ওই আসরে তৃতীয় হয়েছিল দলটি।

দ্বিতীয় সেরা হয়ে পরের রাউন্ডে যেতে ইউক্রেনের ড্র করলেই চলত, কিন্তু নিজেদের মেলে ধরতে পারেনি তারা। পুরো ম্যাচে গোলের উদ্দেশে মাত্র ৫টি শট নিতে পারে দলটি, একটি ছিল লক্ষ্যে। বিপরীতে অস্ট্রিয়ার ১৮ শটের ৪টি লক্ষ্যে ছিল।

জয়ের লক্ষ্যে শুরু থেকে আক্রমণাত্মক খেলা অস্ট্রিয়া ২১তম মিনিটে এগিয়ে যায়। গত মাসে রিয়াল মাদ্রিদে যোগ দেওয়া ডিফেন্ডার ডাভিড আলাবার কর্নারে ছয় গজ বক্সের মুখে পা বাড়িয়ে বল জালে পাঠান বমগার্টনার।

২৯তম মিনিটে মাইকোলা শাপারেঙ্কোর শট ফিরিয়ে জাল অক্ষত রাখেন অস্ট্রিয়ার গোলরক্ষক বাখমান। ৩৭তম মিনিটে দারুণ সেভে ব্যবধান বাড়তে দেননি ইউক্রেনের গোলরক্ষক বুশচান। স্টেফান লাইনারের শট বাঁ দিকে ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে ফেরান তিনি।

পাঁচ মিনিট পর সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া করেন অস্ট্রিয়ার মার্কো আর্নাতোভিচ। মার্সেল সাবিৎসারের থ্রু বল ডি-বক্সে পেয়ে ওয়ান-অন-ওয়ানে বাইরে মারেন ৩২ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে গোলরক্ষক বরাবর মেরে আরেকটি সুযোগ নষ্ট করেন তিনি।

আক্রমণে আধিপত্য দ্বিতীয়ার্ধেও ধরে রাখে অস্ট্রিয়া। বিরতির পর যদিও সেভাবে পরিষ্কার সুযোগ তৈরি করতে পারেনি তারা। তাতে অবশ্য দলটির পরের রাউন্ডে ওঠার উৎসবে ভাটা পড়েনি। 

তিন ম্যাচে শতভাগ জয়ে নেদারল্যান্ডসের ৯ পয়েন্ট। দুই জয়ে অস্ট্রিয়ার ৬ ও একটি জয়ে ইউক্রেনের পয়েন্ট ৩। প্রথমবার মহাদেশীয় প্রতিযোগিতাটিতে খেলতে এসে খালি হাতে ফিরল নর্থ মেসিডোনিয়া।



সাতদিনের সেরা