kalerkantho

বুধবার । ৯ আষাঢ় ১৪২৮। ২৩ জুন ২০২১। ১১ জিলকদ ১৪৪২

অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটে কুৎসিত বর্ণবিদ্বেষের গল্প শোনালেন উসমান খাজা!

অনলাইন ডেস্ক   

৪ জুন, ২০২১ ২১:৩৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটে কুৎসিত বর্ণবিদ্বেষের গল্প শোনালেন উসমান খাজা!

গত বছর থেকেই সারাবিশ্বে বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলন চলছে। অলি রবিনসনের টুইট নিয়ে গোটা বিশ্বে তোলপাড় পড়ে গেছে। এর মাঝেই অজি ক্রিকেটার উসমান খাজা বোমা ফাটিয়েছেন। ইএসপিন ক্রিকইনফোকে দেওয়া সাক্ষাৎকরে তিনি অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটে বর্ণবাদের গল্প শুনিয়েছেন। পাকিস্তানি বংশোদ্ভুত উসমান খাজা ২০১১ সালের অ্যাশেজে অস্ট্রেলিয়া জাতীয় দলে প্রথমবার সুযোগ পান। অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় দলে খেলা তিনিই প্রথম মুসলিম ক্রিকেটার।

খাজা ইসলামাবাদে জন্মগ্রহণ করলেও পাঁচ বছর বয়সে পরিবারের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ায় চলে আসেন। বর্তমানে ৩৪ বছরের এই তারকা ক্রিকেটার ওই সাক্ষাৎকারে বলেছেন, 'ক্রিকেট ক্যারিয়ার শুরুর দিকে বহু বার বলা হয়েছে যে, আমি গায়ের রংয়ের জন্য জাতীয় দলে সুযোগ পাব না, তা গুনে শেষ করা যাবে না! আমাকে বলা হতো, দলে আমি অন্যদের সঙ্গে খাপ খাব না, তাই নেওয়া হচ্ছে না। এমনটাই ছিল মানসিকতা। তবে এটা এখন কিছুটা হলেও বদলাচ্ছে।'

অজি দলের হয়ে এরপরে ৪৪টি টেস্ট খেলেছেন উসমান খাজা। তিনি আরও বলেন, 'ক্রিকেটে যখন ধীরে ধীরে জড়িয়ে পড়তে  শুরু করলাম তখন অস্ট্রেলিয়ায় বসবাসকারী উপমহাদেশের ক্রিকেটাররা আমাকে বলত, "তোমাকে এমন পজিশনে দেখে ভাল লাগছে। তোমাকে দেখে মনে হচ্ছে, আমরাও অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট দলের অংশ হয়ে পড়েছি। আমরাও অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলকে আগের থেকে বেশি ভালোবাসছি। এমন অনুভূতি আগে হয়নি। তবে এখন হচ্ছে।"'

খাজার পরিবার পাকিস্তান ছেড়ে যখন পাকাপাকিভাবে অস্ট্রেলিয়ায় চলে যায়, তখনও খাজা নতুন দেশকে সমর্থন দিতে পারেননি। এই কথা স্বীকার করে তিনি বলেছেন, 'এমন ঘটনা (বর্ণবাদ) আমার সঙ্গে বারবার হতে থাকল। যতবারই এটা হতো, ততবারই বুঝতাম আমার ব্যাকগ্রাউন্ডই স্থানীয়দের থেকে আমাকে আলাদা করে দিচ্ছে। আমারও তো শৈশবে অস্ট্রেলিয়াকে সমর্থন করতে কিছুটা সময় লেগেছিল। পাকিস্তান থেকে যখন অস্ট্রেলিয়ায় চলে এসেছিলাম, তখন কিন্তু অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলকে সমর্থন করার কোনো ইচ্ছা আমার হয়নি। পরে একটা সময় আমি ক্রিকেটের দিকে ঝুঁকে পড়ি।'



সাতদিনের সেরা