kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

নিজের আউট মানতেই পারলেন না তামিম

অনলাইন ডেস্ক   

২৮ মে, ২০২১ ১৮:১২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নিজের আউট মানতেই পারলেন না তামিম

দুশ্মন্ত্য চামিরার তোপের মুখে দিশেহারা হয়ে পড়েছে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপ। নাঈম আর সাকিবের পর এই পেসার তুলে নিয়েছেন তামিম ইকবালকে। দলীয় ২৮ রানে দেশসেরা ওপেনারকে হারিয়ে বাংলাদেশ এখন পথভ্রষ্ট। চামিরার একটি স্লোয়ারে ক্যাচের আবেদন করেছিলেন উইকেটকিপার ডিকাভিলা। ফিল্ড আম্পায়ার আউট ঘোষণা করলে তামিম মাথা নাড়তে নাড়তে রিভিউ নেন। রিভিউতে দেখা যায়, বল তার ব্যাট ছুঁয়ে কিপারের গ্লাভসে জমা হয়েছে। সুতরাং এটি আউট। তারপরেও তামিম যেন মানতে পারছিলেন না। তিনি মাথা নাড়তে নাড়তে মুশফিককে কিছু বলতে বলতে মাঠ ছাড়েন।

বড় টার্গেট তাড়ায় নেমে শুরুতে ব্যাপক চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচে ব্যর্থ লিটন দাসকে বাদ দিয়ে আজ একাদশে নেওয়া হয় মোহম্মদ নাঈমকে। কিন্তু চামিরার করা ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে এই তরুণ কুশল মেন্ডিসের হাতে তালুবন্দি হন মাত্র ১ রান করে। ফিরতি ওভারে এসে সাকিব আল হাসানকে (৪) তুলে নেন চামিরা। ৯ রানে দুই উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে বাংলাদেশ। ইনিংসের ৩৮তম বলে আসে প্রথম বাউন্ডারি! সেটি হাঁকান তামিম ইকবাল।

এর আগে মিরপুর শেরে বাংলায় ৬ উইকেটে ২৮৬ রান তোলে শ্রীলঙ্কা। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ৮২ রানের ওপেনিং পার্টনারশিপ উপহার দেন দানুশকা গুনাথিলকা আর অধিনায়ক কুশল পেরেরা। ৩৩ বলে ৩৯ করা গুনাথিলকাকে বোল্ড করে জুটি ভাঙেন তাসকিন। ৩ বল পরেই তিনি তুলে নেন পাথুম নিশাঙ্কাকে (০)। উইকেটে আসেন কুশল মেন্ডিস। দুই কুশল মিলে উপহার দেন ৬৯ রানের তৃতীয় উইকেট জুটি।

এই দুজনের জুটি যখন বাংলাদেশের ওপর চাপ সৃষ্টি করছিল, তখন ফের মঞ্চে আবির্ভাব তাসকিন আহমেদের। তার বলে তামিম ইকবালের তালুবন্দি হয়ে যান কুশল মেন্ডিস (২২)। নতুন আসা ধনাঞ্জয়া ডিসিভলাকেও ১ রানে তাসকিন এলবিডাব্লিউ করেছিলেন। তবে রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান ধনাঞ্জয়া। এরপর মুস্তাফিজের বলে সেঞ্চুরির দ্বারপ্রান্তে থাকা কুশল পেরেরা ক্যাচ ছাড়েন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। পরের বলেই ১ রান নিয়ে ক্যারিয়ারের ৬ নম্বর সেঞ্চুরি তুলে নেন পেরেরা। এজন্য তিনি সময় নিয়েছেন ৯৯ বল, হাঁকিয়েছেন ১০টি চার এবং ১টি ছক্কা।

দ্রুতই এই জুটি পঞ্চাশ ছাড়িয়ে যায়। অবশেষে কুশল পেরেরাকে ফিরিয়ে ৬৫ রানের জুটি ভাঙেন শরিফুল। তার বলে সেই মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের তালুবন্দি হন কুশল। যে মাহমুদউল্লাহর কল্যাণে তিনি ৯৯ রানে জীবন পেয়েছিলেন! আউট হওয়ার আগে কুশলের সংগ্রহ ১২২ বলে ১১ চার ১ ছক্কায় ১২০ রান। একাদশে সুযোগ পাওয়া নিরোশান ডিকাভিলা মাত্র ৭ রান করে রান-আউট হয়ে যান। এর কৃতিত্বও শরীফুলের। লঙ্কানদের ৬ষ্ঠ উইকেটের পতন ঘটান তাসকিন। হাসরাঙা ডি সিলভাকে (১৮) মেহেদি মিরাজের তালুবন্দি করে তিনি নিজের চতুর্থ শিকার ধরেন। ধনাঞ্জয়ার অপরাজিত ৫৫* রানে লঙ্কানদের স্কোর দাঁড়ায় ৬ উইকেটে ২৮৬ রান। তাসকিন ৪টি আর শরিফুল ১ উইকেট নেন।



সাতদিনের সেরা