kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৮ মে ২০২১। ৫ শাওয়াল ১৪৪

মরগ্যানের ভুল অধিনায়কত্বেই কলকাতার এই হার?

অনলাইন ডেস্ক   

১৮ এপ্রিল, ২০২১ ২০:২৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মরগ্যানের ভুল অধিনায়কত্বেই কলকাতার এই হার?

গত আইপিএলের মাঝামাঝি সময়ে হুট করেই দিনেশ কার্তিককে সরিয়ে ইয়োইন মরগ্যানকে অধিনায়ক বানিয়ে দেয় কলকাতা নাইট রাইডার্স কর্তৃপক্ষ। এবারও তিনিই কলকাতাকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তার নেতৃত্বে জয় দিয়ে আইপিএল শুরু করলেও পরের দুই ম্যাচে হেরেছে নাইটরা। আজ ব্যাঙ্গালোরের কাছে হারতে হয়েছে ৩৮ রানে। ব্যাট হাতে আগুন ঝরিয়েছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল আর এবিডি ভিলিয়ার্স। অন্যদিকে মরগ্যানের নেতৃত্ব নিয়ে শুরু হয়েছে তীব্র সমালোচনা।

আরসিবির জয়ের জন্য ম্যাক্সি-এবির যতটা না অবদান, তার চেয়েও বেশি অবদান আছে মরগ্যানের ভুল অধিনায়কত্ব এবং নাইটদের বাজে ফিল্ডিংয়ের। দ্বিতীয় ওভারটা শুরু হয়েছিল স্বপ্নের মতো। ওভারের দ্বিতীয় বলেই বিরাট কোহলি আউট। ছক্কা মারার চেষ্টা করতে গিয়ে বল ব্যাটের কানায় লেগেছিল। পিছন দিকে অনেকটা দৌড়ে কপিল দেবকে মনে করিয়ে ক্যাচ নিলেন রাহুল ত্রিপাঠি। যে কোনো দলের কাছে কোহলিকে ম্যাচের অষ্টম বলে ফেরানো স্বপ্নের মতো ব্যাপার। বরুণ চক্রবর্তী সেটাকেই সম্ভব করে দেখান।

ওই ওভারের শেষ বলে জত পতিদারের উইকেট তুলে নেন বরুণ। এক ওভারে দুটি উইকেট পেয়ে বরুণ তখন আত্মবিশ্বাসে ফুটছিলেন। অবাক করা ব্যাপার, ফিরতি ওভারে তাকে আর বল দেওয়া হলো না! আগেরদিনই দেখা গিয়েছিল ছন্দে থাকা দীপক চাহারকে দিয়ে টানা চার ওভার করিয়ে নিয়েছিলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। আজ সামনে গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের মতো ব্যাটসম্যান থাকা সত্ত্বেও মরগ্যান আনার প্রয়োজনই মনে করলেন না বরুণকে। যখন আনলেন, তখন বরুণের আত্মবিশ্বাস তলানিতে ঠেকেছে।

ম্যাক্সওয়েলকে দেখে মনে হচ্ছিল, কলকাতার কোনো বোলারই হয়তো তাকে থামাতে পারবেন না। সাকিব, কামিন্স, প্রসিদ্ধ- অনেককে দিয়েই চেষ্টা করেছিলেন মরগ্যান। কিন্তু ম্যাক্সওয়েল যেদিন ফর্মে থাকেন সেদিন লাইন-লেংথ কিছুই খাটে না। সঙ্গে এবি ডিভিলিয়ার্স থাকলে তো কথাই নেই। এই দুজনই আজ নাইটদের কাছে দুঃস্বপ্ন হয়ে ধরা দেন। ম্যাক্সওয়েল ফেরার পর রাসেলকে বোলিংয়ে আনেন মরগ্যান। ২ ওভারে ৩৮ রান দেওয়া ক্যারিবীয় অল-রাউন্ডারকে বেদম পিটুনি দেন এবি।

আস্কিং রেট দশের উপর থাকায় উইকেটে থিতু হওয়ার কোনো সুযোগই ছিল না। তাই শুরু থেকেই হাত খোলেন শুভমন গিল। কাইল জেমিসনকে জোড়া ছক্কা মারার পর অতি উত্তেজিত হয়ে ভুল শট খেলে আউট হয়ে যান। পরবর্তী ব্যাটসম্যান রাহুল ত্রিপাঠিও প্রথম থেকেই চালাতে শুরু করেছিলেন। তাকেও ফিরতে হয় ভুল শটে। এ অবস্থায় দায়িত্ব নেওয়ার কথা ছিল দীনেশ কার্তিক এবং মরগ্যানের। কিন্তু কেউই পারেননি। ব্যাট হাতে সাকিবও পারেননি দায়িত্ব নিতে। ফলাফল ৩৮ রানের হার।



সাতদিনের সেরা