kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

সুজন ভাই সবার আস্থার জায়গা; অথচ তিনিই গালি খান : মাশরাফি

অনলাইন ডেস্ক   

২৬ মার্চ, ২০২১ ১৭:৩৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সুজন ভাই সবার আস্থার জায়গা; অথচ তিনিই গালি খান : মাশরাফি

ফাইল ছবি

কয়েকদিন আগে শ্রীলঙ্কা সফর থেকে ছুটি নিয়ে আইপিএল খেলতে যাওয়ার ইস্যুতে রীতিমতো বোমা ফাটিয়ে দিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। দেশে ফিরে তিনি এখন চুপচাপ। এমন মুহূর্তে আবারও অ্যাটম বোমা ফাটালেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। বোর্ড পরিচালকদের তীব্র সমালোচনার পাশাপাশি তার মুখে শোনা গেল খালেদ মাহমুদ সুজনের প্রশংসা। এর আগে সাকিবও খালেদ মাহমুদের উচ্ছসিত প্রশংসা করেছিলেন। আজ শুক্রবার অনলাইন গণমাধ্যম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম-কে দেওয়া সাক্ষাতকারে এসব বলেন ম্যাশ।

বোর্ড পরিচালকদের কাজকর্মের বিশ্লেষণ করতে গিয়ে মাশরাফি বলেন, 'একমাত্র গেম ডেভেলপমেন্ট আমি দেখছি যে রানিং প্রসেসে আছে। কারণ ওই পরিচালক সামাজিক কোনো কর্মকাণ্ডে নেই, সুজন ভাই (খালেদ মাহমুদ সুজন)। আমাদের সমাজে যে কাজ বেশি করে, সে বেশি গালি খায়। আজকে বায়ো-বাবলে যে টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট হলো, তার আগে তিন দলের ওয়ানডে টুর্নামেন্ট হলো, সর্বোচ্চ কৃতিত্ব সুজন ভাইয়ের। উনিই উদ্যোগ নিয়েছিলেন। বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জিতেছে, কেউ সুজন ভাইয়ের অবদানের কথা বলবে না। বরং মিডিয়ার সামনে গিয়ে বলবে, ওর এত কথার দরকার কি? কিন্তু উনিই তো সিস্টেম গড়েছিলেন। বিপিএল খেলতে না দিয়ে কক্সবাজারে রেখে একটা দলীয় সমন্বয় গড়ে তুলেছেন। ভালো ভালো সিদ্ধান্ত নিলে কিন্তু ফল ঠিকই মিলেছে।'

খালেদ মাহমুদ সুজনকে নিয়ে বারবার নেতিবাচক খবর মিডিয়ায় আসাটাকেও একটা চক্রান্ত হিসেবে দেখেন ম্যাশ, 'সুজন ভাইকে কারা কালারিং করছে মানুষের সামনে? তার নেগেটিভ তথ্যগুলো মিডিয়ার কাছে কারা দিচ্ছেন? এটা নিয়েও আমার প্রশ্ন আছে। কারণ, আমি নই শুধু, যে কোনো ক্রিকেটারকে জিজ্ঞেস করুন। সুজন ভাই তো আমার আত্মীয় নয়। বাংলাদেশের প্রতিটি ক্রিকেটার-কোচকে জিজ্ঞেস করেন, তারা বলবে যে একমাত্র আস্থার জায়গা উনি, যার কাছে কিছু বলা যায় যে আমার এই সমস্যা, ওই সমস্যা। বলার আর কোনো জায়গা নেই। সে ওই খেলোয়াড়ের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ে। তখন মিডিয়ার সামনে এসব চলে আসে আর তিনি গালি খান সে সুজন এমন।'

মাশরাফি বলেন, 'কিন্তু আমরা ক্রিকেটাররা এই বেচারাকে সবসময় দাড়িপাল্লার একটা পাশে রাখি। কোনো ক্রিকেটার সুজন ভাইকে নিয়ে কিছু বলবে না। ভুল-ত্রুটি আছেই। এসব নিয়েই মানুষ। কিন্তু উনিই একমাত্র, যিনি কাজ করেন। অফিস করেন। সারাদিন ক্রিকেট ধ্যানজ্ঞানে রাখছেন। সারাদিন মোবাইল, ল্যাপটপে ক্রিকেটে ব্যস্ত থাকেন। তার ফলও গেম ডেভেলপমেন্ট বিভাগ পাবেন। তার ফল মিলেছে। বিশ্বকাপ জয়ের পর তো ওই বিভাগকে নিয়ে আর প্রশ্ন থাকে না। এর চেয়ে বড় কিছু তো নেই।'

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা