kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

প্রয়াত বাবার জামা-জুতো বয়ে বেড়াচ্ছেন ক্রুণাল পান্ডিয়া! (ভিডিও)

ভারতের ড্রেসিংরুমেও নিয়েছিলেন

অনলাইন ডেস্ক   

২৫ মার্চ, ২০২১ ১১:৫০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



প্রয়াত বাবার জামা-জুতো বয়ে বেড়াচ্ছেন ক্রুণাল পান্ডিয়া! (ভিডিও)

হার্দিক ও ক্রুণাল পান্ডিয়া, ইনসেটে তাঁদের পিতার পোশাক। ছবি- টুইটার

অভিষেক ম্যাচে খেলতে নেমে ৩১ বলে ৫৮ রান করে অপরাজিত ছিলেন ক্রুণাল পান্ডিয়া। সদ্য পিতৃবিয়োগের পর ভারতের জার্সি গায় প্রথমবার খেলতে নেমেছিলেন তিনি। সেই ম্যাচে তাঁর সাফল্য মন ছুঁয়ে যায় সমর্থকদের। তবে তিনি যে খুঁজলেন বাবাকেই। একদিনের ক্রিকেটে অভিষেক ম্যাচে দ্রুততম অর্ধ শতরানের রেকর্ডও গড়লেন ক্রুণাল। ২৬ বলে পঞ্চাশ করে ভারতের জয়ে বড় অবদান আভিষিক্ত ক্রুণালের। ম্যাচ শেষে ভারতের জয়ের নায়ক ক্রুণালের কান্না ক্রিকেটপ্রেমীদের মনে দাগ কেটেছিল।

সশরীরে না থেকেও পুনের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে ভারতের ড্রেসিংরুমে উপস্থিত ছিলেন হার্দিক ও ক্রুণাল পান্ডিয়ার পিতা। ম্যাচের শেষে বিসিসিআইয়ের ওয়েবসাইটে দেওয়া ভিডিওতে দুই ভাইয়ের কথোপকথনেই জানা যায় সেই রহস্য।

আসলে ক্রুণাল পান্ডিয়া ওয়ানডে ক্রিকেটে নিজের অভিষেক ম্যাচে সঙ্গে নিয়ে আসেন প্রয়াত পিতার স্মৃতিবিজড়িত কিছু পোশাক, যেগুলো তিনি মাঠে নামার আগে ড্রেসিংরুমে সাজিয়ে রাখেন।

মৃত্যুর আগের রাতে পান্ডিয়ার বাবা অভ্যাস মতো নিজের জামা, প্যান্ট, জুতো, টুপি গুছিয়ে রেখেছিলেন পরের দিন সকালে পরার জন্য। যদিও ভোরে মৃত্যু হওয়ায় গুছিয়ে রাখা পোশাক আর পরা হয়নি তাঁর। ক্রুণাল সেই পোশাকগুলোই বরোদা থেকে বয়ে নিয়ে যান পুনেতে।

হার্দিক পান্ডিয়ার সঙ্গে নিজের অভিষেক ম্যাচ নিয়ে কথা বলার সময় ক্রুণাল জানান, 'আসলে ১৬ তারিখ ভোর ৪টা নাগাদ বাবার মৃত্যু হয়। সেদিনই আমার মুস্তাক আলির ম্যাচ খেলার কথা ছিল। বাবার অভ্যাস ছিল পরের দিনে পরার জন্য আগের রাতেই নিজের জুতো, জামা, প্যান্ট এমনকি টুপি পর্যন্ত গুছিয়ে রাখা। আমি দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার আগে সেই ব্যাগটিকেই বরোদা থেকে এখানে নিয়ে আসি। আমি জানি বাবা আমাদের সঙ্গে নেই। তবু সেই পোশাকগুলো, যেগুলো তিনি সেই ম্যাচের সময় পরতেন, আমি ড্রেসিংরুমে নিয়ে আসি।

হার্দিকই জানান যে, তাঁর দাদা প্রয়াত পিতার স্মৃতিবিজড়িত ব্যাগটি সেই থেকেই নিজের সঙ্গে বয়ে বেড়াচ্ছেন।

গত জানুয়ারিতে মারা গেছেন হার্দিক ও ক্রুনালের বাবা। অভিষেকে ৩১ বলে হার না মানা ৫৮ রানের ইনিংসটি বাবাকে উৎসর্গ করেছেন ক্রুনাল। ইনিংস বিরতির সময় মাইক্রোফোনের সামনে দাঁড়িয়ে এই অলরাউন্ডার ‘এটা আমার বাবার জন্য’- কথাটা বলেই আর কিছু বলতে পারেননি। হাতের ইশারার বুঝিয়ে দিয়েছেন আর কিছু বলার শক্তি নেই তার। কান্না লুকিয়ে মাথা নিচু করে আবার কিছু বলার চেষ্টা করেও পারেননি। বুকের ভেতর কী যন্ত্রণার ঢেউ উঠেছে, সেটা বাইরে থেকে বুঝে নেওয়া যায় স্পষ্ট। খানিক পর ছোট ভাই হার্দিককে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি।



সাতদিনের সেরা