kalerkantho

শনিবার । ২৫ বৈশাখ ১৪২৮। ৮ মে ২০২১। ২৫ রমজান ১৪৪২

মুখোমুখি তাঁরা

সাকিব বিতর্কে আইপিএল কার্ড

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

২২ মার্চ, ২০২১ ০১:৫১ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



সাকিব বিতর্কে আইপিএল কার্ড

সাবেক অধিনায়ক আকরাম খান তাঁর চিঠি পড়েনইনি! আরেক সাবেক অধিনায়ক নাঈমুর রহমানের নেতৃত্বাধীন হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) কমিটি নতুন খেলোয়াড় তুলে আনার ক্ষেত্রে ব্যর্থ। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান এবং আরেক সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাহমুদ ছাড়া বোর্ডের আর কেউই কৃতিত্ব পাওয়ার মতো কাজ করছেন না। দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় তারকা সাকিব আল হাসান শনিবার রাতে এ রকম এন্তার অভিযোগের ঝাঁপি খুলে বসেছিলেন এক ফেসবুক লাইভে। পরদিনই সন্ধ্যায় গুলশানে বোর্ড সভাপতির বাসায় পরিচালকদের জরুরি তলব বুঝিয়ে দিচ্ছিল, পাল্টা কিছুও আসতে যাচ্ছে। সেটি এলোও। তবে নাঈমুরের দাবি, অন্য অনেক আলোচনার ফাঁকে সাকিবের ফেসবুক লাইভের বিস্ফোরক সব মন্তব্যের বিষয়টি ‘প্রসঙ্গক্রমে’ এসেছিল। যেভাবেই আসুক, বোর্ড পরিচালকদের দিকে আঙুল তোলার জন্য শাস্তির মুখে পড়ার অপেক্ষায় সাকিব। শ্রীলঙ্কায় দুই টেস্টের সিরিজ না খেলে ভারতের আইপিএলে খেলার যে অনুমোদন তিনি পেয়েছিলেন, সেটিই বাতিল করার কথা ভাবছে বিসিবি।

ক্রিকেট অপারেশনস কমিটির প্রধান আকরাম খানই কাল রাতে বোর্ড সভাপতির বাসায় বৈঠক শেষে নেমে এসে জানালেন সাকিবের ওপর সে খড়্গ নেমে আসার আশঙ্কার কথা। দেশের হয়ে টেস্ট খেলতে চান না বলে যে প্রচার সাকিবকে নিয়ে, সে জন্য এই অলরাউন্ডার ফেসবুক লাইভে মূলত আকরামকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছিলেন। বলেছিলেন, ‘আকরাম ভাই আমার চিঠি পড়েনইনি। কোথাও বলিনি যে আমি টেস্ট খেলতে চাই না। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ প্রস্তুতির জন্য আইপিএল খেলতে চেয়েছি।’ বোর্ডের কাছে এখন সাকিবের বক্তব্যের অর্থ এ রকমই যে তিনি টেস্ট খেলতে চান।

আইপিএল খেলার জন্য এনওসি (অনাপত্তিপত্র) পুনর্বিবেচনার সিদ্ধান্তও সে কারণেই নেওয়া হয়েছে বলে জানালেন আকরাম, ‘অনেক কথার মধ্যে একটি কথা শুনেছি যে ও চিঠি দিয়েছে। এবং আমি নাকি সেই চিঠি পড়িনি। আজকে আপনারা অনেকে ফোন করেছেন। ঠিক আছে, আমি হয়তো ভুল বুঝতেও পারি। ওর কথায় যেহেতু বোঝা যাচ্ছে ও টেস্ট খেলতে চাচ্ছে, কাল-পরশু বোর্ডের সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে ওর এনওসির বিষয়ে আমরা চিন্তা করব। ওর যদি টেস্ট খেলার বিষয়ে আগ্রহ থাকে, তাহলে শ্রীলঙ্কায় যাবে এবং টেস্ট খেলবে। বাকি বিষয়গুলো বোর্ডে গিয়ে দেখে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত হবে।’ সেই সঙ্গে তিনি আরো যোগ করেছেন, ‘আমার দায়িত্ব তো শুধু সাকিবকে নিয়ে নয়, পুরো বাংলাদেশ দলকে নিয়েই। আমি এত বড় একটি দায়িত্বে আছি এবং অনেক দিন থেকেই। এখন ও যদি মনে করে থাকে আমি চিঠি পড়িনি... ওটাই বললাম। আমরা তো শ্রীলঙ্কায় যাচ্ছি দুটো টেস্ট খেলতেই। সেখানে আমাদের ওয়ানডেও নেই, টি-টোয়েন্টিও নেই। যেহেতু ও নিজেই বলেছে...। ও যদি টেস্ট খেলতে চায়, খেলবে। সে ক্ষেত্রে আমরা ওর এনওসি নিয়ে চিন্তা করব।’

কিন্তু সাকিবের চিঠি কি আকরাম সত্যিই পড়েছিলেন? এমন প্রশ্নের জবাবে এই সাবেক অধিনায়ক বললেন, ‘ও চিঠিতে লিখেছে, শ্রীলঙ্কায় যে সিরিজটি আমরা আয়োজন করতে যাচ্ছি, সে সেটিতে না খেলে আইপিএল খেলতে চায়। শ্রীলঙ্কায় আমরা কী খেলতে যাচ্ছি, সেটি আপনারাও জানেন, আমরাও জানি এবং সবাই জানে। এ কথাটা ওখানে উল্লেখ করা আছে। যেহেতু ও নিজের মুখেই বলেছে সে টেস্ট খেলতে চায়...।’ এইচপির ব্যর্থতা নিয়ে সাকিবের বক্তব্যের জবাব নাঈমুর দিয়েছেন এভাবে, ‘আপনারা জানেন চার-পাঁচ বছর আগে এইচপি কোথায় ছিল এবং এখন কোথায় আছে। জাতীয় দলে কিন্তু বেশ কয়েকজন খেলেছে এবং পারফরম করেছে। এটা একেবারেই উন্মুক্ত একটি চিত্র।’ সংবাদমাধ্যমের কাছেও পাল্টা প্রশ্ন ছুড়েছেন নাঈমুর, ‘সম্মান প্রদর্শন করা নিয়েও কথা বলেছে। আমরা তিনজন সাবেক অধিনায়ক বোর্ড পরিচালক হিসেবে আছি। তো আমাদের এভাবে বলা কি সম্মান প্রদর্শন করা? এটা আপনাদের কাছে আমার প্রশ্ন।’



সাতদিনের সেরা