kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

গর্বিত ব্রাফেট এখন চ্যালেঞ্জের অপেক্ষায়

অনলাইন ডেস্ক   

১৫ মার্চ, ২০২১ ২০:০২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গর্বিত ব্রাফেট এখন চ্যালেঞ্জের অপেক্ষায়

করোনা আতঙ্কে গত জানুয়ারিতে বাংলাদেশ সফরে আসেননি অধিনায়কসহ ওয়েস্ট ইন্ডিজের শীর্ষস্থানীয় ১০জন ক্রিকেটার। তবে অভিজ্ঞদের ছাড়া ওয়ানডে সিরিজের হোয়াইটওয়াশ হলেও, দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ ২-০ ব্যবধানে জিতে নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তরুণদের নিয়ে গড়া দল নিয়ে ক্যারিবীয়দের টেস্ট সিরিজ জয়ের স্বাদ দেন ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক ক্রেইগ ব্রাফেট।

ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক ব্রাফেটের নেতৃত্ব, ব্যাটিং-বোলিং পারফরমেন্স মন জয় করে নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ডের। তাই পাঁচ বছর টেস্ট দলকে নেতৃত্ব দেয়া হোল্ডারকে সরিয়ে ব্রাফেটকে বড় ফরম্যাটের দলের দায়িত্ব দেয়া হয়। টেস্ট দলের দায়িত্ব পেয়ে উচ্ছসিত ব্রাফেট। আগামী ২১ মার্চ থেকে শুরু হতে যাওয়া শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ দিয়ে তার যাত্রা শুরু হবে। এক সিরিজের সাফল্যে অধিনায়কত্ব পাওয়া ব্রাফেট এটিকে বড় চ্যালেঞ্জ মনে করছেন।

তিনি বলেন, 'আমাকে এই সুযোগ দেয়ার জন্য ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানাতে চাই এবং এটি বলতে চাই, আমি মনে করি জেসন হোল্ডার গত ৫ বছর টেস্ট দলের অধিনায়ক হিসেবে দারুণ কাজ করেছে। তার কাছে থেকে দায়িত্ব নেওয়া বিশেষ কিছু। আমি খুব খুশি হয়েছিলাম (অধিনায়ক হওয়ায়)। অবশ্যই আমি গর্বিত এবং আমি চ্যালেঞ্জের অপেক্ষায় আছি।'

২০১৫ সালে দীনেশ রামদিনের কাছ থেকে নেতৃত্ব নিয়েওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৩৭ টেস্টে নেতৃত্ব দিয়েছেন হোল্ডার। তার নেতৃত্বে উইন্ডিজ দল ১১টি জয়, ৫টি ড্র এবং ২১টি পরাজয়ের স্বাদ পেয়েছে। আর বাংলাদেশ সফরেই ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক হিসেবে প্রথম নয়, অতীতেও দলের প্রয়োজনে নেতৃত্ব দিয়েছেন ব্রাফেট। ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক হিসেবে তিনি ৭ ম্যাচে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। বাংলাদেশের বিপক্ষে চার ম্যাচে, ইংল্যান্ড-ভারত ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১টি করে টেস্ট ম্যাচে ক্যারিবীয়দের নেতৃত্ব দেন ব্রাফেট।

সর্বশেষ বাংলাদেশ সফর নিয়ে ব্রাফেট বলেন, ‘সত্যিই আমি সিরিজটি উপভোগ করেছি। আমি ছেলেদের নিজেদের উপর বিশ্বাস এবং তাদের সক্ষমতার উপর বিশ্বাস রাখা নিশ্চিত করেছি। আমি বেশিরভাগ ছেলের সাথে যুব ক্রিকেট খেলেছি। বেশ কয়েক বছর প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খেলেছি। তাই আমি জানি তাদের কী যোগ্যতা আছে। আমি শুধু তাদের মনে বিশ্বাস জুগিয়েছিলাম যে, তারা এটা করতে পারে। শুধু পরিকল্পনায় বিশ্বাস রাখতে ও তাদের উপর বিশ্বাস রাখতে হবে। সেই সাথে ভালোভাবে প্রস্তুতও করতে হবে। আমি মনে করি, এটা আমরা ভালোভাবে করেছিলাম। এটা গুরুত্বপূর্ণ যে দল হিসেবে আমাদের সবার একই মনোভাব ছিল।'



সাতদিনের সেরা